সেই দুর্ধর্ষ পলাশ গুরুতর অসুস্থ!

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:১৩ পিএম, ২৯ অক্টোবর ২০১৯ মঙ্গলবার

সেই দুর্ধর্ষ পলাশ গুরুতর অসুস্থ!

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীন এলাকার বহুল আলোচিত দুর্ধর্ষ হিসেবে পরিচিত শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাউসার আহমেদ পলাশ গুরুতর অসুস্থ। যার জন্য তিনি আদালতে উপস্থিত না হতে পেরে সময় প্রার্থনা করেছেন তারই আইনজীবী।

মঙ্গলবার ২৯ অক্টোবর সকালে নারায়ণগঞ্জ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউছার আলম আদালতে পলাশের দায়ের করা ফৌজদারী বিবিধ মামলায় এ আবেদন করা হয়। এ মামলায় অভিযুক্ত দৈনিক ডান্ডিবার্তা প্রকাশক ও সম্পাদক হাবিবুর রহমান বাদল, দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক জাবেদ আহমেদ জুয়েলকে পূর্ণ জামিনের আদেশ দেন।

মামলা করলেও এর আগে মামলার তিনটি নির্ধারিত দিনেও আদালতে হাজির হয়নি পলাশ। অসুস্থতা সহ বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে বার বার তিনি সময় প্রার্থনা করে মামলার স্বাভাবিক কার্যক্রমে বিলম্ব করাছিলেন বলে অভিযুক্তদের পক্ষের আইনজীবীরা অভিযোগ করেন।

এসময় জাবেদ আহমেদ জুয়েলের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও শরীফুল ইসলাম শিপলু। হাবিবুর রহমান বাদলের পক্ষে ছিলেন সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী নুরুল আমিন মাসুম, আসিফুজ্জামান প্রমুখ।

পলাশের পক্ষে আইনজীবী আদালতে আবেদন করেন, আদালতে কাউসার আহমেদ পলাশের হাজির হওয়ার ধার্য তারিখ ছিল। কিন্তু অসুস্থ থাকার কারণে তিনি আদালতে উপস্থিত হতে পারেননি। তাই তিনি সময় আবেদন করেছেন।

এ বিষয়ে আদালত শুনানী পরে জানানো হবে বলে আদেশ দেন।

অ্যাডভোকেট শরীফুল ইসলাম শিপলু নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘গত বছর তথা ২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল মামলাটি দায়েরের পরে অনেক দিন অতিবাহিত হয়ে গেছে। কিন্তু বাদী বার বার মামলায় সময় ক্ষেপন করছেন। বার বার তিনি আদালতে সময় প্রার্থনা করেন। পুরো মামলার অভিযোগ ভিত্তিহীন। মামলাটি হারার ভয়েই বাদী আদালতে হাজির হচ্ছেন না প্রতীয়মান। কিন্তু গত ৯ মে আদালত পলাশকে চূড়ান্ত ও শেষ বারের মতো সময় দিলে তিনি ২৯ আগস্ট হাজির হন। কিন্তু মঙ্গলবার তিনি আবারও অনুপস্থিত। এজন্য সময় প্রার্থনা করেছেন। তবে আজ শুনানী শেষে আদালত আদেশ দেননি।’

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে আরেক ‘নূর হোসেন ফতুল্লার গডফাদার পলাশ ও তার চার খলিফা’ শিরোনামে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। এছাড়া একটি সংবাদের রেশ ধরে ডান্ডিবার্তা ও সময়ের নারায়ণগঞ্জের বিরুদ্ধে মামলা হয়। এর মধ্যে দৈনিক যুগান্তরের ফতুল্লা প্রতিনিধি আলামিন প্রধানের বিরুদ্ধে ১০ কোটি, ইত্তেফাকের নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা ও স্থানীয় দৈনিক ডান্ডিবার্তা পত্রিকার সম্পাদক হাবিবুর রহমান বাদলের বিরুদ্ধে ৫ কোটি এবং দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক জাবেদ আহমেদ জুয়েলের বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার মানহানি মামলা করেন। পরবর্তীতে পলাশের নির্দেশে তার অনুগামীরা শহরে মিছিল বের করে সাংবাদিকদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি দেন।

ওই সংবাদ প্রকাশের পর শুধু মামলা নয় তার বাহিনীর সদস্যরা ফতুল্লায় মিছিল করে সাংবাদিকদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি দেয়।


বিভাগ : আইন আদালত


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও