৫ কার্তিক ১৪২৪, শুক্রবার ২০ অক্টোবর ২০১৭ , ৯:৪৭ অপরাহ্ণ

গাজী চায় কাজীকে, জনগণ দিপুকে


রূপগঞ্জ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৭:৩৬ পিএম, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ বুধবার


গাজী চায় কাজীকে, জনগণ দিপুকে

নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে চলছে মনোনয়ন যুদ্ধ। এ যুদ্ধেও দলের মধ্যে পরাজয়ের ইঙ্গিত মেলে। কার সাথে কে নির্বাচন করলে সহজে বিজয়ী হবেন তা নিয়েও নিজেদের মধ্যে বলাবলি হচ্ছে।

রূপগঞ্জে এবার আওয়ামী লীগের প্রার্থী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক) তার প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী হিসেবে বিএনপি থেকে কাজী মনিরুজ্জামানকে চাচ্ছেন। বিগত নির্বাচনে কাজী মনিরকে প্রায় ৭০ হাজার ভোটে পরাজিত করে বিজয়ী হন গোলাম দস্তগীর গাজী। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তার ব্যতিক্রম কিছু ঘটবে না বলে উভয়দলের সিনিয়র নেতারা মনে করছেন।

তবে রূপগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের তৃণমূলের নেতাদের সঙ্গে সাধারণ জনগণও এবার মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপুকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান। তৃণমূলের দাবি রূপগঞ্জ বিএনপির হারানো আসন ফিরে পেতে ক্লিনম্যান খ্যাত উপজেলার সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি হিসেবে মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপুর বিকল্প নেই। যদিও এখানে ১/১১ জারির কারণে বাতিল হওয়া নির্বাচনে এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার বিএনপির মনোনয়ন পান। কিন্তু তখনকার প্রেক্ষাপটের কারণে তৈমূর আলম খন্দকার গ্রেফতার হয়ে জেলহাজতে ছিলেন। ওই নির্বাচনে তৈমূরের জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতার কারণে বিজয়ও নিশ্চিত ছিল। কিন্তু ফখরুল-মইনুল সময়ে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয় কাজী মনিরুজ্জামানকে। ফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী গোলাম দস্তগীর গাজীর বিজয় নিশ্চিত হয়।

এক সময় কাজী মনির বিএনপি ছেড়ে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেন। সেখানেও দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে তিনি কবুতর প্রতিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে জামানত হারান। তখন থেকেই রূপগঞ্জের মানুষ কাজী মনিরকে অন্য চোখে দেখছেন। এ জন্য আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা কাজী মনিরুজ্জামানকে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে চান।

কাঞ্চন পৌর এলাকার বিএনপির প্রবীন কর্মী আক্কেল আলী জানান, কাজী মনিরকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হলে আবারো ভুল করবে। তাকে দিয়ে কখনোই বিএনপির হারানো আসন ফিরে পাওয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া দলের সাথে বেঈমানী করার কথা কখনোই রূপগঞ্জবাসী ভুলেনি। কাজী মনিরের চেয়ে শতগুনে ভালো প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁইয়া দিপু ও এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার।

গোলাকান্দাইল গ্রামের বিএনপি নেতা আমজাদ হোসেন জানান, শ্রমজীবি মানুষের সাথে হাত মেলাতেও কাজী মনিরের অসুবিধা হয়। এমন নেতাকে দিয়ে বড় কিছু আসা করা যায় না। দিপু ভুঁইয়ার বাংলোবাড়িতে রূপগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন আয়োজিত ঈদ পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানের মেজবানীতে ২০ হাজার লোকের উপস্থিতিই বলে দেয় এখানে কার জনপ্রিয়তা বেশি। দিপু ভুঁইয়ার পক্ষে তৃণমূল বিএনপিই নয়, সাধারণ জনগণও রয়েছে।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, বিএনপি বিগত নির্বাচনে প্রার্থী দিতে ভুল করেছে। এবারও করবে। তবে কাজী মনিরুজ্জামানকে বিএনপির প্রার্থী করা হলে আমাদের বিজয় নিশ্চিত ধরে নিতে পারি। বিএনপির লোকজন নৌকা প্রতিকে ভোট দেয় না। তবে কাজী মনিরের প্রতি ক্ষোভে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ভোট দিতে অনেকেই কেন্দ্রে যায় না।

কাজী মনিরুজ্জামান বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রেক্ষাপট ভিন্ন। তাই বিএনপির মনোনীত প্রার্থীকে ঐক্যবদ্ধভাবেই সাধারণ জনতা বিজয়ী করবে।

মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু বলেন, বিএনপির দুর্দিনেও রূপগঞ্জ বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধ করে রেখে আসছি। যেকোন বড় ধরণের কর্মসূচি ১ ঘন্টার আল্টিমেটামেও করতে পারি। তিনি মনোনয়নের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদি।

এ আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ব্যাপারে ৯জন প্রার্থী মনোনয়ন চাচ্ছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতিক), বাংলাদেশ সেক্টর কমান্ডার ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাবেক এমপি মেজর জেনারেল (অব.) কেএম সফিউল্লাহ (বীর উত্তম), নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রূপগঞ্জের সন্তান আব্দুল হাই ভূইয়া, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শাহজাহান ভূইয়া, আওয়ামী লীগ নেতা মেজর মশিউর বাবুল, কায়েতপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম। বিএনপিতে দলীয় মনোনয়ন পেতে মাঠে কাজ করছেন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি এডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, বর্তমান সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভুঁইয়া দিপু। তাদের মধ্য থেকেই আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়ন নিশ্চিত করা হবে বলে জানা গেছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ