৯ আশ্বিন ১৪২৪, সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ৫:০৮ পূর্বাহ্ণ

তবুও সাখাওয়াত পন্থীদের রাজনীতি!


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৩ পিএম, ১৬ জুলাই ২০১৭ রবিবার


তবুও সাখাওয়াত পন্থীদের রাজনীতি!

নারায়ণগঞ্জের আইনজীবীরা অনেক আগেই বলেছিলেন স্বার্থ ছাড়া অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান একটি কাজও করেন না। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির একজন আইনজীবী অ্যাডভোকেট এসএম গালিব যিনি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের জুনিয়র হিসেবে কাজ করছেন। আর সাখাওয়াত হোসেন খানের সঙ্গে তৈমূর আলমের দূরত্ব থাকায় এসএম গালিবের উপর হামলাকারীদের বিচার দাবিতে মানববন্ধনেও উপস্থিত হয়নি সাখাওয়াত হোসেন খান ও তার পন্থী সিনিয়র আইনজীবীরা। যদিও মানববন্ধনে সকল আইনজীবীরা দল মতের উর্ধ্বে গিয়ে অংশগ্রহন করেছেন। যেখানে কঠোর বক্তব্য রেখেছেন অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু।
                                                               
আইনজীবীরা জানিয়েছেন, ১৬ জুলাই রোববার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ভবনের সামনে সর্বস্তরের আইনজীবীদের উদ্যোগে এসএম গালিবের উপর হামলাকারীদের বিচার ও শাস্তি দাবিতে মানববন্ধন করেছেন আইনজীবীরা। আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করেছেন তারা। কিন্তু এ মানববন্ধন সকল দল মতের আইনজীবীরা উপস্থিত থাকলেও দেখা যায়নি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন, অ্যাডভোকেট সরকার হুমায়ুন কবির, অ্যাডভোকেট খোরশেদ আলম মোল্লা, অ্যাডভোকেট মশিউর রহমান শাহিন, অ্যাডভোকেট রকিবুল হাসান শিমুল, অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ জাকির, অ্যাডভোকেট এইচএম আনোয়ার প্রধান সহ অনেক পরিচিত আইনজীবীদের। কিন্তু এসব আইনজীবীরা অতীতের যে কোন আন্দোলনে সরব ছিলেন। চন্দন সরকার হত্যার বিচার দাবিতে সাখাওয়াত হোসেন নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু গালিবের মানববন্ধনে উপস্থিত না হওয়ার কারনে আইনজীবীরা এসব আইনজীবীদের অবস্থান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।
 
মানববন্ধনে আসা আইনজীবীরা বলেছেন, রাজনীতিতে দল মত পার্থক্য থাকতে পারে। আবার একই দলের রাজনীতিতে প্রতিযোগীতা বিরোধ দ্বন্ধ থাকতে পারে। কিন্তু সবচেয়ে বড় বিষয় হলো আমরা আইনজীবী। গালিব যদি আইনজীবী হিসেবে কোন অসদাচারন করে থাকে সেটারও বিচার হবে। কিন্তু তার উপর যে ধরনের নির্মম হত্যা চেষ্টা চালানো হয়েছে সেক্ষেত্রে আইনজীবীরা বসে থাকতে পারে না। বিপদগ্রস্থ অসুস্থ মানুষের সঙ্গে কোন রাজনীতি চলতে পারেনা। অনেক আইনজীবীরা বলেছেন, সিনিয়র আইনজীবীরা উপস্থিত না হওয়ার কারনে আমরা মর্মাহত হয়েছি। যারা মানববন্ধনে আসেননি তাদের মতাদর্শেই রাজনীতি করছেন গালিব। অথচ সাখাওয়াত হোসেন খান আগ বাড়িয়ে কত কত আসামীদের জামিন করেন। মানববন্ধন করেন। শ্যামল কান্তিকে জামিন করান। কিন্তু গালিবের বেলায় তারা আসলেন না। আসলে কি তারা স্বার্থ ছাড়া কিছু করেন না। এসব প্রশ্ন রেখেছেন আইনজীবীরা। সাখাওয়াত হোসেন খান অনেক আইনজীবীদের বিপদে এগিয়ে গেলেও গালিবের খোজ খবরও নেননি বলে জানাগেছে।
 
এখানে উল্লেখ্য দীর্ঘদিন যাবত নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ার রাজনীতিতে বিএনপির দুই গ্রুপের আইনজীবীদের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। সম্প্রতি জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে আরো বিরোধ সৃষ্টি হয়। যেখানে সাখাওয়াত হোসেন খান একটি বলয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আর তৈমূর বলয়ে রয়েছেন এসএম গালিব। এছাড়াও অতীতে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে এসএম গালিব তৈমুর আলমের বলয়ে কঠোর অবস্থানে ছিলেন। যে কারনে হয়তো গালিবের মানববন্ধনে তৈমূর আলম বিরোধী আসেননি। আর এ বিষয়টিকেই রাজনীতি হিসেবে দেখছেন অন্যান্য আইনজীবীরা।

বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে পেশাগত কাজ শেষ করে মটরসাইকেল তালাবন্ধ করতে গেলে সন্ত্রাসী রুবেল, কাইয়ুুম, জুম্মান, দিলু, শওকত, কাউসার, ইমরান, ইমতিয়াজ, ইসতিয়াক সহ আরো বেশকজন অ্যাডভোকেট এসএম গালিব ও তার সহকারী দিপুর উপর পিছন দিক দিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। দুজনকে এলোপাথাড়িভাবে চাপাতি ও লোহার রড দিয়ে আঘাত করে সন্ত্রাসীরা। দুজনকে রক্তাক্ত জখম করে অজ্ঞান অবস্থায় গ্যারেজের ভিতরে তালা মেরে রেখে দেয় সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীরা গালিবের চোখ উপরে ফেলার চেষ্টা করে। আঘা ঘন্টা লোকজন চিৎকারের শব্দ পেয়ে তাদের উদ্ধার করে প্রথমে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতারে নেয়া হয়। এ ঘটনায় মামলা হলেও পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Loading...
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ