৫ আশ্বিন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ২:১৪ পূর্বাহ্ণ

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে ডিসি জানালেন এক বছরের কর্মকাণ্ড অর্জন (ভিডিও)


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:০৭ পিএম, ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার


নিউজ নারায়ণগঞ্জকে ডিসি জানালেন এক বছরের কর্মকাণ্ড অর্জন (ভিডিও)

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক হিসেবে এক বছর অতিবাহিত করেছেন রাব্বী মিয়া। আর বিগত ওই এক বছর নানা কারণে নারায়ণগঞ্জ ছিল বেশ গুরুত্বপূর্ণ ও আলোচিত। বাহ্যিকভাবে এ এক বছরে বড় ধরনের কোন অভিযোগের কালিমা লেপন হয়নি প্রশাসনের উপর। স্ব মেধা আর সকলের সঙ্গে সমন্বয় করে অনেকটা সফলতার সঙ্গেই এক বছরে জেলা প্রশাসকের চেয়ারে বসে নারায়ণগঞ্জ প্রশাসনকে নিয়ন্ত্রন করেছেন তিনি, কঠোর হাতে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো মোকাবেলা করে প্রশংসার ঝুলি ভারী করেছেন।

বিগত এক বছরের অর্জন নিয়ে নিউজ নারায়ণগঞ্জের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলেছেন জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া। ৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে বসে জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া নিউজ নারায়ণগঞ্জ প্রতিবেদকের সঙ্গে তুলে ধরেন আদ্যোপান্ত।

জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, নারায়ণগঞ্জের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ জেলায় সরকার আমাকে পদায়ন করেছে। নারায়ণগঞ্জের সাথে আত্মীয় সম্পর্ক ও ব্যক্তির সম্পর্ক রয়েছে। আমি এখানে এর আগে প্রথম শ্রেণীর ম্যাজিস্ট্রেট হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছি এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছি। এছাড়াও বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছি।

জেলা প্রশাসক হিসাবে নারায়ণগঞ্জে দায়িত্ব পালন অনেক বড় একটি প্রাপ্তি আমার জন্য এবং সরকার ও প্রশাসন আমার প্রতি আস্থা রাখায় আমি নারায়ণগঞ্জের দায়িত্ব পেয়েছি।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন
রাব্বী মিয়া বলেন, গত বছরের ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন যা বিশ্বব্যাপী আলোচিত হয়েছে। অবাধ নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন দলমত নির্বিশেষে সকলে প্রশংসা করেছে। জেলা প্রশাসক হিসাবে আমি যেহেতু সমন্বয়ক ছিলাম সেহেতু এটা আমার জন্য বড় পাওয়া। রাজনীতিবিদ, সংসদ সদস্য ও আমরা যারা কর্মকর্তা ছিলাম সকলে মিলে একটা উৎসবমুখর পরিবেশে সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে পেরেছি। তার পাশাপাশি জেলা পরিষদ নির্বাচন করতে পেরেছি।

সাত খুন মামলার রায়
তিনি বলেন, সাত খুন মামলার যে রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র করে যে আশঙ্কা করা হয়েছিল সেগুলো আমরা সকলে মিলে শান্তিপূর্ণ ভাবে বজায় রাখতে পেরেছি।

এখানে উল্লেখ্য যে, গত ১৬ জানুয়ারী জেলা ও দায়রা জজ আদালত সাত খুন মামলায় ২৬ জনের ফাঁসি ও বাকি ৯জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড প্রদান করে।

এখন নারায়ণগঞ্জের গুরুত্বপূর্ণ কাজ
‘আমরা মেডিক্যাল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আশা করি অচিরেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে।’ বক্তব্যে যোগ করেন রাব্বী মিয়া।

যেসব কাজের মূল্যায়ন দিয়ে কাজ করা হচ্ছে
জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, ‘এমপি সেলিম ওসমানের সহযোগিতায় শহরের যানজটের বিশাল পরিবর্তন হয়েছে। এখন এটাকে ধরে রাখা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। এর পাশাপাশি আরো উন্নতি সাধন করা যাতে করে জনগণ এটা উপভোগ করতে পারে।’

নারায়ণগঞ্জের প্রেক্ষিতে আইনশৃঙ্খলার যে কমিটি ও আইনশৃঙ্খলার কমিটিতে যাঁরা রয়েছে তারা মিলে যথাযথভাবে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করেছি। আমরা (জেলা প্রশাসন), পুলিশ ও অন্য বাহিনীর সমন্বয়ে বিশাল মজুদের অস্ত্র উদ্ধার করতে পেরেছি। সেটা আমাদের জন্য অনেক বড় অর্জন।

জঙ্গি ও মাদক নির্মূল
জঙ্গি ও মাদক নির্মূলেও প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকান্ড তুলে ধরে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘মাদক নির্মূলে আমরা অনেক বড় বড় সমাবেশ করেছি যেখানে ১৫ থেকে ২০ হাজার লোকের সমাগম ছিল। আমি, এমপি সাহেবগণ, পুলিশ সুপার সহ আমরা সকলে মিলেই এ কাজগুলো করছি।’

‘জেলার ৫টি উপজেলায় মাদক নির্মূলে বৃহৎ মাদক বিরোধী সমাবেশ করেছি। যার জন্য সমাজে অনেক প্রভাব পড়েছে। মাদকের নিয়ন্ত্রণের যে কাঙ্খিত মাত্রা তার জন্য আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। যার জন্য আমরা কাজ করছি। ভবিষ্যতে আমরা অনেক এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবো।’

‘জঙ্গিবাদ বন্ধ করার জন্য আমাদের ইমাম সাহেব থেকে শুরু করে আমরা যারা সরকারি কর্মকর্তা রয়েছি সকলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করছি। জঙ্গি ধরার ক্ষেত্রে নারায়ণগঞ্জের র‌্যাব-১১ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। আমরা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে কাজ করে যাচ্ছি।’

ডিসি বাংলোতে অনুষ্ঠান
বিভিন্ন দিবসে সাধারণত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অনুষ্ঠান হলেও গত এক বছরে এ ধরনের অনেক অনুষ্ঠানস্থল ছিল জেলা প্রশাসকের বাসভবন কিংবা বাংলোতে। এর ব্যাখায় রাব্বী মিয়া নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘জেলা প্রশাসকের বাসভবনে যে অনুষ্ঠান হয় সেটা একটি নতুন মাত্রা যোগ করেছি। জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ফাস্ট গার্ল, ফাস্ট বয়দেরকে জেলা প্রশাসনের অনুষ্ঠানগুলোতে নিয়ে যাই যাতে করে বুঝতে পারে তারা যদি ভালো করে পড়ালেখা করে, তারা যদি মাদক থেকে দূরে থাকে, তারা যদি জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস থেকে দূরে থাকে তখন তারা যেন সরকারি কর্মকর্তা হতে পারে। বড় রাজনীতিবিদ, সাংস্কৃতিক কর্মী, সংবাদকর্মী হতে পারলে তারা এরকম সম্মানী স্থানে থাকতে পারবে। সম্মানী অনুষ্ঠান পরিচালনা করতে পারবে।’

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তৎপরতা
প্রায়শই বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরব দেখা যায় জেলা প্রশাসককে। সচরাচর তিনি স্কুলের অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকতে রাজী নন। মেধাক্ষরে দেওয়া উপদেশ আর শিক্ষামূলক বক্তব্যে কখনো কখনো তাঁকে বলতে শোনা যেত জাপানী ভাষার ক্ষণিক বক্তব্য। কারণ তিনি জাপানে ছিলেন উচ্চ শিক্ষার জন্য। জাপানী ভাষার ওই বক্তব্য শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভিন্ন এক অনুভূতি নাড়া দেয়।

রাব্বী মিয়া বলেন, ‘ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার দিকে মনযোগী রাখা ও মাদক থেকে দূরে রাখার জন্য বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাংস্কৃতিক বিকাশের জন্য অনেক কাজ করেছি। সেখানে স্থায়ী মঞ্চ করে দিয়েছি অনেকগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এবং অনেকগুলো স্কুলে সততা স্টোর করছি। যাতে করে ছোট বেলা থেকেই দুর্নীতির বিরুদ্ধে তাদের একটি ধারণা তৈরি হয় এবং সেই ধারণা পোষণ করে সামনে দিকে এগিয়ে যেতে পারে।

‘আমরা অভিভাবকদের নিয়ে কাজ করছি। জেলার বিভিন্ন ইমামদের নিয়ে সমাবেশ করেছি, মতবিনিময় করেছি। সকল প্রিন্সিপাল, হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক, প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষক সহ সবাইকে নিয়ে আমরা বিভিন্ন সময় সমাবেশ করেছি। এক্ষেত্রে সংসদ সদস্যগণ অনেক সহযোগিতা করে থাকেন। ওনাদের নিয়ে যখন অনুষ্ঠান করা হয় তখন ১৫ থেকে ২০ হাজার মানুষের সমাগম হয়। এজন্য মানুষের সাথে যোগাযোগ হয়। সরকারের সাথে মানুষের সম্পর্ক হয়। এ কাজগুলো আমরা করছি।’

অবকাঠামোগত উন্নয়ন
গত এক বছরে নারায়ণগঞ্জে প্রশাসনিকভাবে অনেক উন্নয়ন কাজ হয়েছে। সেগুলো সম্পর্কে জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, ‘তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর কাজ অচিরেই শুরু হবে। জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে নামকরণ ঠিক করা হয়েছে। ওসমানী স্টেডিয়ামের পাশে আমরা ক্রীড়া কমপ্লেক্স করছি। এটার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। ভুলতা গাউছিয়া ফ্লাইওভারের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এটা হলে গেলে ঢাকা-সিলেট যোগাযোগে এ ভুলতা এলাকায় আর যানজট হবে না। এক বছরের মধ্যে লাঙ্গলবন্ধ পূর্ণস্নান এলাকায় ১২০ কোটি টাকার একটি প্রজেক্ট নেওয়া হয়েছে এলজিইডির মাধ্যমে। সড়ক ও জনপদের মাধ্যমে আরো একটি প্রজেক্ট নেওয়া হয়েছে ১২০ কোটি টাকার। দুইটি প্রকল্প এক বছরের মধ্যে নেওয়া হয়েছে। ১ হাজার কোটি টাকার উপরে একটা মাস্টার প্লান করছি। এ মাস্টার প্লান অনুযায়ী আমরা যদি কাজ করতে পারি তাহলে এটি একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে উঠবে।’

‘আড়াইহাজারে আমরা বেশ কয়েকটি অর্থনৈতিক অঞ্চল সৃষ্টি করেছি। অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে জিটুজি একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল রয়েছে প্রায় ৪৭১ একর জায়গা নিয়ে যা বাংলাদেশ ও জাপান সরকারের সহযোগিতায়। ইতোমধ্যে ওই এলাকায় জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছে। এছাড়াও বেসরকারি ভাবে কয়েকটি অর্থনৈতিক অঞ্চল হয়েছে। জেলা প্রশাসনের কার্যক্রম গতিশীল ছিল বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

কারাগারের ভেতরে গার্মেন্ট
গার্মেন্ট সেক্টরে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত নারায়ণগঞ্জ। কিন্তু কারাগারের ভেতরেও এ প্রতিষ্ঠান যা শুনে অবাক হওয়ার মত। কিন্তু সেটাকে সাধ্য করেছেন জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া। এ প্রসঙ্গে তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে এ প্রথম আমরা কারাগারের ভিতরে গার্মেন্টস প্রতিষ্ঠান করছি। দেখা যাবে কারাগারে ভিতরে যারা বন্দি আছে তারা এখানে কাজ করতে পারবে। তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রয়ের লভ্যাংশের একটি অংশ তারা প্রতি মাসে বাড়িতে পাঠাতে পারবে অথবা যদি মনে করে ৩ থেকে ৪ বছর এখানে থাকার পরে এক সাথে কয়েক লাখ টাকা নিয়ে যেতে পারবে। তারা দক্ষ হবে এবং আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হয়ে যখন ঘরে ফিরে যাবে তখন তারা স্ব-উদ্যোগে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করতে পারবে। আমি মনে করি বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি নতুন ধারণা। আর এটা বাস্তবায়ন হলে সরকারে দৃষ্টি আনতে পারে হয়তো অন্য কোন কারাগারে গার্মেন্ট স্থাপিত হতে পারে। ইতোমধ্যে আমরা এ কারাপণ্য বিক্রি করার জন্য কারাগারের বাহিরে  ডিসপ্লে ও বিক্রয় কেন্দ্র করেছি।’ (আগামীকাল পড়–ন কী করতে চান জেলা প্রশাসক)।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ