১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, সোমবার ২৮ মে ২০১৮ , ৪:০৮ অপরাহ্ণ

পুলিশের অপরাধের প্রবণতা বৃদ্ধির সঙ্গে শাস্তি


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:২০ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৮ রবিবার | আপডেট: ০৮:২২ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৮ রবিবার


বা থেকে মীর শাহীন শাহ পারভেজ, কাজী রাকিব, মাশেকুর রহমান ও মনির হোসেন।

বা থেকে মীর শাহীন শাহ পারভেজ, কাজী রাকিব, মাশেকুর রহমান ও মনির হোসেন।

নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন থানায় পুলিশ সদস্যদের অপরাধের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ১০ দিনে বিভিন্ন অপরাধের পুলিশের তিন সদস্য সাময়িক প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনের প্রেরণ করা হয় যার আদেশ দেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার।

ঘটে যাওয়া তিনটি ঘটনার দুইটি আড়াইহাজার ও একটি সিদ্ধিরগঞ্জ থানায়। পর পর তিনটা অভিযোগে পুলিশ সদস্য ক্লোজড হওয়ায় জনমনে ভিন্ন প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। মানুষের ধারণা এতে করে পুলিশ সদস্যদের অপরাধ দৃশ্যমান হয়েছে তাই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাছাড়া আরো অনেক অভিযোগ আছে পুলিশের বিরুদ্ধে। পক্ষান্তরে পুলিশের অনেক ভালো কাজও রয়েছে। কেন এ ধরণের ঘটনা ঘটছে ? সেটাই কি দায়িত্বে অবহেলা না লোভের কারণের একান্তই ব্যক্তিগত যার বাহিনীর অন্য সদস্যদের ক্ষেত্রে তুলনা করা ঠিক না।

এএসআই ক্লোজড
গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একজন নারী সোর্সের মাধ্যমে যুবককে ফাঁসানোর চেষ্টার ঘটনায় অভিযুক্ত সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) মাশেকুর রহমানকে প্রত্যাহার (ক্লোজড) করা হয়েছে।

অভিযোগ হলো, গত ২৬ এপ্রিল বুধবার দিনগত রাতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে এএসআই মাশেকুর রহমান সিদ্ধিরগঞ্জ হাউজিংস্থ ফকির বাড়ি এলাকায় মাসুমের বাড়িতে প্রবেশ করে। তখন মাসুমকে নারী নিয়ে অসামাজিক কাজ করার অপরাধে আটকের কথা বলে এএসআই মাশেকুর।

এক পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে মাসুম এবং এএসআই মাশেকুরের সাথে তর্কাতর্কি শুরু হয়। তাদের এই বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে এলাকাবাসী এসে জড়ো হয়। পরে এলাকাবাসী এএসআই মাশেকুর এবং নারী সোর্স সাথীকে আটকে রাখে। পরে বিষয়টি সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুস সাত্তারকে জানালে তিনি থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মোঃ আজিজুল হকের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ ভোর ৬টার দিকে এএসআই মাশেকুর এবং নারী সোর্স সাথীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

পিএসআই ক্লোজড
এর আগে গত ২৩ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার শিক্ষানবিশ উপপরিদর্শক (পিএসআই) মনির হোসেনকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

আড়াইহাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমএ হক জানান, ‘গত ২০ এপ্রিল ব্যাংক কর্মকর্তা শফিকুর রহমানকে হয়রানি ও তার সঙ্গে অসদাচরণ করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মঈনুল হকের নির্দেশে পিএসআই মনির হোসেনকে সোমবার সকালে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের তদন্ত চলছে। তদন্তের পরই বিস্তারিত বলা যাবে।’

এসআই ক্লোজড
২১ এপ্রিল শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মঈনুল হকের নির্দেশে প্রশাসনিক কাজে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে আড়াইহাজার গোপালদী তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) কাজী রাকিবকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গত ১৮ এপ্রিল রাতে প্রাইভেটকার তল্লাশী করে ৪৬০ বোতল ফেনসিডিল সহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। পরে টাকার বিনিময়ে মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেয় এসআই কাজী রাকিব। তার বিরুদ্ধে টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেওয়ার একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

ওসি ক্লোজড
২০১৭ সালের ২৫ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মীর শাহীন শাহ পারভেজকে সাময়িক প্রত্যাহার (ক্লোজড) করে নেওয়া হয়। পুলিশ সুপারের নির্দেশে তাঁকে সদর থানা থেকে পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক দুপুরে জানান, দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগেই ওসিকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ হলো, ২৫ ডিসেম্বর বড়দিন উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে সাধু পৌলের গীর্জার অনুষ্ঠানে যোগ দেন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। তবে তাঁদের আগমন উপলক্ষ্যে গীর্জার সামনের ফুটপাত দখলমুক্ত সহ পর্যাপ্ত নিরাপত্তার জন্য নির্দেশ ছিল পুলিশ প্রশাসনের। কিন্তু সদর মডেল থানার ওসি মীর শাহীন শাহ পারভেজ সেটা যথার্থ করতে না পেরে উল্টো পুলিশের একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেন।

এগুলো ছাড়াও পুলিশের মামলার আসামীর কাছ থেকে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসিকে ফুল গ্রহণ সহ পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানী সহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ