১০ আশ্বিন ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৯:৪৯ অপরাহ্ণ

সবাই ব্যস্ত গরুতে, শহরের মার্কেটে মন্দাভাব


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৬:২৩ পিএম, ২০ আগস্ট ২০১৮ সোমবার


সবাই ব্যস্ত গরুতে, শহরের মার্কেটে মন্দাভাব

কেনাকাটা করা নারীদের একটি অন্যতম পছন্দের কাজ। আর যদি হয় সেটা ঈদ উপলক্ষে তাহলে তো কথাই নেই। ঈদ উপলক্ষে নতুন জামা, নতুন জুতা সাথে ম্যাচিং করে গয়না ও প্রসাধনী সামগ্রী না কিনলে যেন নারীদের ঈদ সম্পূর্ণ নয়। ঈদুল আযহা উপলক্ষে নারীরা তুলনামূলক কম কেনাকাটা করলেও মার্কেটগুলোতে এখন থেকেই দেখা যাচ্ছে কেনাকাটাপ্রেমী নারীদের আনাগোনা।

অনন্যা নামের এক শিক্ষার্থী নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘কোরবানির ঈদে বাসা থেকে বেরোই না, কারন রাস্তাঘাটের অবস্থা খুব খারাপ থাকে। কিন্তু শপিং না করলে আবার ঈদ ঈদ লাগে না। তাই অন্তত শপিং টা করে রাখি।’

সমবায় মার্কেটে কেনাকাটা করতে আসা মিথিলা নামের একজন গৃহিনী বলেন, ‘বাড়িতে মেয়েদের জন্য তেমন কোনো কেনাকাটা  হয় নি। সেজেগুজে বাড়ির কোনো কাজ করা সহজ হয় না মেয়েদের জন্য। ঈদুল আজহায় সাধারণত ঘুরতে বের হয় না কেউই। তবে ছেলেরা কোরবানি দিবে আর নামাজ ও পড়তে যাবে। তাদের জন্য নতুন গেঞ্জি আর পাঞ্জাবি না কিনলে হয় না। আমার ছোট ছেলে এবারই প্রথম ঈদের জামাতে যাবে। তার জন্য পাঞ্জাবি পায়জামা কিনলাম। বড় ছেলে এবার বাবার সাথে কোরবানিতেও হাত লাগাবে তাই নতুন গেঞ্জির বায়না করেছে।’

মার্কেটগুলোর পাশপাশি ফুটপাতেও দেখা দিচ্ছে ক্রেতাদের ভীর। তবে বিক্রেতাদের অভিযোগ রয়েছে যে এবার অন্যান্য বছরের তুলনায় বেচাকেনা অনেক কম হচ্ছে।

সমবায় মার্কেটের কাপড় বিক্রেতা আবির প্রতিবেদককে বলেন, ‘কোরবানির ঈদ হলেও অন্যান্য বছর এই সময়ে বেচাকেনার ধুম থাকতো। আপনার সাথে যে কথা বলছি এই সময়টাও পাইতাম না। আর এবার দেখেন আমরা সব স্টাফরা দাঁড়াইয়া দাড়াইয়া আড্ডা দিতাসি। তাইলে বুঝতেই পারতেছেন কত খারাপ অবস্থা।’

দোলন ফ্যাশন হাউজের বিক্রেতা আনিস বলেন, ‘অন্যান্য কোরবানির ঈদে এই সময় একলাখ টাকার মতো করে বিক্রি হতো আর এইবার তো কাস্টমারও নাই। তাছাড়া সারাদেশের যেই অবস্থা, বন্যা, আন্দোলন আরো কত কিছু।  এইসব কারনেই লোকজনের হাতে এবার টাকার সংকট। তাই কোরবানি দিয়ে জামাকাপড় আর কেউ কিনে না।’

তবে বিক্রেতাদের মধ্যে হকারদের অভিযোগই বেশী। ময়লার কারনে ঈদ উপলক্ষে ভালো মতো ব্যবসা করতে পারছেন না বলে অসন্তোষ প্রকাশ করছেন তাদের মধ্যে অনেকে।

শাহ আলম নামের এক হকার বলেন, ‘কেউ কোরবানির ঈদে বেশী টাকা খরচা করতে চায় না। তাই মার্কেট থেকে গয়নাগাটি না কিনে ফুটপাতের হকারদের কাছেই কিনে। আর ঈদের আগের এই দুই দিনই আমরা ব্যবসা করি। অথচ ময়লার গন্ধ নিয়া আমরা দোকান সাজাইলেও ক্রেতারা গন্ধ লেইগা কিনতে আসে না। এবারের মতো খারাপ ঈদের ব্যবসা কোনো অন্য কোনো ঈদে হয় নাই।’

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

অর্থনীতি -এর সর্বশেষ