৭ শ্রাবণ ১৪২৫, সোমবার ২৩ জুলাই ২০১৮ , ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ

নাসিরকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে ডিবি নিল ৫০ লাখ


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:২৭ পিএম, ২৫ মার্চ ২০১৮ রবিবার | আপডেট: ০২:২৭ পিএম, ২৫ মার্চ ২০১৮ রবিবার


নাসিরকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে ডিবি নিল ৫০ লাখ

নাসির উদ্দিন নামে একজন ব্যবসায়ীর অভিযোগ নারায়ণগঞ্জের ডিবি পুলিশ ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়ের পর মিথ্যা মামলায় তাঁকে ফাঁসিয়েছে। তিনি বর্তমানে স্ত্রী-সন্তান ও পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

নাসির উদ্দিন জানান, গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর তিনি ব্যক্তিগত কাজে ব্যাংকক যান। গত ৫ জানুয়ারি দেশে ফেরেন। বিমানবন্দরের সামনে রাস্তায় ডিবি পরিচয়ে কয়েকজন তাঁকে জোর করে গাড়িতে তুলে চোখ বাঁধে। একপর্যায়ে রাত ১টার দিকে তাঁর চোখের বাঁধন খুলে দিলে তিনি দেখেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানায় তাঁকে আটকে রাখা হয়েছে। টানা দুই দিন থানায় আটক রাখার পর ৭ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা শাহআলমের মালিকানাধীন জালাল আহমেদ স্পিনিং মিলস লিমিটেডের ছয় কোটি টাকা চুরির অভিযোগ এনে মামলা দিয়ে তাঁকে আদালতে পাঠায়। প্রথমে তিন দিনের রিমান্ডে এনে ব্যাপক নির্যাতন করে পুলিশ। এভাবে দফায় দফায় মোট ১৫ দিনের রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন চালানো হয়।

মামলাটি মিথ্যা দাবি করে নাসির বলেন, তিনি ওই কম্পানিতে চাকরি করতেন। সব নিয়ম মেনেই তিনি চাকরি থেকে ইস্তফা দেন। ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মাজহারুল ইসলাম তাঁর মোবাইল ফোন, চেক বই ও অন্যান্য কাগজপত্রসহ দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। নাসির বলেন, ‘আমার ভাগিনা ডিবি কার্যালয়ে খোঁজ নিতে গেলে তাকে আটকে রেখে ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক থেকে নগদ ছয় লাখ টাকা তুলে নেন মাজহার। এরপর ২৪ জানুয়ারি তাকে ডিবির হাজতখানা থেকে বের করে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক নারায়ণগঞ্জ শাখা থেকে আরো ১০ লাখ টাকা তুলে নেন ডিবির ওই কর্মকর্তা।’

নাসিরের দাবি, এখন পর্যন্ত ডিবি অফিসার মাজহার, মাহবুব ও মফিজ তাঁর বিভিন্ন অ্যাকাউন্ট থেকে ৫০ লাখ টাকা তুলে নিয়েছেন। এ ছাড়া একটি হলফনামায় তাঁকে সই করতে বাধ্য করা হয়েছে যাতে উলে¬খ রয়েছে, দুই দিনের মধ্যে ২০ লাখ, ১৫ দিনের মধ্যে ২৫ লাখ ও পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ৫০ লাখ টাকা দিতে বাধ্য থাকবে। তিনি জানান, এ ছাড়া আটটি ব্যাংক চেকে তাঁর স্বাক্ষর নেওয়া হয়।

নাসির জানান, ডিবি অফিসার মাজহার, মাহবুব ও মফিজ পর্যায়ক্রমে তার কাছ থেকে বিভিন্ন অ্যাকাউন্ট থেকে ৫০ লাখ টাকা তুলে নেন। এ ছাড়া একটি হলফনামায় স্বাক্ষর রাখা হয় যাতে উল্লেখ রয়েছে দুই দিনের মধ্যে ২০ লাখ, ১৫ দিনের মধ্যে ২৫ লাখ ও পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ৫০ লাখ টাকা দিতে বাধ্য থাকবে। এ ছাড়া ৮টি ব্ল্যাংক চেকে তার স্বাক্ষর নেয়া হয়। এ অবস্থায় সংশ্লিষ্ট ডিবি কর্মকর্তাদের কর্মকান্ড খতিয়ে দেখে তাদের শাস্তি দাবি জানান নাসির।

নাসির বলেন, জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর থেকে ডিবি পুলিশের ওই সদস্যরা তাঁকে অব্যাহত হুমকি দিচ্ছে। বলছে, এ ব্যাপারে কোথাও মুখ খুললে পরিণতি আরো খারাপ হবে। তিনি ডিবির ওই কর্মকর্তাদের হাত থেকে রেহাই পেতে এবং তাঁদের কর্মকান্ড তদন্ত করে শাস্তির ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে যোগাযোগ করা হলে নারায়ণগঞ্জের ডিবির পরিদর্শক মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘অভিযোগ ভিত্তিহীন।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মইনুল হক সংবাদ মাধ্যমকে জানান, নাসির উদ্দিনের নামে ব্যক্তির বিরুদ্ধে কোম্পানির মালিক অর্থ আত্মসাতের মামলা করেছেন। সেই মামলায় তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়েছে। এটি একটি আইনি প্রক্রিয়া। এর বাইরে তার ওপর কোনো অন্যায় আচরণ হয়ে থাকলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

আইন আদালত -এর সর্বশেষ