মিলনমেলায় শেষ হলো নারীদের ঈদ মেলা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৪৯ পিএম, ৩০ এপ্রিল ২০১৯ মঙ্গলবার

মিলনমেলায় শেষ হলো নারীদের ঈদ মেলা

কেউ শিক্ষার্থী, কেউ গৃহিনী, কেউ বা আবার পড়ালেখা শেষ করে বাসায় অবসর দিন কাটাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জের এমন নারীদের ঈদ মেলা সমাপ্ত হয়েছে। গান, বানরের নাচ সহ ক্রেতা বিক্রেতাদের আগমনে মিলনমেলায় পরিণত হয় মেলা প্রাঙ্গণ।

৩০ এপ্রিল মঙ্গলবার রাত ৯টায় শহরের চাষাঢ়ায় দি গ্র্যান্ড হল নামে কমিউনিটি সেন্টারের শেষ হওয়া ‘গার্লস অফ নারায়ণগঞ্জ’ নামে ফেসবুক গ্রুপের ঈদ মেলা শুরু হয়েছিল সোমবার। চারতলায় মেলার আয়োজন করা হলেও ক্রেতাদের জন্য ছিল সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও লিফটের সুব্যবস্থা।

সরেজমিনে মেলার স্টলগুলো ঘুরে দেখা গেছে, নকশি কাঁথা, বেডশিট, থ্রিপিস, শোপিস, ব্যাগ, জুতা, জুয়েলারি সামগ্রী, কসমেটিক্স, ফটোগ্রাফিক ও খাবারের দোকান সহ ৩৫টি স্টল রয়েছে। এ স্টলের পরিচালক সকলই ‘গার্লস অফ নারায়ণগঞ্জ’ ফেসবুক গ্রুপের সদস্য। এখানে কারোই নিজেস্ব কোন দোকান বা শোরুম নেই। প্রত্যেকেই ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট দিয়ে পণ্য বিক্রি করেন হয়ে উঠেছেন ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তা। আবার যারাই কিনতে আসছেন তাদের বেশির ভাগই গ্রুপের নারী সদস্য কিংবা তাদের পরিচিত।

স্টলগুলোর মধ্যে ছিল ওমেন বিউটি ওয়াল্ড, এলএস, স্টাইল মি, ওএনএন, ফ্যাশন হাউজ,স্টাইলিশ ফুটওয়্যার, এ্যানিৎস কালেকশন, কাশফাউন, বি ট্রেন্ডি বাই সাইমা, রূপ কথা ইত্যাদি।

তবে মেলার ব্যতিক্রম আয়োজন ছিল ‘ড্রিম ইনটিমেসিস বিডি’ নামে ফটোগ্রাফির স্টলে। তাৎক্ষনিক গ্রুপ ও প্রোটে ছবির ব্যবস্থা করেন পরিচালক রাজন কুমার দে সহ তার সহকর্মীরা। এছাড়াও বিয়ে, জন্মদিন, আশীর্বাদ সহ বিভিন্ন প্রোগ্রামের ছবি তোলার বিষয়ে ছিল বিশেষ ছাড়ের সুবিধা।

রূপ কথা নামে বুটিক হাউজের পরিচালক আফরোজা খন্দকার লুনা একজন গৃহিনী। নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, রান্না করা, সন্তানদের যতœ নেয়া ও সংসারের কাজ করে যখনই সময় হতো তখনই ফেসবুক কিংবা টিভি দেখে কাটাতাম। তেমন কোন কাজ ছিল না। গার্লস অব নারায়ণগঞ্জ গ্রুপে যখন জানতে পেরেছি ঘরে বসে ব্যবসা করা যায় তখন থেকেই উদ্যোগ নিতে শুরু করি। সংসারে জমানো টাকা দিয়ে থ্রি পিছ, লেহেঙ্গা কিনে বিক্রি শুরু করি। এখন বাসায় বসে হাতে ডিজাইন করা পোশাকগুলো বিক্রি করা হয়। এরজন্য শতভাগ সপোর্ট দিয়ে যাচ্ছেন আমরা স্বামী কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

তিনি আরো বলেন, মেলা ব্যাপক সারা ফেলেছে। বেচাকেনাও হয়েছে ভালো। আমরা এ ধরনের মেলা সব সময় হোক এটাই প্রত্যাশা করি।

ফারজানা আহমেদ নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, পুরুষদের সঙ্গে সব কথা বলে কোন পোশাক কেনা যায় না। নারী হওয়ায় নিজেদের পছন্দ মতো সব কিছু জেনে কেনা যায়। তবে নারীদের জন্য একটি মার্কেট হলে সব থেকে বেশি ভালো হতো।

‘গার্লস অফ নারায়ণগঞ্জ’ ফেসবুক গ্রুপের মডেরেটর সুরাইয়া জেনি বলেন, ২০১৭ সাল থেকে ধারাবাহিক ভাবে মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। মেলায় ব্যাপক সাড়া পাওয়া গেছে। প্রথম বছর মেলায় স্টল কম ছিল কিন্তু এখন সেটা বেড়ে গেছে। অনেকেই স্টল দিতে চায়। কিন্তু আমরা নেই না। সবাইকে নিতে হলে বড় মাঠ নিতে হবে তখন শৃঙ্খলাটা থাকবে না।

‘গার্লস অফ নারায়ণগঞ্জ’ ফেসবুক গ্রুপের পরিচালক (এডমিন) রোবাইয়া জুলফিকার খান নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, গার্লস অফ নারায়ণগঞ্জ ফেসবুক গ্রুপের নামের উদ্দেশ্য হলো, এখানে নারায়ণগঞ্জে নারী বাসিন্দা কিংবা নারায়ণগঞ্জ সম্পৃক্ত নারী ছাড়া কেউ নেই। গ্রুপের ৩০ হাজার সদস্য সবাই নারী। এ সদস্যরা অনেকেই অনেক হাতের কাজ জানেন কিন্তু সেগুলো প্রচার বা বিক্রি করার কোন মাধ্যম নেই। সেইসব নারীদের আত্মনির্ভরশীল হওয়ার জন্য ফেসবুকে আপলোড করে বিক্রির এ সুবিধা চালু করা হয়। যার মধ্যে অনেকেই আজ স্বাবলম্বী। আর সেইসব ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের আরো বেশি প্রচারের জন্য মেলার আয়োজন করা হয়েছে। ব্যবসার জন্য তেমন কোন প্রতিবন্ধকতা নেই।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও