বন্দুকযুদ্ধে সেই এএসআই রুবেলের মাদক ব্যবসায়ী শ্বশুর নিহত

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৬:২৮ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০১৮ বুধবার



বন্দুকযুদ্ধে সেই এএসআই রুবেলের মাদক ব্যবসায়ী শ্বশুর নিহত

মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ি উপজেলার বেতকা ড়ুামে র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। নিহত মাদক ব্যবসায়ী নাম আবুল হোসেন (৫০) ওরফে  আবু। নিহত মাদক ব্যবসায়ী আবুল হোসেন হচ্ছে গ্রেফতারকৃত নারায়গঞ্জ এএসআই রুবেলের শ্বশুর। নিহত আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে টঙ্গীবাড়ী থানায় মাদক সংক্রান্ত একাধিক মামলা ছিলো। বুধবার (২১ নভেম্বর) ভোর ৪টার দিকে উপজেলার সোনারং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে গত ৮ মার্চ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় কর্মরত এএসআই সোহরাওয়ার্দী রুবেলের কাছ থেকে থানার ভেতর থেকেই ৫ হাজার পিছ ইয়াবা ও ওই এএসআইয়ের বন্দরের ফ্ল্যাট বাসা থেকে আরো ৪৪ হাজার পিছ ইয়াবা উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। এসময় মুন্সিগঞ্জের মাদক স¤্রাট আরিফের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন রুনুকেও গ্রেফতার করে পুলিশ।

র‌্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জের উপ-পরিচালক মেজর আশিক বিল্লাহ জানান, বুধবার রাত ৪টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল টঙ্গীবাড়ির সোনারং এলাকায় অভিযান চালায়। সোনারং প্রধান সড়কের পাশে আবুল হোসেন ও তার বাহিনীর ৪-৫ জন সদস্য নিয়ে মিটিং করছিল। তারা র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি চালালে র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। পরে তারা পালিয়ে গেলে আবুল হোসেনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে টঙ্গীবাড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের মরদেহ টঙ্গীবাড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, ১টি ম্যাগজিন, ৫০০ পিস ইয়াবা, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। নিহত আবুল হোসেন একজন চিহ্নত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে বিভিন্ন থানায় মোট ১৮টি মামলা আছে।

উল্লেখ্য মুন্সিগঞ্জ জেলার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী আবুল হোসেনের মেয়েই এএসআই সোহরাওয়ার্দী রুবেলের দ্বিতীয় স্ত্রী ছিল। মুন্সিগঞ্জে চাকুরী করার সুবাদে এএসআই রুবেলের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে উঠে মাদক স¤্রাট আবুল হোসেনের। পরে আবুল হোসেনের মেয়েকে বিয়ে করে এএসআই রুবেল। এরপর এএসআই রুবেল নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় বদলী হলে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বন্দরের রূপালী আবাসিক এলাকাতে সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রবাসী কামরুল ইসলামের বাড়ির দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাটে থাকতো এএসআই রুবেল। গত ৮ মার্চ নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় কর্মরত এএসআই সোহরাওয়ার্দী রুবেলের কাছ থেকে থানার ভেতর থেকেই ৫ হাজার পিছ ইয়াবা ও ওই এএসআইয়ের বন্দরের ফ্ল্যাট বাসা থেকে আরো ৪৪ হাজার পিছ ইয়াবা উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। এসময় মুন্সিগঞ্জের মাদক সম্রাট আরিফের স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন রুনুকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত সাবিনা ইয়াসমিন রুনু মুন্সিগঞ্জ জেলার পঞ্চসার ইউনিয়ন মুক্তারপুর এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ী আরিফের স্ত্রী। আরিফের বিরুদ্ধে ১০-১২টি মাদকের মামলা রয়েছে। ওই ঘটনার পরে মাদক সম্রাট আরিফও পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। সিআইডির কাছে স্বীকারোক্তিতে এএসআই রুবেল ইয়াবা পাচার সিন্ডিকেটে জড়িত একাধিক রাঘব বোয়ালের নাম প্রকাশ করেছে বলে জানা গেছে।


বিভাগ : আইন আদালত


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও