৮ আশ্বিন ১৪২৪, রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ৭:২৭ পূর্বাহ্ণ

কোরবানীতে দুর্ভোগ : স্বস্তিদায়ক ঈদ হয়নি ডিএনডিবাসীর


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:৫০ পিএম, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার | আপডেট: ০৭:৫৬ পিএম, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭ শনিবার


ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

‘‘৩৩ বছর ধরে ডিএনডি বাধের ভেতরে কুতুবআইলে বসবাস করি। কিন্তু এর মধ্যে এত কষ্ট কখনো করি নাই য এবারের কোরবানীর ঈদে করতে হয়েছে। বাড়ির ছাদে গরু রেখে সেখানেই কোরবানী করতে হয়েছে। নামাজ আদায় করতে হাটুর উপর কাপড় উঠিয়ে চলাচল করতে হয়েছে। আল্লাহ জানে আর কত এ দুর্ভোগ পোহাতে হবে।’’

একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত কাইউম আহমেদ আক্ষেপের সুরেই কথাগুলো বলছিলেন। শুধু কাইউম না এবার লাখ লাখ ডিএনডি অধিবাসীকে কষ্ট, দুর্ভোগ আর নিদারুণ দুর্ভোগে ঈদ উল আযহা পালন করেছে।

ডিএনডি তথা ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা বাধের ভেতরের বেশীরভাগ এলাকা এবার ছিল পানিতে নিমজ্জিত। ঈদের আগেই বৃষ্টির কারণে বাধের এসব এলাকা তলিয়ে থাকায় ঈদে বেশ ভোগান্তির শিকার হতে হয় লাখ লাখ অধিবাসীকে। বিশেষ করে ঈদের পশু রাখা থেকে শুরু করে কোরবানীর দিন পর্যন্ত ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

সিদ্ধিরগঞ্জের ধনুহাজী রোড এলাকার বাসিন্দা অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন জানায়, অন্যবার তিনি ঈদের বেশ কয়েকদিন আগেই কোরবানীর পশু ক্রয় করে থাকেন। কিন্তু এবার তার এলাকায় কোরবানীর পশুর খাবারের অভাব হওয়ায় এবং কোরবানীর পশুর চলাফেরার কথা চিন্তা করে কোরবানীর পশু ঈদের দু’দিন আগে কোরবানীর পশু ক্রয় করেন। কিন্তু তার মহল্লার রাস্তায় পানি হওয়ায় কোরবানীর পশুকে কোথাও খাবারের জন্য নিয়ে যেতে পারেননি। উপরন্তু তিনি তার ভবনের নিচে কোরবানীর পশুকে বেধে রেখে শুধু ভুষি এবং আশপাশর গাছের পাতা খাওয়াতে হয় কোরবানীর পশুকে।

লালপুর এলাকার বাসিন্দা আবু তৈয়্যব জানান, এবার কোরবানীর দিন সকালে ময়লা পানির মধ্যেই পরিবারের অন্যদের সঙ্গে নিয়ে মসজিদে গিয়ে নামাজ আদায় করে আবারও সেই পানিতে করেই বাসায় ফিরতে হয়। অন্যবার বাসার সামনের উঠানে কোরবানীর পশু কোরবানী দিলেও এবার গরুকে টেনে ছাদে উঠাতে হয়।

তল্লা এলাকার সাইদুর রহমান প্রতিবার নিজ বাড়িতে কোরবানী দিলেও এবার তিনি কোরবানী দিয়েছেন ঢাকাতে এক আত্মীয়ের সঙ্গে। কারণ হিসেবে বলেন, ‘পানিতে পুরো ডিএনডি থৈ থৈ করেছে। তাই পশু কিনে রাখবো কোথায় আর কোরবানী দিব কোথায়? এসব কারণেই এবার কোরবানী এখানে না দিয়ে ঢাকাতে গিয়ে দিতে হয়েছে ঝামেলা এড়াতে।

সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইলস্থ পাম্প হাউজের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রাম প্রাসাদ জানায়, ১২৮ কিউসেক পানি নিষ্কাশন ক্ষমতাসম্পন্ন ৪টি পাম্পের মধ্যে ৩টি পাম্প বর্তমানে সচল রয়েছে। অপরটি রয়েছে নষ্ট। এ ছাড়া ৫ কিউসেক পানি নিষ্কাশন ক্ষমতাসম্পন্ন ছোট ২২টি পাম্পের মধ্যে বর্তমানে সচল রয়েছে মাত্র ১২টি। ময়লা আবর্জনার কারণে পাম্পটি দিয়ে পানি নিষ্কাশন করতে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Loading...
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ