টার্গেটে নারায়ণগঞ্জের বিকাশ কর্মীরা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:২৮ পিএম, ৮ জানুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার

টার্গেটে নারায়ণগঞ্জের বিকাশ কর্মীরা

নগদ টাকা ছিনতাই এর ঘটনা ঘটছে। নারায়ণগঞ্জ এবং এর আশপাশে এমন ঘটনা এর আগে বহুবার ঘটেছে। তবে এই ছিনতাই এখন একটি নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর উপর টার্গেট করে হচ্ছে। আগে যেখানে বিভিন্ন ব্যবসায়ী বা দোকানের অথবা প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা আক্রান্ত হতো ছিনতাইকারীদের হাতে। এখন আক্রান্ত হচ্ছে একমাত্র বিকাশের কর্মীরা। এই হার বেড়ে যাওয়ায় দায়ী করা হচ্ছে বিপণন কাজে দায়িত্ব নেয়া প্রতিষ্ঠানকে। পুলিশের পক্ষ থেকে বার বার বলা হচ্ছে নগদ টাকা বহন করার ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা নেয়ার জন্য। অথচ এই বিপণন প্রতিষ্ঠানটি পুলিশের এই সহায়তাকে কোন রকম তোয়াক্কা না করেই বারবার এমন বিপদে ফেলছে কর্মীদের।

কয়েকটি ঘটনা পাশাপাশি আনলে দেখা যায় কয়েক বছর ধরে ছিনতাই এর হার কমেছে কয়েক গুণ। তবে এই হার কমলেও একেবারেই শেষ হচ্ছে না। কারণ যে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে তার বেশিরভাগই হচ্ছে বিকাশ কর্মীদের উপর। এতেই বুঝা যায় টার্গেট বিকাশ কর্মীরা। তাদের টার্গেট করা যেমন সহজ ঠিক তেমনি ছিনিয়ে নেয়া সহজ এবং একই পদ্ধতির বার বার ব্যবহারে পারদর্শিতা অর্জন।

এমন একটি ঘটনা ঘটেছে ৬ জানুয়ারী রূপগঞ্জ উপজেলার তারাব পৌরসভার বিশ্ববরোড সাঈদ মার্কেট এলাকায়। বিকাশ কর্মী শাকিল মিয়াকে (২৩) দুর্বৃত্তরা গুলি করে প্রায় ৫ লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিকাশের বিক্রয় প্রতিষ্ঠান জামাল অ্যান্ড কোম্পানীর উপজেলা বিক্রয় কর্মকর্তা নাহিদ হোসেন জানান, প্রতিদিনের মত রবিবার আমাদের বিকাশের বিক্রয় প্রতিনিধি শাকিল মিয়া তারাব পৌরসভার বিশ্বরোড সাঈদ মার্কেট এলাকায় বিকাশ এজেন্টদের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করতে যায়। দুপুর দেড়টার দিকে এজেন্টদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে মুড়াপাড়া অফিসে আসার সময় অজ্ঞাতনামা ৪ থেকে ৫ জন তার গতিরোধ করে। একপর্যায়ে তারা শাকিলের ডানপায়ে গুলি করে তার হাত থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা ভর্তি একটি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে আশে পাশের লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় শাকিলকে উদ্ধারর করে স্থানীয় ইউএস বাংলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার অবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

রূপগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল হক বলেন, খবর পেয়ে সাথে সাথে আমি আমার সঙ্গীয় পুলিশ সদস্য নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এঘটনায় এখনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এর ঠিক এক মাস আগে গত ১০ ডিসেম্বর সোমবার দিনগত রাতে ফতুল্লার পশ্চিম রসুলপুর এলাকায় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে সাইফুল ইসলাম (২৮) নামে বিকাশ কর্মী মারা গেছেন। নিহত পশ্চিম রসুলপুর ওয়াসারপাড় সংলগ্ন বাতেন মিয়ার বাড়ির তৃতীয় তলার ভাড়াটিয়া।

নিহতের বাবা আবুল কাশেম জানান, দোকান ভাড়া নিয়ে বিকাশে টাকা আদান প্রদানের ব্যবসা করে সাইফুল। সোমবার মধ্যরাতে দোকান থেকে বাড়ি ফেরার পথে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা সাইফুলকে ছুরিকাঘাত করে। এসময় সে চিৎকার করে বাড়ির গেইটের সামনে এসে অচেতন হয়ে পড়ে। তখন বাসা থেকে সকলে বেরিয়ে এসে দেখি সাইফুল রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। সাইফুলে পেটে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।

এই ঘটনার দুই মাস আগে ১ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় বিকাশ কর্মীকে ছুরিকাঘাত করে ২ লাখ ৪৮ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। দুপুরের ফতুল্লার শাসনগাঁওয়ে ওই ঘটনা ঘটেছে জানিয়ে রাতে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

বিকাশের কর্মকর্তা সৈকত হোসেন অভিযোগ বলেন, তিনি বিকাশের ডিএসও হিসেবে ফতুল্লার বিসিক এলাকার দীর্ঘদিন যাবৎ কাজ করছেন। সোমবার দুপুর পৌনে ১টায় শাসনগাঁয়ের ভাঙ্গা ক্লাব সংলগ্ন জাহাঙ্গীর স্টোরের সামনে পৌছা মাত্র দুটি মটর সাইকেলে ৫ জন ব্যাক্তি তার পথরোধ করে টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় সৈকত চিৎকার করলে ছিনতাইকারীরা তাকে লক্ষ করে দুটি গুলি ছুড়ে। তবে তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। এসময় ছিনতাইকারীরা সৈকতের বাম হাতে ছুরিকাঘাত করে হাতে থাকা ২ লাখ ৪৮ হাজার টাকাসহ ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। আশপাশের লোকজন সৈকতের দিকে ছুটে আসলে ছিনতাইকারীরা মটর সাইকেলে করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এর আগে ২০১৭ সালের ৮ আগস্ট সিদ্ধিরগঞ্জে মোঃ হাফিজুল ইসলাম (৩৯) নামে এক বিকাশ ব্যবসায়ীকে গুলি করে প্রায় আড়াই লাখ টাকা লুটের ঘটনায় অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা।

পুলিশ জানায়, প্রতিদিনের ন্যায় ৬ আগষ্ট রাত ১১টার দিকে বাসায় ফিরছিলেন ব্যবসায়ী মোঃ হাফিজুল ইসলাম। এ সময় মিজমিজি কান্দাপাড়া বোতল কারখানা সড়কের মোড়ে পৌঁছালে একটি মটরসাইকেল নিয়ে পূর্ব থেকেই অবস্থানরত অজ্ঞাত ৩ জন দুর্বৃত্ত তার গতিরোধ করে টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে তিনি বাধা দেন। এক পর্যায়ে দুর্বৃত্তরা তার কোমরে ও পায়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে মোটরসাইকেল দিয়ে পালিয়ে যায়।

গুলিবিদ্ধ ব্যবসায়ী হাফিজুল ইসলাম কান্দাপাড়া এলাকার পুলিশ শাহজাহানের বাড়ির ভাড়াটিয়া। তার পিতার নাম মোঃ আব্বাস আলী। তিনি দীর্ঘদিন যাবত ওই এলাকার আফসার উদ্দিনের টিনসেট মার্কেটে রিয়া মেডিকেল নামে একটি ঔষধের দোকান দিয়ে ব্যবসা করছেন। সেই সাথে একই দোকানে বিকাশ ব্যবসাও করতেন।

এই ঘটনায় ১১ আগস্ট দুপুরে নাসিক ২নং ওয়ার্ডের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সানারপাড় বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গণসংহতি আন্দোলন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা শাখার উদ্যোগে আয়োজিত হয় মানববন্ধন।

এসময় বক্তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর অবহেলার কারনে ৭ খুন, চঞ্চল হত্যা ও মেধাবী ছাত্রসহ অসংখ্য খুন হয়েছে। আর এসব খুনের বিচার নিয়ে এখন তালবাহানা চলছে। পুলিশ প্রশাসন কোন দিন জনগনের পাশে দাড়ায়নি বলেই এক বছর পূর্বে কান্দাপাড়া এলাকায় স্বর্নের দোকানে বোমা ফাটিয়ে লুটপাট করার ঘটনায় কোন বিচার পায়নি এবং বিকাশ ব্যবসায়ী হাফিজুল ইসলামও বিচার পাবে বলে মনে হয় না। সে জন্যই আজ মানুষ আর পুলিশের কাছে যায় না। কারন ৫ দিন অতিবাহিত হলেও হাফিজুল ইসলামকে গুলি করে ছিনতাইর ঘটনায় পুলিশ কাউকে শনাক্ত এবং গ্রেফতার করতে পারেনি। তাই এ এলাকার বাসিন্দারা চরম আতংকে দিন যাপন করছে।

৩ মে ২০১৬ সাল। নারায়ণগঞ্জে রূপগঞ্জে ইয়াকুব মিয়া নামে এক বিকাশ ব্যবসায়ীর কাছ ১ লাখ বিশ হাজার টাকা ছিনতাই করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দুপুর দেড় টার দিকে উপজেলার রূপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া এলাকার মসজিদের সামনে ঘটে এ ছিনতাইয়ের ঘটনা।

ইয়াকুবের ছোট ভাই আল-আমিন জানান, পর্শি বাজার এলাকা থেকে রিক্সযোগে বিকাশের ১লাখ বিশ হাজার টাকা নিয়ে ইছাপুরা বাজারে যাওয়াা পথে গোয়ালপাড়া মসজিদের সামনে পৌছিলে একটি নাম্বার বিহীন প্রাইভেটকার রিক্সার গতিরোধ করে। এসময় প্রাইভেটকারে থাকা ৫/৬ জনের একটি ছিনতাইকারী নেমে ইয়াকুবকে এলোপাথারীভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহতকরে তার কাছে থাকা বিকাশের ১ লাখ বিশ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এসময় তার ডাক-চিৎকারে আশ-পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যায়। পালানোা সময় আব্দুল মতিন ও জাহিদুল রহমান নামে দুই  ছিনতাইকারীকে চিনে ফেলে। পরে স্থানীয় লোকজন ইয়াকুর উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করান। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন বলেন, এখন পর্যন্ত ধরনের ঘটনার অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ আসামী ধরার বিষয়ে তৎপরতা চালালেও এ পর্যন্ত কোন আসামী ধরার খবর জানা যায়নি। এতেই বুঝা যায় ছিনতাইকারীরা কতটা পরিকল্পনা করে ঘটনা ঘটিয়ে থাকে। এবং বিকাশ প্রতিষ্ঠানটির বিপণন ব্যবস্থা কতটা নাজুক। এতে অর্থের চেয়ে জীবন ঝুকির মধ্যে পড়েছে।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও

আরো খবর