৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭ , ৮:১৯ পূর্বাহ্ণ

অাপডেট

শত্রুকে বিশ্বাস করা যায় কিন্তু বেঈমান কে নয় : শামীম ওসমান


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:০৭ পিএম, ২৪ জুলাই ২০১৭ সোমবার | আপডেট: ০৯:১৭ পিএম, ২৬ জুলাই ২০১৭ বুধবার


শত্রুকে বিশ্বাস করা যায় কিন্তু বেঈমান কে নয় : শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের মধ্যে অনেক গ্রুপিং ছিল তাই বলে আওয়ামীলীগের রাজনীতি শেষ হয়ে যায়নি। আমি শামীম ওসমান ছাড়া কেউ নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগের গ্রুপিং মিটাতে পারেনি। তাই আমি মনে করি দলের মধ্যে গ্রুপিং আছে থাকবেই।

২৪ জুলাই সোমবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার ইসদাইরে বাংলা ভবন কমিউনিটি সেন্টারে ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট শোক সভা ও র‌্যালী উপলক্ষ্যে আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে শামীম ওসমান বলেন, অনেকে মনে করেছে আজকের এই সভায় আমি এখানে বিচার করবো অনেক ধরনের আলোচনা করবো। কিন্তু আমি ওইসব বিষয় নিয়ে ভাবছি না কখনো চিন্তাই করি নাই। তবে একটা কথা বলতে হয়, হাসানুল হক ইনু, রাসেদ খান মেনন অন্য দলের হয়ে আমাদের বিরোধীতা করেছিল। অথচ এখন তারা আমাদের মন্ত্রী। কিন্তু মোস্তাক আমাদের আওয়ামীলীগের তৈরি কিন্তু বেঈমান। শত্রুদের বিশ্বাস করা যায় কিন্তু বেঈমানদের বিশ্বাস করা যায় না।

তিনি আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমার নেত্রী শেখ হাসিনা আইভীকে দল থেকে মনোনয়ন দিয়েছিলেন। আমার নেত্রীর সমর্থীত প্রার্থী আইভীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের মধ্যে কিছু লোক এটা পছন্দ করেনি। কারণ তারা মনে করেন নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগের গ্রুপিং শেষ হয়ে যাচ্ছে। তারা সব সময় চায় আওয়ামীলীগের মধ্যে সব সময় গ্রুপিং থাকুক। কিন্তু আমি ঐ সব লোকদের কিছু তোয়াক্কা না করে আইভীর পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলাম। এখন আমাদের মনে করতে হবে সিটি করপোরেশন ব্যর্থ আমাদের ব্যর্থ আর সিটি করপোরেশন সফল আমাদের সফল বলে মনে করতে হবে। আগামী ১৫ আগস্ট শহরে র‌্যালী বের হবে। ওই র‌্যালীতে আইভী উপস্থিত থাকতে আমন্ত্রন করা হবে আমি আশা করি সে থাকবে।

শামীম ওসমান আরো বলেন, আমি এমপি ও মন্ত্রী হওয়ার জন্য রাজনীতি করি না। রাজনীতি করি শেখ হাসিনা যাতে আবার ক্ষমতায় আসতে পারেন। ডু অর ডাই, শেখ হাসিনা অবশ্যই আবার ক্ষমতায় আসবে। শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় আসতে হবে আওয়ামীলীগের জন্য নয়, এ দেশ ও দেশের মানুষকে বাচাঁতে হলে তাঁকে ক্ষমতায় আসতে হবে। নয়তো আবারো দেশে জঙ্গীবাদের উত্থান ঘটবে, দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাট হবে এবং দেশের অর্থনীতি ধ্বংস হয়ে যাবে। তাই এখন থেকে আমাদেরকে সক্রিয় হতে হবে। মানুষের কাছে যেতে হবে এবং মানুষকে বুঝাতে হবে। আর যদি এবার আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না আসে তাহলে দেশ চিরতরে ধ্বংসের দিকে চলে যাবে।

শামীম ওসমান আরো বলেন, ৭১ সালে যারা দেশের ৩০ লাখ লোককে হত্যা করেছে এবং আমাদের মা বোনের উজ্জত লুটে নিয়েছে সেইসব যুদ্ধাপরাধীদের দোসররা আপনার ও আমাদের সাথে মিশে রয়েছে। তারা যেকোন আমাদেরকে ক্ষতি করতে পারে। তারা আমাদের সাথে মিশে প্রতিটি এলাকার দলের শীর্ষ নেতাদের হত্যা করে শেখ হাসিনার হাতকে দূর্বল করে দিতে পারে। তাই আমাদেরকে সতর্ক থাকতে হবে এবং সক্রিয় হয়ে উঠতে হবে। যাতে করে তারা কোন ভাবে ক্ষমতায় আসতে না পারে।

এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, আওয়ামীলীগের কর্মীরা আমার সাথে কথা বলতে ইচ্ছে পোষন করলেও নেতাদের ভয়ে তারা আমার সাথে কথা বলতে সাহস করে না। সাধারন কর্মীদের সাথে আমি সরাসরি কথা বলতে চাই তার জন্য সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লায় আমি অফিস করবো। সপ্তাহে তিনদিন করে দুই অফিসে বসে কর্মীদের সাথে কথা বলতে চাই। বাঁচলে এক সাথে বাঁচবো মরলে এক সাথে মরবো।
বর্তমান রাজনীতির প্রেক্ষাপট নিয়ে শামীম ওসমান বলেন, যারা আওয়ামীলীগকে নিয়ে খেলতে চায় তারা আসেন আমি শামীম ওসমান খেলতে প্রস্তুত আছি। আমার দলের হউক অথবা অন্য দলের হউক আসেন আমি খেলবো। আমি রাজনীতি করবো, তাই মাঠে খেলার জন্য আমি সব সময় প্রস্তুত আছি। আমি শেখ হাসিনার ইশারায় কাজ করি কাউকে ভয় পেয়ে কথা বলি না।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দলের মধ্যে কোন কোন্দল নাই। তাই বলতে চাই ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে শোক র‌্যালী করে বিএনপি জামায়াতকে দেখাতে চাই আওয়ামীলীগ কতটাই সক্রিয়। শোক র‌্যালীতে আইভীসহ নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহন করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। যারা বঙ্গবন্ধুকে ভাল বাসেন তারা অবশ্যই শোক র‌্যালীতে অংশ গ্রহন করবে।

শামীম ওসমান আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন পত্রিকায় আমার ও আমার দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে নানা ধরনের উল্টা পাল্টা লেখালেখি করে থাকে। অনেক সময় আমার নেতাকর্মীদের মাদক ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী বলে নিউজ করা হয়। ওইসব সাংবাদিককে বলতে চাই আপনারা আমার বিরুদ্ধে লেখেন সমস্যা নাই। আমার বিরুদ্ধে প্রথম আলো ও ডেইলি স্টারে অনেক কিছুই উল্টা পাল্টা লিখেছেন। আমি সংসদ বসে তা প্রতিবাদ করেছি। তার পরও বলছি আপনার আমার যত খুশি লিখেন সমস্যা নাই। কিন্তু আমার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে লিখলে ছাড় দেয়া হবে না।

সভায় ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও আওয়ামীলীগ জাতীয় পরিষদের সদস্য চন্দন শীল, যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলী, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাজী ইয়াছিন, সদর থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুর রশীদ, সোনারগাঁ আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সামছুল ইসলাম ভূইয়া, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আবু জাফর চৌধুরী বীরু, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি নাজিমউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা মনির, মহানগর কৃষকলীগের সভাপতি আরমান হোসেন জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান লিটন, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান সুজন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এহসানুল হাসান নিপু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের মো. জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক দুলাল, মহিলা আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ইসরাত জাহান স্মৃতি, জেলা যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক সাদিয়া আফরিন বাবলী, মহানগরের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুইটি ইয়াসমিন ছাড়াও নাসিকের দলীয় কাউন্সিলররা।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ