৫ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, সোমবার ২০ নভেম্বর ২০১৭ , ৮:২১ পূর্বাহ্ণ

ডেভিডের গাড়িতে সেই নারীর কথা ১৩ বছর পর শামীম ওসমানের কণ্ঠে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১১:৫৫ পিএম, ২৪ জুলাই ২০১৭ সোমবার | আপডেট: ০৯:১৭ পিএম, ২৬ জুলাই ২০১৭ বুধবার


ডেভিডের গাড়িতে সেই নারীর কথা ১৩ বছর পর শামীম ওসমানের কণ্ঠে

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত বিএনপি নেতা ও সন্ত্রাসীদের একজন মমিনউল্লাহ ডেভিড। ২০০৪ সালের ২৪ নভেম্বর রাতে রাজধানীর খিলগাওয়ে তিনি র‌্যাবের সঙ্গে ক্রসফায়ারে মারা যান। ওই সময়েই বিষয়টা আলোচিত হয় যে গাড়িতে একজন নারী ছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত সেই নারী সম্পর্কে স্পষ্ট করে কেউ কিছু বলতে না পারলেও ওই নারীই যে নারায়ণগঞ্জে যুব মহিলা লীগের কমিটিতে সভাপতি করার চেষ্টা করা হয়েছিল জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী এমপি।

প্রসঙ্গত নুরুন্নাহার সন্ধ্যাকে মহানগর ও ইয়াসমিন চৌধুরী লিন্ডাকে মহানগরের আহবায়ক করে কেন্দ্র একটি কমিটি ঘোষণা দিলেও পরবর্তীতে আবারও সেস্থলে নতুন করে কেন্দ্র কমিটি ঘোষণা করেন যেখানে জেলায় সাদিয়া আফরিন বাবলী ও মহানগরে সুইটি ইয়াসমিনকে রাখা হয় আহবায়ক হিসেবে।

এ নিয়ে অনেক পাল্টাপাল্টি অভিযোগও এসেছে। এমপি শামীম ওসমান পন্থীরা প্রচার করতে থাকেন লিন্ডা ও সন্ধ্যার চরিত্র ভালো না। তাদের একজনকে ডেভিডের গাড়িতে দেখা গেছে। ‘রক্ষিতা’ হিসেবেও প্রচার করা হয়। যদিও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহমুদা আক্তার মালা বলেছেন, ‘কোন নারী কথা শুনলে ভালো না শুনলেই খারাপ।’

এদিকে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদে সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে মাহমুদা আক্তার মালার সঙ্গে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেছিলেন নুরুন্নাহার সন্ধ্যা। পরবর্তীতে তিন আর সেটা জমা করেনি। অপরদিকে লিন্ডাও দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতিতে সক্রিয়। ২০০৪ সালে ডেভিড মারা যাওয়ার ১৩ বছরেও সন্ধ্যা ও লিন্ডাকে রাজনীতিতে সক্রিয় দেখা যায়। কিন্তু এ ১৩ বছর এ নিয়ে কেউ কোন কথা বলেনি।

এ অবস্থায় ওই যুব মহিলা লীগের কমিটি নিয়ে কথা বললেন এমপি শামীম ওসমান। সোমবার (২৪ জুলাই) বিকেলে শহরের ইসদাইরস্থ বাংলা ভবন কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত ২১আগষ্টের গ্রেনেড হামলা ও ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে শামীম ওসমান বলেন, বিএনপির সন্ত্রাসী ক্রয়সফায়ারে নিহত ডেভিডের গাড়িতে যাকে সব সময় দেখা যেতো সেই নারীকে নাকি নারায়ণগঞ্জের যুব মহিলা লীগের সভাপতি করার চেষ্টা করছে। তার জন্য আবার আমাদের দলের নেতারা সুপারিশ ও তদবির করেন। আমি বুঝি না যাকে নিয়ে এতো প্রশ্ন তাকে কেন যুব মহিলা লীগের সভাপতি করার চেষ্টা করা হয়। যিনি একজন সন্ত্রাসীর গাড়িতে ছিল তাকে নিয়ে যদি জনগণের কাছে আমাদের ভোট চাইতে হয় তাহলে আমাদের সম্মান কোথায় থাকবে।

তিনি আরো বলেন, সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন, তাই এখন থেকেই দলের নেতাকর্মীদের সক্রিয় করতে হবে। প্রতিটি ওয়ার্ডে আলাদা ভাবে কমিটি গঠন করতে হবে। কমিটিতে ভাল মানুষকে দেখে নিতে হবে। আমরা এমন লোককে সম্মান করতে চাই যারা দলের জন্য কাজ করবে।

জানা গেছে, ২৮ মে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী যুব মহিলা লীগের কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে ইয়াসমিন চৌধুরী লিন্ডাকে আহ্বায়ক এবং সৈয়দা ফেরদৌসি আলম নীলা, সাবিরা সুলতানা নীলা, নিলুফার ইয়াসমিন, ফারিয়া আক্তার হেলেনা ও হাসিনা বেগমকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়। সেই সঙ্গে ৩০ মে নুরুন্নাহার সন্ধাকে আহ্বায়ক করে এবং সালমা আক্তার শারমীন আক্তার ডলি, মায়ানূূর মায়া, চায়না আক্তার ও রুম্পা আক্তারকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে ৪৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেন নাজমা আক্তার ও অপু উকিল। এ দুটি কমিটিতে জেলা ও মহনগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সেক্রেটারীর সুপারিশ ছিল।

কিন্তু ৩০ জুন আরেকটি করে জেলা ও মহানগর আওয়ামী যুব মহিলা লীগের কমিটি ঘোষণা করে দেন নাজমা আক্তার ও অপু উকিল। এতে আহ্বায়ক করা হয়েছে জেলা পরিষদের সদস্য সাদিয়া আফরিন বাবলি ও যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে শারমিন আক্তার মেঘলা ও আসমা আক্তারকে। মহানগর কমিটিতে আহ্বায়ক করা হয়েছে অ্যাডভোকেট সুইটি ইয়াসমিন ও যুগ্ম আহ্বায়ক মুনিরা সুলতানাকে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ