৪ আষাঢ় ১৪২৫, সোমবার ১৮ জুন ২০১৮ , ৩:২২ অপরাহ্ণ

পুলিশ নিয়োগে ৮০লাখ টাকা বাণিজ্য : পুলিশ কর্মকর্তা গ্রেফতার


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১২:৪৬ এএম, ২ মার্চ ২০১৮ শুক্রবার | আপডেট: ০১:২৫ পিএম, ২ মার্চ ২০১৮ শুক্রবার


পুলিশ নিয়োগে ৮০লাখ টাকা বাণিজ্য : পুলিশ কর্মকর্তা গ্রেফতার

নারায়ণগঞ্জে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগের জন্য কোচিং সেন্টার খুলে ২০ জন চাকরি প্রার্থীদের কাছ থেকে ৮০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে দায়েরকৃত মামলায় অভিযুক্ত সেই পুলিশ কর্মকর্তা এএসআই শাহাবুদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত শাহাবুদ্দিন পুলিশ হেফাজতে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুরস্থ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বর্তমানে ঢাকার পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশ প্রহরায় ভর্তি রাখা হয়েছে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারী গ্রেফতার হলেও শুরু থেকে পুলিশ পুরো বিষয়টি গোপন রাখলেও গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে বিষয়টি পুলিশের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিশ্চিত করেন।

জানা গেছে, বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের বাইতুল্লাহ মসজিদের পূর্বপাশে গালাক্সি স্কুলের ভেতরে প্রত্যাশা নামে পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ প্রদানের বিষয়ে একটি কোচিং সেন্টার খুলেন পুলিশের ঢাকার বিশেষ শাখার (এসবি) সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) শাহাবুদ্দিন। বাংলাদেশ পুলিশ কনস্টবল চাকরি দেয়া কথা বলে স্বদেশ, সিয়াম, মোস্তাকিম, রায়হান, তৌহিদ, মারুফা আক্তার মলি, রুবেলসহ ২০ জন সদস্যদের কাছ থেকে ৪ লাখ করে সর্বমোট ৮০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় বাদশা ও ঢাকা এসবির সহকারী উপ-পরিদর্শক সাহাবুদ্দিন। গত ২৪ ফেব্রুয়ারী সকাল থেকে বিকেল অবধি ফতুল্লার পুলিশ লাইনসের মাঠে প্রথম ধাপে শারীরিক ফিটনেসের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

২৪ ফেব্রুয়ারী শারিরীক পরীক্ষায় অর্থ প্রদানকারী যুবকদের অনেকেই বাদ পড়লে অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি ফাঁস হয়ে যায়। এ ঘটনার পরদিন ২৫ ফেব্রুয়ারী সকালে আটক করা ১৪ জনকে যারা পুলিশের ঊর্ধ্বতনদের জানায়, ‘এএসআই শাহাবুদ্দিন ও বাদশা তাদেরকে পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগের কথা বলে প্রথমে কোচিংয়ে ভর্তি করায়। এরপর পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগের শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে জনপ্রতি ৪ লাখ টাকা করে নেয়। তবে প্রথম ধাপে অর্থাৎ শারিরীক ফিটনেস পরীক্ষায় অনেকেই বাদ পড়ে যান। আর এতেই তাদের প্রতারণার বিষয়টি এলাকায় ফাঁস হয়ে পড়ে।’

২৫ ফেব্রুয়ারী রাতে বন্দর থানায় ঘুষ প্রদানকারি স্বদেশ ভূইয়া বাদী হয়ে দুইজনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলেন ঢাকা রেঞ্জের পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ও বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের নিশং এলাকার শাহাবুদ্দিন ও একই এলাকার মোশারফের পুত্র বাদশা।

এদিকে ওই মামলা দায়েরের পর গত ২৭ ফেব্রুয়ারী রাত সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা রেঞ্জের পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) শাহাবুদ্দিন ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশ্যে আসার পথে ফতুল্লার শিবুমার্কেট এলাকা থেকে গ্রেফতার করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ রাশেদ মোবারক। তিনি বৃহস্পতিবার রাতে জানান, ২৮ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অবগতি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে গ্রেফতারের পরপরই এএসআই শাহাবুদ্দিন বুকের বাম পাশে ব্যথা অনুভব করে ও বমি করলে প্রথমে তাকে শহরের পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসকের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রথমে নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুরের ৩০০ শয্যা হাসপাতাল এবং পরবর্তীতে ঢাকার পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে উক্ত আসামী ঢাকা পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুরুষ হাইকেয়ার ইউনিটের ৩য় তলার ১১নং বেডে পুলিশ পাহারায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

আইন আদালত -এর সর্বশেষ