৮ শ্রাবণ ১৪২৪, রবিবার ২৩ জুলাই ২০১৭ , ৬:৩২ অপরাহ্ণ

diamond world

হাজীগঞ্জ দুর্গ সংস্কারের দাবী শীতলক্ষ্যা নাগরিক সংঘের


প্রেস বিজ্ঞপ্তি || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৬ পিএম, ৭ জুলাই ২০১৭ শুক্রবার


হাজীগঞ্জ দুর্গ সংস্কারের দাবী শীতলক্ষ্যা নাগরিক সংঘের

শীতলক্ষা নাগরিক সংঘের সভাপতি এস. এস. শহিদুল্লাহর বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ‘হাজিগঞ্জ দুর্গ’ এর প্রতিষ্ঠাতা বাংলার সুবাদার (গভর্নর) মীর জুমলার এ বৎসর ৩০ মার্চ ছিল ৩৫৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী। এ মহান ব্যক্তির মৃত্যু দিবসে তাঁর প্রতি রইল আমাদের গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলী। তাঁর জন্ম হয়েছিল ১৫৯১ সালের ৩০ মার্চ। জন্মগতভাবে তিনি ছিলেন ইরানি। তার প্রকৃত নাম মীর মোহাম্মদ সাঈদ। ১৬৬০ খ্রীস্টাব্দে মীর জুমলা বঙ্গদেশের সুবাদার নিযুক্ত হয়েছিলেন।

মীর জুমলা সুবাদার নিযুক্ত হয়ে প্রথমেই ভারতের রাজমহল থেকে ঢাকায় রাজধানী স্থানান্তর করেন। উল্লেখ্য শাহজাদা শাহশুজা ১৬৩৯ খ্রিস্টাব্দে বঙ্গদেশের সুবাদার নিযুক্ত হয়ে ১৬৫০ খ্রিস্টাব্দে ঢাকা থেকে রাজধানী সরিয়ে নিয়েছিলেন। শাহশুজা ১৬৩৯ থেকে ১৬৬০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত বঙ্গদেশের সুবাদার ছিলেন।

মীর জুমলা কর্তৃক ১৬৬০ খ্রীস্টাব্দে পুনরায় ঢাকা রাজধানী হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর তা স্থায়ী ছিল প্রায় ১৭১৭ খ্রীস্টাব্দ অর্থাৎ প্রায় ৫৭ বছর। এ সময় ঢাকা রাজধানী হিসেবে প্রতিষ্ঠার পূর্ণতা পায়। এই মর্মে অনেকে মনে করেন আজকের ঢাকা স্থায়ীভাবে রাজধানী হওয়ার পেছনে মীর জুমলার ১৬৬০ খ্রীস্টাব্দে ঢাকায় রাজধানীর স্থানন্তর ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান। কারণ সুবাদার ইসলাম খান চিশতী কর্তৃক ১৬১০ খ্রীস্টাব্দে ঢাকাকে রাজধানী হিসাবে নির্বাচিত করার মাত্র ৪০ বছরের মাথায় ১৬৫০ খ্রীস্টাব্দে সুবাদার শাহশুজা রাজধানী রাজমহলে সরিয়ে নেয়। (উইজিপিডিয়াঃ ঢাকার ইতিহাস) একটি শহর রাজধানী হিসাবে প্রতিষ্ঠার জন্য ৪০ বৎসর খুব একটা বেশি সময় না। সে সময় ঢাকা সবেমাত্র রাজধানী হিসাবে পথচলা শুরু করেছে এমন সময় শুজা কর্তৃক রাজধানী সরিয়ে নেয়া ছিল যেন ‘অঙ্কুরেই বিনষ্ট করার’ মতো। সে সময় মীর জুমলার ১৬৬০ খ্রীস্টাব্দে পুনরায় ঢাকাকে রাজধানী করা ছিল ঢাকার জন্যে আশির্বাদ।

মীর জুমলা দ্রুত সৈন্য চলাচল, অস্ত্রশস্ত্র পরিবহনের প্রয়োজনে ঢাকায় দুটি রাস্তা, দুটি সেতু এবং একটি দুর্গ নির্মাণ করেছিলেন। তাঁর নির্মিত একটি রাস্তা হলো টঙ্গী - জামালপুর রোড, এ রাস্তাটি বর্তমানে ময়মনসিংহ রোড নামে পরিচিত। এ রাস্তায়ও একটা দুর্গ ছিল। ঢাকা থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে ফতুল্লা পর্যন্ত আরো একটি রাস্তা নির্মাণ করেছিলেন। এ রাস্তায়ও ছিল দুটি দুর্গ। খিজিরপুর (হাজিগঞ্জ) অভিমুখী রাস্তায়ও ছিল আরো দুটি দুর্গ। এর একটি হলো হাজিগঞ্জ দুর্গ। কেউ কেউ মনে করেন মীর জুমলা হাজিগঞ্জ দুর্গ সংস্কার করেছিলেন। ফতুল্লার অদূরে পাগলা সেতুও নির্মাণ করেছিলেন মীর জুমলা।

নারায়ণগঞ্জ মিউনিসিপ্যালিটি (বর্তমান নাম-নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন) নারায়ণগঞ্জ দিগুবাবুর বাজার সংলগ্ন একটি রাস্তার নাম ‘মীর জুমলা রোড’ নামকরণের মধ্য দিয়ে এই বিচক্ষন সুবাদারকে আমাদের মাঝে স্মরণীয় করে রেখেছেন। ঢাকার ওসমানি উদ্যানে রক্ষিত ‘মীর জুমলার কামান`টির জন্যও মীর জুমলা বাংলাদেশে একটি পরিচিত নাম। কামানটির প্রকৃত নাম বিবি মরিয়ম। এটি ১৮৩২ খ্রীস্টাব্দে চকবাজারে, ১৯১৭ খ্রীস্টাব্দে সদর ঘাটে জনসাধারণের সামনে প্রদর্শনের জন্য রাখা হয়। ১৯৫৭ খ্রীস্টাব্দে গুলিস্তানের সামনে সব শেষ আশির দশকে এটিকে ওসমানি স্মৃতি উদ্যানে রাখা হয়, যা আজও সেখানে দেখা যায়।’

১৯৬১ খ্রীস্টাব্দে পহেলা নভেম্বর আসাম অভিযানে মীর জুমলা নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। সে অভিযান ছিল বঙ্গদেশের গভর্নর হিসাবে মীর জুমলার সবচেয়ে বড় সাফল্য। এ অভিযানের মধ্য দিয়ে তিনি কামরুপ ও আসাম রাজ্য দখল করেন। সে অভিযানে অন্যান্য অস্ত্রশস্ত্রের সাথে ‘বিবি মরিয়ম’ ও ‘কালেখান জমজম’ নামক বিশাল কামান দুটিও সাথে করে নিয়ে গিয়েছিলেন।মীর জুমলা এই দুটি কামান ঢাকায় নির্মাণ করেছিলেন। যুদ্ধ শেষে আসাম থেকে ফিরে আসার পথে ১৬৬৩ খ্রিস্টাব্দের ৩০ মার্চ খিজিরপুরের অদূরে মীর জুমলা নৌকায় মারা যান। ভারতের মেঘালয় রাজ্যে গারো পাহাড়ের কাছে একটি উঁচু টিলায় তাঁকে কবর দেয়া হয়। তাঁর কবর দীর্ঘদিন ধরে সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

নারায়ণগঞ্জের ঐতিহাসিক হাজিগঞ্জ দুর্গকে সংস্কার ও উন্নয়ন করে এর আশপাশ এলাকা নিয়ে ঢাকার ঐতিহাসিক লালবাগ দুর্গের মতো একটি পর্যটন এলাকা গড়ে তুললে আমাদের ঐতিহ্যকে যেমন বাঁচিয়ে রাখা হবে, অপরদিকে ভ্রমণ পিপাসু মানুষদেরও বিশেষ একটি ঐতিহ্যকে দেখার সুযোগ করে দেয়া হবে। নারায়ণগঞ্জ শহর এলাকায় এমনিতেই ঐতিহ্যকে দেখার মাধ্যমে বিনোদনের কোন সযোগ নেই। এই শহরের গোড়াপত্তনের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবেও হাজিগঞ্জ দুর্গের গুরুত্ব অপরিসীম। এ সম্পর্কে নারায়ণগঞ্জ ইতিহাস গ্রন্থের ৪৪ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে ‘নারায়ণগঞ্জ একটি ঐতিহাসিক স্থান। মোগল আমলে এখানে একটি প্রশাসনিক কাঠামো গড়ে উঠেছিল। এ কাঠামোর মূল কেন্দ্র ছিল হাজিগঞ্জ ও সোনাকান্দা কেল্লা। এসব কেল্লাকে কেন্দ্র করে এতদঞ্চলে একসময় গড়ে উঠেছিল এক বিরাট জনপদ।’ সেদিক বিবেচনা করে এটিকে রক্ষা করা দরকার। বিবি মরিয়ম কামানটিও ওসমানি উদ্যান থেকে নিয়ে এসে এই দুর্গের প্রবেশ গেটে স্থাপন করা যেতে পারে। এলাকাটিকে আকর্ষণীয় করার জন্য ঐতিহ্যকে সমুন্নত রেখে দুর্গের অভ্যন্তরে মোগল যুগের সৈনিকদের যুদ্ধরত অবস্থার কিছু ভাস্কর্য স্থাপন করে দুর্গ এলাকাটিকে একটি আকর্ষণীয় পর্যটন এলাকা হিসেবে গড়ে তোলা যাবে বলে আমরা মনে করি। এব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবেন বলে নারায়ণগঞ্জবাসী আশা করে।

হাজিগঞ্জ দুর্গটি এখনো সংস্কার করার মতো অবস্থায় আছে। এটুকুও নিঃশেষ হয়ে গেলে আমরা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে এজন্য দায়ী থাকব। সমসাময়িক বিশ্বে অন্যান্য জাতিগোষ্ঠী তাদের ঐতিহ্য কত পরিশ্রম ও যত্ম সহকারে রক্ষা করে তা আমরা সকলেই বিভিন্ন টেলি-মিডিয়া ও পত্রপত্রিকার মাধ্যমে অবগত আছি। তাই নিঃশেষ হওয়ার আগেই এটিকে সংস্কার ও উন্নয়ন করার পক্ষে নারায়ণগঞ্জবাসীকে সোচ্চার হওয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছি।

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন পদক্ষেপ নিলে অধিকতর ফলপ্রসূ হবে বলে আমরা শীতলক্ষা নাগরিক সংঘ মনে করি। কারণ বর্তমান মেয়র প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক মনোনিত আমাদের দ্বারা নির্বাচিত একজন নেত্রী। এ ব্যাপারে তাঁর বলিষ্ঠ হাত প্রসারিত করলে সংস্কার করার কাজটি তরান্বিত হবে বলে আশাকরি। অতীতে কিছু রাস্তার নাম ঐতিহাসিক ব্যক্তিদের নামে নামকরণের মধ্যদিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ঐতিহ্য রক্ষায় গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা রয়েছে। যেমন, বাংলা বিজেতা বখতিয়ার খিলজির নামে "বখতিয়ার খিলজি রোড", স্বাধীন সুলতান গিয়াসউদ্দিন আজম শাহর নামে "সুলতান গিয়াসউদ্দিন রোড", বাংলার স্বাধীন নবাবের নামে "নবাব সিরাজদৌল্লাহ রোড", বারো ভূঁঞা প্রধান ঈশা খাঁ`র নামে "ঈশা খাঁ রোড", "মীর জুমলা রোড", "শায়েস্তা খান রোড", ও "শাহসুজা রোড"; "শের-ই-বাংলা রোড", "বঙ্গবন্ধু রোড" এবং "নবাব সলিমুল্লাহ রোড" ইত্যাদি। সেদিক বিবেচনা করে আমরা নাগরিক সমাজ নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনকে তার অতীতের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার মতো এবারো ঐতিহাসিক হাজিগঞ্জ দুর্গ সংস্কার ও উন্নয়ন করার পদক্ষেপ নিতে প্রত্মতাত্ত্বিক বিভাগ তথা সংশ্লিষ্টদেরকে তাগিদ দেয়ার জন্য মুখ্য ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করি।


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ