৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ

UMo

নিতাইগঞ্জে তিন সংগঠনের টোকেন বাণিজ্য


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:১৭ পিএম, ৭ জানুয়ারি ২০১৮ রবিবার


নিতাইগঞ্জে তিন সংগঠনের টোকেন বাণিজ্য

নারায়ণগঞ্জ শহরের নিতাইগঞ্জে ট্রাক প্রবেশ করার নামে রমরমা টোকেন বাণিজ্য চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনটি সংগঠনের নেতাদের টোকেন নিয়ে কারসাজির কারণেই নিতাইগঞ্জ সেই আগের রূপে ফিরেছে বলেও মন্তব্য করেছেন অনেকে। বিষয়টির সত্যতাও স্বীকার করেছেন ব্যবসায়ী মহলের অনেকে। তবে ওই তিনটি সংগঠনের নেতাদের দাবি টোকেন বাণিজ্যের অভিযোগ আদৌ সত্য নয়। ৫ মাস পূর্বে নিতাইগঞ্জে ট্রাক প্রবেশ নিয়ে যে সিদ্ধান্ত ছিল সেটিই বহাল রয়েছে। মাঝেমধ্যে ব্যবসায়ীরা নিয়ম মানছেননা বিধায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হচ্ছে। যদিও শনিবার সরেজমিনে নিতাইগঞ্জ এলাকা পরিদর্শন করে উল্টো চিত্র দেখা গেছে।

জানা গেছে, গেল বছরের ২৩ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো উপস্থিত হয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ (শহর ও বন্দর) আসনের এমপি ও বিকেএমইএ’র সভাপতি সেলিম ওসমান। বাজেট অনুষ্ঠানের বক্তৃতায় এমপি সেলিম ওসমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে শহরের নিতাইগঞ্জে ট্রাক স্ট্যান্ড উঠানো ও ফুটপাত হকারমুক্ত রাখার দাবী করেন সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তিনি বলেন, এমপি সেলিম ওসমান চাইলেই নিতাইগঞ্জ এলাকাটি স্ট্যান্ডমুক্ত রাখতে পারে। কারণ এসব ট্রাকের কারণে প্রচন্ড যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। তাছাড়া সিটি করপোরেশনের নগর ভবনও অবরুদ্ধ হয়ে যায় যানজটের কারণে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সেলিম ওসমান ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে দিনের বেলায় ট্রাক না রাখার নির্দেশনা দেন। দিনের বেলায় ট্রাক রাখতে না পারলে প্রয়োজনে ব্যবসায়ীদের ব্যবসা ছেড়ে দেয়ারও কথা বলেন সেলিম ওসমান।

পরে গত ৩১ জুলাই নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এমপি সেলিম ওসমানের উপস্থিতিতে নিতাইগঞ্জের ট্রাকস্ট্যান্ড নিয়ে ব্যবসায়ী ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যাতে সিদ্ধান্ত হয় ১ আগষ্ট থেকে নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জে পাইকারী মোকামে লোক আনলোড রাতের বেলায় চলবে। দিনের বেলায় কোন ট্রাক থাকতে পারবেনা এমনকি তাদেরকে শহরের বঙ্গবন্ধু ও সিরাজদ্দৌলা সড়ক দিয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবেনা। রাত ৯টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত নিতাইগঞ্জের বোটখালের উপরে লোড আনলোড করবে ব্যবসায়ীরা। একটি ট্রাক লোড আনলোডে সর্বোচ্চ সময় পাবে সর্বোচ্চ ৩ ঘন্টা। এছাড়া বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের কতগুলো ট্রাক প্রবেশ করতে পারবে সেটাও নির্ধারণ করা দেয়া হয়। যদি কেউ নির্দেশনা অমান্য করে দিনের বেলায় ট্রাক নিয়ে অবস্থান করে তাহলে তাকে জরিমানা ছাড়াও ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জেল দেয়া হবে। ২ মাস পুলিশের পাশাপাশি ৪০ জন আনসার সদস্য কাজ করার জন্য আনসার কমান্ডারের হাতে ১৫ লক্ষাধিক টাকার চেক তুলে দেন এমপি সেলিম ওসমান।

ওই সভায় সেলিম ওসমান ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেছিলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মানুষের শান্তির জন্য নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়রকে সহযোগিতা করতে হবে। তবে এখানেই শেষ নয় আমরা এরপর বাসস্ট্যান্ড, ফুটপাতসহ নাগরিক সমস্যা নিয়ে কাজ করবো। আপনারা কোন ধুম্রজালের সৃষ্টি করবেন না। দেশের অনেক স্থানেই রাতের বেলায় লোড আনলোড হচ্ছে। চেঞ্জ অর ডাই অর্থাৎ পরিবর্তন করো নয়তো মর। কারো ব্যাক্তিগত স্বার্থের জন্য আমরা রাস্তা ব্যবহারের অনুমতি দিব না। রাতের বেলায় লোড আনলোডের জন্য ট্রাক ভাড়া বাড়ানো যাবেনা। দরকার হলে সংসদ সদস্যের পদ ছেড়ে দিবে। কোন ধরনের সুপারিশ মানবো না।’

এদিকে ওই সভার পরে যতদিন আনসার ছিল অর্থাৎ দুই মাস নিয়মানুযায়ী লোড আনলোড চললেও এরপর থেকেই দেখা দিতে থাকে বিশৃঙ্খলা। গত ৯ অক্টোবর বিকেল ৩টার দিকে নিতাইগঞ্জ মূল সড়কে লোড আনলোড চলাকালীন সময়ে বাধা দেন ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী শ্রমিক কমিটির সেক্রেটারী মাসুদুর রহমান মানিক। তিনি ওইসময় ট্রাক চালকদের উদ্দেশ্যে বলেন, দিনের বেলায় নিতাইগঞ্জে লোড আনলোড না করার বিষয়ে এমপি সেলিম ওসমান ও প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই দিনের বেলায় কোন ধরনের লোড আনলোড করা যাবেনা। এসময় ট্রাক চালকদের মধ্যে শহীদুল নামের এক চালকের সঙ্গে শ্রমিক নেতা মানিকের মধ্যে বাকবিতন্ডার জের ধরে দুইপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। তখন শ্রমিক নেতা মানিক ও যানজট নিরসনের দায়িত্বে থাকা কর্মীরা চালক শহীদুলকে লাঞ্ছিত করলে লোড আনলোডে থাকা অন্যান্য শ্রমিকরা প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখায়। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ বিষয়ে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী শ্রমিক কমিটির সেক্রেটারী মাসুদুর রহমান মানিক জানিয়েছিলেন, নিতাইগঞ্জে দিনের বেলায় লোড আনলোড না করার বিষয়ে এমপি সেলিম ওসমান ও প্রশাসনের নির্দেশনা রয়েছে। তৃতীয় একটি পক্ষ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। কিন্তু সেটা কখনোই মেনে নেয়া হবেনা।

এদিকে ওই ঘটনার পরে বেশ কিছুদিন আবারো নিয়মানুযায়ী লোড আনলোড চললেও গত কিছুদিন ধরে নিতাইগঞ্জের মূল সড়কেও লোড আনলোডের কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে। শনিবার দুপুরেও সরেজমিনে দেখা যায়, ‘নিতাইগঞ্জ এলাকার মূল সড়কের দুপাশে দেদারসে লোড-আনলোড চলছিল। এসময় মূল সড়কে প্রায় ১০-১২টি কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক থামিয়ে এসব লোড আনলোডের কাজ চলছিল। মূলত খাল ঘাট এলাকাতে লোড আনলোডের অনুমতি থাকলেও সমস্ত নিতাইগঞ্জ এলাকা জুড়ে এই লোড আনলোড চলছিল।  এছাড়া নিতাইগঞ্জের মূল সড়কের দুই পাশেই অসংখ্য খালি ট্রাক ও পিকআপ থামিয়ে রাখা হয়েছিল। এমনকি সিটি করপোরেশনের ফোয়ারার সামনেও একটি খালি ট্রাক পার্কিং করে রাখতে দেখা গেছে। নিতাইগঞ্জের মূল সড়ক ছাড়াও মন্ডলপাড়া থেকে নিমতলী সড়ক পর্যন্ত অসংখ্য খালি ট্রাক, কাভার্ডভ্যান ও পিকআপ পার্কিং করে রাখতে দেখা গেছে। নিতাইগঞ্জের মূল সড়কের দুই পাশে প্রকাশ্য দিনের বেলায় লোড আনলোড করার কারণে মাঝেমধ্যেই সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। তবে শনিবার বন্ধের দিন হওয়ায় গাড়ির চাপ কম থাকায় যানজট দীর্ঘ সময় ধরে স্থায়ী হয়নি।

এলাকাবাসী জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই নিতাইগঞ্জ সেই ৫ মাস পূর্বের চিরচেনা রূপে ফিরে এসেছে। যার ফলে দিনের বেলাতে প্রায়শই নিতাইগঞ্জের মূল সড়কে সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। আগে মূল সড়কটি ফাঁকা থাকলেও এখন সড়কেই মালামাল লোড  আনলোডের কাজ প্রকাশ্যে চলছে। আর ধীরে ধীরে এই লোড আনলোড কাজ বেড়েই চলেছে। আগে যানজট নিরসন কর্মীদের দেখা মিললেও এখন তারাও লাপাত্তা।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যবসায়ীরা জানান, নিতাইগঞ্জ এলাকায় দিনের বেলায় ট্রাক প্রবেশের বিষয়ে শুরুতে কড়াকড়ি থাকলেও বেশ কিছুদিন ধরেই সেই ব্যবস্থায় শিথিলতা এসেছে। শহরে ট্রাক প্রবেশের ক্ষেত্রে সাধারণত টোকেন সিস্টেম চালু করা হয়েছিল। পঞ্চবটি ট্রাক টার্মিনাল থেকে টোকেন নিয়ে শহরে প্রবেশ করে খানপুর মেট্রোসিনেমা হল মোড় হয়ে নিতাইগঞ্জ, টানবাজার ও সারঘাট এলাকায় লোড ও আনলোডের জন্য পণ্যবাহী ট্রাক ও খালি ট্রাক যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরেই খানপুর মেট্রো সিনেমা হল মোড়ে পুলিশের টোকেন চেকিং করার কার্যক্রম দেখা যায়নি। এছাড়া নিতাইগঞ্জ পাইকারী ব্যবসাকেন্দ্র এলাকায় ট্রাক, পিকআপ প্রবেশের ক্ষেত্রে যে টোকেন প্রথা চালু হয়েছে সেটা নিয়েও একটি মহল বাণিজ্য করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। পঞ্চবটি ট্রাক টার্মিনাল থেকে নিতাইগঞ্জ পাইকারী ব্যবসাকেন্দ্রের জন্য ৫০টি টোকেন বরাদ্দ হয়। আর টোকেন বরাদ্দের বিষয়টি নিয়ন্ত্রন করে নারায়ণগঞ্জে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী মালিক কমিটি, শ্রমিক কমিটি এবং নিতাইগঞ্জ লোড আনলোড শ্রমিক ইউনিয়ন নামের তিনটি সংগঠন। এছাড়া চলে স্বজনপ্রীতিও। ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ওই তিনটি সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের যাদের সুসম্পর্ক রয়েছে তারা টোকেন পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পেয়ে থাকেন। এছাড়াও ৯টি সংগঠনের ব্যবসায়ী নেতারাও এক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পেয়ে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে নিতাইগঞ্জ লোড আনলোড শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ও নাসিক ১৮নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ কামরুল হাসান মুন্নার মুঠোফোনে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে।

নারায়ণগঞ্জ আটা ময়দা মিল মালিক সমিতির সভাপতি ও নিতাইগঞ্জের সম্মিলিত ব্যবসায়ী সমিতির আহবায়ক জসিমউদ্দিন ওরফে গম জসিম মুঠোফোনে জানান, নিতাইগঞ্জে দিনের বেলায় লোড আনলোডের বিষয়ে আগে যে সিদ্ধান্ত হয়েছিল সেটিই বহাল রয়েছে। মূল সড়কে লোড আনলোডের বিষয়টি আমার জানা নেই। গত দুইদিন ধরেই মাইকিং হচ্ছে যাতে সড়কে কেউ লোড আনলোড কিংবা খালি ট্রাক পার্কিং করে রাখতে না পারে। নিতাইগঞ্জে টোকেনের বিষয়টি দেখার দায়িত্বে রয়েছেন নিতাইগঞ্জ লোড আনলোড শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ও নাসিক ১৮নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ কামরুল হাসান মুন্না, নারায়ণগঞ্জে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী শ্রমিক কমিটির সেক্রেটারী মাসুদুর রহমান মানিক ও নারায়ণগঞ্জে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী মালিক সমিতির নেতা রয়েছেন। এই টোকেনের বাণিজ্যের বিষয়টি আমাদের অগোচরে হচ্ছে বলে শুনেছি। তিনি আরো বলেন, কি আর কমু ভাই ওরা যা করতাছে। নিতাইগঞ্জে অনেক প্রাচীন ব্যবসা। কিন্তু এই ব্যবসা একসময় কমলাঘাটের মতো হয়ে যাবে বলে মনে হচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ ওয়েল এন্ড সুগার মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি শংকর সাহা জানান, টোকেন নিয়ে বাণিজ্যের খবরটি আমাদের কাছেও এসেছে। তবে কেউতো আর স্বীকার করছেনা। এই টোকেন দেয়ার বিষয়টি ট্রাক মালিক ও শ্রমিক নেতারা নিয়ন্ত্রন করছে। কিন্তু আমাদের দাবি ছিল পুলিশ প্রশাসনের একজন প্রতিনিধিকে সঙ্গে রাখার জন্য। তাহলে হয়তো এ ধরনের অভিযোগ উঠতো না।

নারায়ণগঞ্জে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী মালিক কমিটির নেতা ও নাসিকের ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান জানান, টোকেন নিয়ে বাণিজ্যের অভিযোগ সত্য না। নিতাইগঞ্জে মূল সড়কে লোড আনলোড ও খালি ট্রাক পার্কিং করে রাখার বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে কেউ যাতে মূল সড়কে লোড আনলোড ও খালি ট্রাক পার্কিং করে রাখতে না পারে সেজন্য গত কয়েকদিন ধরেই মাইকিং করে রাখা হচ্ছে। তারপরেও আমরা এ বিষয়টি দেখবো।

নারায়ণগঞ্জে ট্রাক কাভার্ডভ্যান ও ট্যাংকলরী শ্রমিক কমিটির সেক্রেটারী মাসুদুর রহমান মানিক জানান, আগের সিদ্ধান্তই বহাল রয়েছে। নিতাইগঞ্জে যেসকল ট্রাক প্রবেশ করছে তারা পঞ্চবটি থেকে টোকেন নিয়ে প্রবেশ করছে। টোকেন নিয়ে কোন বাণিজ্য হচ্ছেনা। তবে নিতাইগঞ্জের মূল সড়কে নয় তাদের খালঘাটে লোড আনলোড করার কথা। আমরা শনিবারও সারাদিন মাইকিং করেছি। তবে কিছু কিছু গাড়ি নির্দেশনা না মেনে অনিয়মের মাধ্যমে মূল সড়কে লোড আনলোড করছে। আমরা এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছি।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এএফএম এহতেশামুল হক জানান, এটা নিয়ে কি আর বলবো যারা দায়িত্বে ছিল তাদের আন্তরিকতা হয়তো কমে গেছে। তারপরেও আমরা দায়িত্বশীলদের সঙ্গে যোগাযোগ করে কর্মকান্ডকে গতিশীল করার চেষ্টা করবো।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ