৬ আষাঢ় ১৪২৫, মঙ্গলবার ১৯ জুন ২০১৮ , ৯:০৭ পূর্বাহ্ণ

শহরে আইন না মানার প্রবণতা বাড়ছে


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৫৬ পিএম, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৩:৫৬ পিএম, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার


শহরে আইন না মানার প্রবণতা বাড়ছে

নারায়ণগঞ্জ শহরসহ সর্বত্র যানবাহনের চালকদের আইন না মানার প্রবণতা বাড়ছে দিন দিন। কোথাও কোথাও এই প্রবণতা মারাত্মক আকার ধারণ করছে। আর এই প্রবণতায় এগিয়ে আছে শহরবাসী সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরাও। যারা এই বিষয়ে দেখভাল করার দায়িত্বে তারাও নির্বিকার ভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা ছাড়া কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি। এ পরিস্থিতির প্রমাণ মিলেছে হকারদের দৌরাত্ম্যে। অটোবাইক, ব্যাটারী চালিত রিক্সাসহ অবৈধ রিক্সা ও পার্কিং নিয়ে যত্রতত্র বাণিজ্য চলছে দেদারছে।

শহরের বিবি রোডসহ গুরুত্বপূর্ণ সড়কে হকারদের বসা নিয়ে গত কয়েক মাসধরে আলোচনা চলে আসছে। এই হকারদের বসা নিয়ে গত ১৬ জানুয়ারী রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মত ঘটনা ঘটেছে। যে ঘটনায় আহত হয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীসহ অনেকেই। অথচ এই হকাররাই সবচেয়ে বেশি নিয়ম ভঙ্গ করে চলছে। প্রশাসন এবং সিটি করপোরেশন কিছু নিয়ম বেঁধে সাময়িক সময়ের জন্য হকারদের বসতে দিলেও তারা প্রতিনিয়ত এই আইন ভঙ্গ করে চলছে। নিয়ম অনুযায়ী বিবি রোডের কোথাও হকার বসতে পারবে না। অন্যান্য সড়কে বসলেও ফুটপাতের এক পাশে বসতে পারবে। সন্ধ্যার পরে বসার কথা থাকলেও তারা সকাল থেকেই ফুটপাত দখল করে বসে যায়। কে শোনে কার কথা। বিবি রোডের উপরেই বসছে ভাসমান অস্থায়ী ফুটের দোকান। কোথাওবা ভবনের গ্রীলের ফাঁক গলে পসরা সাজিয়ে বসে আছে দোকানীরা। এই হকারদের কথা বাদ দিলেও ফুটপাত দখল করে আছে পার্শ্বের দোকান দাররা। তারা তাদের মালা মাল সাজাতে গিয়ে দোকানের বাইরে এসে ফুটপাত দখল করে ফেলে। কোথাওবা রেস্টুরেন্টের টেবিল বসিয়ে দখল করছে। আর এগুলো দেখেও না দেখার ভান করছে পুলিশ। আবার বিনা বাধার কারনে উৎকোচ কামিয়ে নেয়ার এমন অভিযোগ করছেন কেউ কেউ।

হকার উচ্ছেদের মূল কারন হিসেবে দেখানো হয়েছিল সড়কের যানজট। অথচ হকার উচ্ছেদ হলেও যানজটের  খরগ নিয়ে নতুন করে চেপে বসেছে পার্কিং। বিবি রোডের দু’পাশে এই পার্কিং এর জন্য উভয় মুখি যানজটে নাকাল এলাকাবাসী ও পথচারীরা। ঘন্টার পর ঘন্টা পার্কিং করে রাখছে আবার এলোপাথারী ভাবে গাড়ী পার্কিং করে যানজট অসহনিয় পর্যায়ে নিয়ে গেছে। এই পার্কিং এর বিরুদ্ধে মাঝে মাঝে অভিযানে নামলেও স্থায়ী ভাবে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যাচ্ছে না সিটি করপোরেশন বা পুলিশকে। এর পেছনেও দায়ী করা হচ্ছে অনৈতিক অর্থ লেনদেনকে। নিয়মিত টহলে থাকা বাহিনী হাতিয়ে নিচ্ছে অর্থ যার প্রেক্ষিতে যানজটের সমস্যা সেই তিমিরেই থেকে যায়। ভোগান্তিতে পরে নগরবাসী।

এই যানজটে নতুন করে ঘি ঢালছে শহরের বাইরে থেকে আসা রিক্সাভ্যান, ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা, অটোবাইকসহ চলাচলে অযোগ্য যানবাহন। যাদের শহরে ঢুকতে দেয়ার কথা না। সেই যানবাহন একদিকে যেমন শহরে চাপ সৃষ্টি করছে ঠিক তেমনি নিয়মের তোয়াক্কা না করায় যানজটসহ দুর্ঘটনার শিকাড় হচ্ছে পথচারীরা।

এসব নিয়ম ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে অনৈতিক অর্থ উপার্জন করছে দায়িত্বে থাকা আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। আর দেখভাল করা সিটি করপোরেশন এর কর্তা ব্যাক্তিরা নির্বিকার রয়েছে। আর এই ফাঁকে চরম বিশৃঙ্খলায় দিনযাপন করছে নগরবাসীসহ পথচারীরা। এ অবস্থায় কেউ হতাশ আবার কেউ প্রতিবাদি হয়ে উঠছে। কিছু বিপত্ত্বি দেখা দিচ্ছে কোন কোন সময়। তবে বড় কিছু না ঘটার আগেই ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছেন কেউ কেউ।

ডিসি অফিসের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক। তিনি বলেন, যেই-সেই। কোন পরিবর্তন হওয়ার লক্ষণ নেই। মাঝে ভোগান্তি আমাদের। অথচ একটু সচেতন হলে সবাই আমরা ভাল থাকতে পারি। এ জন্য সচেতনতার পাশাপাশি দরকার কঠোর নজরদারি।

ব্যাংকার রফিকুল ইসলাম বলেন, হকার উচ্ছেদ এর বিষয়টি নাটক মনে হয়। সন্ধ্যার পর সমানে হকার বসছে বিবি রোডে। নিয়ম মানার শপথ নিচ্ছে হকাররা আবার সেই হকাররাই নিয়ম ভঙ্গ করছে। এ যেন লুকোচুরির খেলা। এ খেলা বন্ধ না হলে ভোগান্তি শেষ হবে না।

শিক্ষার্থী ফাতেমা বেগম বলেন, শহরে ব্যাটারী চালিত রিক্সা ঢুকতে দেয় না, আবার টাকা দিলে দেদারছে ঢুকে পড়ছে। কিসের নিয়ম, কার নিয়ম সবই অনিয়মের বেড়াজালে একাকার হয়ে যাচ্ছে। দেখার যেন কেউ নাই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

আইন আদালত -এর সর্বশেষ