৫ আশ্বিন ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ , ২:১৩ পূর্বাহ্ণ

আইনজীবীদের বিরোধে সাখাওয়াতের পক্ষে নেই তৈমূর কালাম বলয়


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৪৫ পিএম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ বুধবার


আইনজীবীদের বিরোধে সাখাওয়াতের পক্ষে নেই তৈমূর কালাম বলয়

নারায়ণগগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানকে বিএনপির একটি কর্মসূচির ইস্যূ নিয়ে সাখাওয়াতকে আসামী করে সদর মডেল থানা পুলিশ একটি বিস্ফোরক মামলা দায়ের করেছে। ফলে একজন আইনজীবী সাখাওয়াত হোসেন খান বিএনপি নেতা হওয়ায় ও বিএনপির কর্মসূচি হিসেবে আওয়ামীলীগের আইনজীবীরা প্রতিবাদ করবে না তা স্বাভাবিক। কিন্তু যখন বিএনপি নেতা হওয়ার পরেও বিএনপির আইনজীবীরাও জোরালো প্রতিবাদ করলো না তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠেছে।

এর কারণ হিসেবে জানা গেছে বিএনপির আইনজীবীদের মধ্যে ফোরামের কমিটি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। যে কারণে যারা ফোরামের নতুন কমিটিকে মানেন না তারা বাধ্য হয়েই সাখাওয়াত হোসেন খানের পক্ষে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে আসতে পারেননি।

জানা গেছে, সোমবার বিএনপির একটি কর্মসূচির আয়োজন করেছিলেন সাখাওয়াত হোসেন খান যিনি আইনজীবী সমিতির একাধিকবার নির্বাচিত সভাপতি ছিলেন। গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন। ওই কর্মসূচিতে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে যাওয়ার পথে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় ৯জন বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। পরে সাখাওয়াত হোসেন খানকে আসামী করে ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে সদর থানায় একটি বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করা হয়।

১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির সামনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ব্যানারে সাখাওয়াত হোসেন খানকে আসামী করে মামলা দেয়ার প্রতিবাদে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করে আইনজীবীরা। তবে এ প্রতিবাদ সভায় আশানুরুপ আইনজীবীদের উপস্থিতি ছিল না। অনেক বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা প্রতিবাদ সমাবেশের আশপাশে থাকলেও যোগদান করেননি। বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম অনুসারি আইনজীবীরা এ প্রতিবাদ সভায় আসেননি।

এর কারণ হিসেবে জানাগেছে, সদ্য গঠিত ২৮৭ জনের আইনজীবী ফোরামের কমিটি নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয় আইনজীবীদের মধ্যে। যেখানে তৈমূর আলমকে উপদেষ্টা করা হলেও ১৪০ জন আইনজীবী গণপদত্যাগ করেছিলেন। সংবাদ সম্মেলন এমনকি বিক্ষোভ মিছিল করেছিলেন এ ফোরামের কমিটির বিরুদ্ধে। আর সেই ফোরামের কমিটির ব্যানারে তৈমূর আলম খন্দকার পন্থীরা বাধ্য হয়েই আসতে পারেননি। এছাড়াও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন সাখাওয়াত হোসেন খান। যেখানে মনোনয়ন প্রত্যাশি হিসেবে রয়েছেন সাবেক অ্যাডভোকেট আবুল কালাম। এ কারনে আবুল কালাম পন্থীরাও এ প্রতিবাদ সভায় আসেননি। তবে তৈমূর পন্থীরা জানিয়েছেন, যদি ফোরামের ব্যানারে না করে আইনজীবী সমাজের ব্যানারে কর্মসূচি পালণ করা হতো তাহলে আমরা বলার আগেই সবার সামনে থাকতাম। কিন্তু আমরা এ ফোরামের কমিটি তো মানিনা। তাই এখানে দাড়াতে পারিনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

রাজনীতি -এর সর্বশেষ