৭ শ্রাবণ ১৪২৫, সোমবার ২৩ জুলাই ২০১৮ , ৩:৫৭ পূর্বাহ্ণ

আড়াইহাজারে সাব রেজিস্ট্রার সংকটে কার্যক্রমে স্থবিরতা


আড়াইহাজার করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১০:০৭ পিএম, ২১ মার্চ ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০৪:০৭ পিএম, ২১ মার্চ ২০১৮ বুধবার


আড়াইহাজারে সাব রেজিস্ট্রার সংকটে কার্যক্রমে স্থবিরতা

আড়াইহাজার উপজেলায় সাব-রেজিস্ট্রার সংকটে জমি কেনা-বেচায় চরম দুর্ভোগান্তিতে পড়েছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা। সময় মত দলিল রেজিস্ট্রি করতে না পারায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ভুক্তভোগীরা। পাশাপাশি সরকারও মোটা অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

জানা গেছে, ভয়ভীতির কারণে সাব-রেজিস্ট্রার এখানে আসছে না। ক্ষমতাসীন দলের পরিচয়ধারী কিছু দলিল লিখকের হুমকি ধামকির কারণে ইতোপূর্বে সাব রেজিস্ট্রার সৈয়দ নজরুল, গোলাম মাহবুব, রায়হান মন্ডল, কাউসার শেখ এখান থেকে চলে যান। সর্বশেষ মিজানুর রহমান নামে এক সাব-রেজিস্ট্রার এখানে যোগদানের মাত্র দুই সপ্তাহের ব্যবধানে এখান থেকে চলে যান। গত কয়েক মাস আগে সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসের সমস্যাগুলি তুলে ধরে আইন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী আনিসুল হকের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তাতেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এতে করে এ অফিসে দিন দিন ভোগান্তি বেড়েই চলছে।

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসের এক কর্মচারি অভিযোগ করেন, স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের পরিচয়ধারী কিছু দলিল লিখক প্রতিনিয়তই সাব-রেজিষ্ট্রারকে চাপে রেখে অবৈধ কাজ করানোর চেষ্টা করছেন। তাদের কথা মত কাজ না হলে সাব-রেজিষ্ট্রারের সাথে নানাভাবে হয়রানিমূলক কর্মকান্ডে লিপ্ত হচ্ছে তারা। এর কারনে দলিল লিখক ও সাব-রেজিষ্ট্রার অফিসে কার্যক্রমে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ভয়ভীতির কারনে বর্তমান সাব-রেজিষ্ট্রার স্যার এসহাক আলী মন্ডলও অফিসে আসতে ভয় পাচ্ছেন।

সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে, একটি প্রভাবশালী মহলের নির্দেশে র্দীঘদিন উপজেলার ১৩ টি মৌজার দলিল করায় বাধা ছিল। বাধা অপেক্ষা করে এক দলিল লিখক দলিল সম্পাদন করায় তার ওপর হামলা করে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। এমনকি দলিল লিখক নামধারী ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় একটি চক্র নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে “ক” তফসিলের জমিও জোরপূর্বক সাব-রেজিষ্ট্রার দিয়ে রেজিষ্ট্রি করে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন এ চক্রের সদস্য দলিল লিখক রুহুল আমিন ও কাজল ঢালী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দলিল লিখক মুঠোফোনে জানান, ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও দলিল লিখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিনের সহযোগিতায় দলিল লিখক নামধারী সাজ্জাদ পারভেজ, জাকারিয়া ইকবাল ও কাজল ঢালী নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে সরকারের খাস জমি সাব-রেজিষ্ট্রিারকে বাধ্য করছেন। সাবেক সাব-রেজিষ্ট্রার ও এসোসিয়শনের মহাসচিব কাউসার শেখ দলিল লিখক রুহুল আমিনকে ৩ মাসের জন্য সাময়িক বহিস্কার করেন। পরে সে অফিসে ঢুকতে পারেনি। এ চক্রের একক আধিপত্যের কারনে দলিল লিখক সমিতির প্রায় দুইশতাধিক দলিল লিখক তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে। তাদের ইচ্ছার বাইরে দলিল করায় এরই মধ্যে অনেকেই ওপর নেমে আসছে “খড়গ”। এ চক্রের কারনে দলিল লিখক সমিতিতে চলছে চরম অস্থিরতা।

জানা গেছে, জালজালিয়াতি দলিল করার কারনে পুলিশ দলিল লিখক সাজ্জাদ পারভেজ গ্রেফতার করেন। পরে তাকে ছাড়িয়ে নিতে স্থানীয় প্রভাবশালীরা থানায় গিয়ে প্রচন্ড হট্টগাল করেন এবং এক পর্যায়ে আসামিদের বহনকৃত গাড়ীর চাবি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেন বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় এক দলিল লিখক জানান, পারভেজ একজন মাদক সেবী। তার বিরুদ্ধে কেউ প্রকাশে কথা বলার সাহস পাচ্ছে না। তার দ্বারা যে কেনো অপরাধমূলক কর্মকান্ড সম্ভব।

দলিল লিখক হাবিব জানান, সময় মত দলিল জমি রেজিষ্ট্রি করতে না পারায় দলিল লিখকরা ক্ষতির মুখে পড়ছেন। দলিল লিখক সমিতিতে দীর্ঘদিন ধরেই চলছে ভোগান্তি। অবৈধ ও অনির্বাচিত দলিল লিখক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন পারভেজকে নিয়ে পুরো সাব-রেজিষ্ট্ররা অফিস ও দলিল লিখক সমিতিতে একক আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছেন। জনস্বার্থে দ্রুত সাব-রেজিষ্ট্রার অফিস ও দলিল লিখক সমিতিতে সুস্থ্য একটি পরিবেশ ফিরে আনার জোরদাবী জানিয়েছেন তিনি। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দলিল লিখক রুহুল আমিন ও সাজ্জাদ পারভেজ ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ