৮ আশ্বিন ১৪২৫, সোমবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ

ঈদের আগে মসলার বাজার চড়া


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৭ পিএম, ১৭ আগস্ট ২০১৮ শুক্রবার


ঈদের আগে মসলার বাজার চড়া

কোরবানির ঈদের আর মাত্র ৫ দিন বাকি। কিন্তু এরই মধ্যে নারায়ণগঞ্জের বাজারগুলোতে হঠাৎ করেই মসলাজাতীয় পণ্যের বাজার চড়া দেখা গেছে। মসলাভেদে প্রতি কেজিতে দাম বেড়েছে ৫ টাকা থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। এনিয়ে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের মধ্যে রয়েছে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া।

শুক্রবার (১৭ আগস্ট) শহরের দিগু বাবুর বাজার ঘুরে মসলার চড়া দাম সম্পর্কে জানা যায়। একই অবস্থা জেলার প্রায় সকল বাজারেই।

সরেজমিনে দেখা যায়, আদা ১০-২০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়, গত সপ্তাহে ৪৮ টাকা বিক্রি হওয়া পেঁয়াজের দাম বেড়ে হয়েছে ৬০ টাকা, রসুন বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা থেকে ১১০ টাকায়, অথচ গত সপ্তাহে এটি বিক্রি হয়েছে ৭০ টাকা থেকে ৯০ টাকার মধ্যে। প্রতিকেজি এলাচ বিক্রি করতে দেখা যায় ১৮৫০ টাকা থেকে ১৯০০ টাকায়। দুই সপ্তাহ আগে খুচরা বাজারে প্রতিকেজি এলাচ ১৫৮০ টাকায় বিক্রি হয়েছে।

দারুচিনি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা কেজি দরে যা আগে বিক্রি হয়েছে ২১০ টাকায়। জিরা টার্কি ৪১০ ও ইন্ডিয়ান জিরা ৩১০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা যায়। এর আগে টার্কি জিরা বিক্রি হয়েছে ৩৫০ টাকায়, ইন্ডিয়ান জিরা বিক্রি হয়েছে ২৮০ টাকায়।

আমজাদ হোসেন নামে এক ক্রেতা জানান, হঠাৎ প্রতিটি মসলার দাম বেড়ে গেছে। কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে এখন থেকেই বিক্রেতারা দাম বাড়াচ্ছেন। এই দাম ঈদের পরেও থাকবে বলে মনে হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে এভাবে দাম বাড়ছে। ঈদকে সামনে রেখেই এই সিন্ডিকেট। নিয়মিত বাজার তদারকি করা হলে বিক্রেতারা তাদের ইচ্ছেমতো এভাবে দাম বাড়াতে পারতো না।

বিক্রেতা রবিউল জানান, পাইকারি বাজারে মসলার দাম বেড়েছে। তাই আমরাও বেশি দামেই কিনে এনেছি। এখানে আমাদের কিছু করার নেই। আমরা বেশি দামে কিনেছি যার ফলে বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

আরেক বিক্রেতা কাজী সামিউল জানান, রোজার ঈদের পর পণ্য তেমন আসছেনা। আমদানি থাকলে মূল্য সহনীয় থাকে। তবে পাইকারি বাজার থেকে নিয়মিত আমদানি হলে দাম কমে যাবে বলে জানান তিনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ