৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ১:৪৩ পূর্বাহ্ণ

UMo

পহেলা বৈশাখকে ঘিরে শহরে নিত্যপণ্যের দাম চড়া


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৯ পিএম, ১২ এপ্রিল ২০১৮ বৃহস্পতিবার


পহেলা বৈশাখকে ঘিরে শহরে নিত্যপণ্যের দাম চড়া

নারায়ণগঞ্জে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম আগের চেয়ে কিছুটা চড়া মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। সবজির দাম অনেকটা স্থিতিশীল থাকলেও মাছ-মাংসের দাম কিছুটা বেড়েছে। তবে ইলিশ মাছের দাম সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। বিক্রেতারা জানিয়েছেন, ‘পহেলা বৈশাখের নানা আয়োজনকে ঘিরে কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে।’ তবে এই মূল্য বৃদ্ধি স্থায়ী হবেনা বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

১২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের অন্যতম বৃহৎ দিগু বাবুর বাজার ঘুরে নিত্যপণ্যের দর সম্পর্কে নানা তথ্য পাওয়া যায়।

মাছের বাজারে ক্রেতারা অনেকটা ইলিশ মাছের দিকে ঝুকে ছিল। আর পহেলা বৈশাখের ‘পান্তা-ইলিশের’ আয়োজনকে ঘিরে ইলিশ মাছের চাহিদাও সবচেয়ে বেশি ছিল। তাই ইলিশ মাছের দাম পহেলা বৈশাখের আগে বেড়ে গেলেও তার চাহিদা এখনো কমেনি, বরং বেড়েছে। ইলিশ মাছ কেজি প্রতি ২-৪শ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধিতে আকার ভেদে ইলিশ মাছ সাড়ে ৪শ টাকা থেকে শুরু করে সাড়ে ১২শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতেও ইলিশ মাছের বাজারে ছিল উপচেপড়া ভিড়।

ক্রেতারা জানায়, ‘বাংলা নববর্ষের এই দিন পরিবারের সকলকে নিয়ে বৈশাখ উদযাপন করতে ইলিশ মাছ কিনছি। কারণ বর্ষ বরণে পান্তা-ইলিশের একটি রীতি হয়ে গেছে। তাই বাইরে থেকে গলাকাটা দামে পান্তা-ইলিশ কিনে খাওয়ার চেয়ে বাসায় খাওয়া অনেক ভাল। তাছাড়া পান্তা-ইলিশ ছাড়া বর্ষ বরণ ঠিক পরিপূর্ণতা পায়না। তাছাড়া এটা আমাদের বাঙালিদের একটা সংস্কৃতি। তাই আগামী প্রজন্মদের শিক্ষা দিতে বাড়িতে এই পান্তা ইলিশের আয়োজন করা।

এদিকে ইলিশ মাছের পাশাপাশি অন্য সকল মাছের দামও কিছুটা বেড়েছে। পাবদা মাছ আকার ভেদে সাড়ে ৩শ থেকে ৬শ টাকা হয়েছে। শিং মাছ আকার ভেদে ৩শ টাকা থেকে সাড়ে ৫ শ টাকা হয়েছে। চিংড়ি মাছ আকার ভেদে সাড়ে ৪শ থেকে সাড়ে ৬শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাইং মাছ আকার ভেদে সাড়ে ৫শ থেকে সাড়ে ৮শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কাজলী মাছ সাড়ে ৩শ এবং মলা মাছ ৩শ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। সোল মাছ সাড়ে ৫শ টাকা, টেগা মাছ সাড়ে ৪শ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। রুই মাছ আড়াইশ থেকে ৩শ টাকা, কাতলা মাছ ৩শ থেকে ৩শ ২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের বাজারে মুরগির মাংসের দাম বেড়েছে। তবে গরুর মাংসের দাম তেমন একটা বাড়েনি। গরুর মাংস ৫শ টাকা এবং খাসির মাংস ৭শ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। বয়লার মুরগির মাংসের দাম কেজি প্রতি ১০-১৫ টাকা বৃদ্ধিতে ১শ ৪৫ টাকা হয়েছে। সাদা লেয়ার মুরগির মাংস কেজি প্রতি ১৫-২০ টাকা বৃদ্ধিতে ১শ ৭০ টাকা, লাল লেয়ার মুরগির মাংস ২০ টাকা বৃদ্ধিতে ১শ ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। কক মুরগির মাংস ৪০ টাকা বৃদ্ধিতে ২শ ৬৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধিতে বিক্রেতারা জানায়, ‘ আসন্ন পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন আয়োজনকে ঘিরে পণ্যে চাহিদা বেড়েছে। যেকারণে দামও কিছুটা বেড়েছে। তবে পণ্যের দর বৃদ্ধি স্থায়ী হবেনা। পহেলা বৈশাখের নানা আয়োজনের রেশ কাটতেই পণ্যের দাম আবারো স্বাভাবিক হবে।

সবজির বাজারে দাম স্থিতিশীল থাকলেও কিছু কিছু পণ্যের দাম বেড়েছে। সবজির মধ্যে টমেটোর দাম কেজি প্রতি ৫-১০ টাকা বৃদ্ধিতে এখন ২৫-৩০ টাকা কেজি হয়েছে। ধনে পাতা কেজি প্রতি ৪০-৫০ টাকা বৃদ্ধিতে এখন ১শ টাকা কেজি হয়েছে। তবে কাঁচা মরিচের দাম আগের দামেই ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। শশা আগের দামে ২৫-৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। লেবুর দাম কিছুটা কমে আকার ভেদে ২০-৬০ টাকা হালিতে বিক্রি হচ্ছে। গাজর আগের দামে ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

বরবটির দাম কিছুটা কমে ৫০ টাকা হয়েছে। কহি ৪০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, ধন্দুল ৪০-৫০ টাকা, ঝিঙা ৫০ টাকা, বেগুণ ২৫-৩০ টাকা, উস্তা ৩০-৪০ টাকা, করলা ৪০-৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ঢেরসের দাম কেজি প্রতি ১০ টাকা কমে এখন ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আলুর পাল্লা (৫ কেজি) ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি পেঁয়াজের পাল্লা দেড়শ টাকা থেকে ১শ ৮০ টাকা এবং ভরতীয় পেঁয়াজের পাল্লা ১শ ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আদা আকার ভেদে ৭০-১০০ টাকা এবং রসুদ আকার ভেদে ৭০-৯০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ