রোজায় ভেজাল আতংক

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৫:৪০ পিএম, ৪ মে ২০১৯ শনিবার

রোজায় ভেজাল আতংক

আসন্ন রোজায় বাজারজাতকরণের জন্য মজুদকৃত প্রায় ৪শ ১০ টন পঁচা ও মেয়াদোত্তীর্ণ নষ্ট খেজুর জব্দ করেছে র‌্যাব। এ খেজুর জব্দের পর আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে নারায়ণগঞ্জবাসী। আসন্ন রমজানকে কেন্দ্র করে খেজুর ক্রয় করে এসব খেজুর তারা খেয়ে অসুস্থ হওয়া সহ নানা রোগে আক্রান্তও হতে পারতো। র‍্যাবের এই অভিযানকে তাই সাধুবাদ জানিয়ে প্রতিটি হিমাগারে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত রাখতে অনুরোধ করেছেন জেলাবাসী। আসন্ন রমজানে যেন কোন পঁচা মেয়াদোত্তীর্ণ কিংবা মজুদকৃত নষ্ট খাদ্য বা উপাদান কোন হিমাগার থেকে বাজারে না আসে সেদিকে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিও প্রত্যাশা করেছেন জেলার মানুষ।

গত ২৯ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার ধর্মগঞ্জে আদর্শ ও শাহীন কোল্ড স্টোরেজে (হিমাগার) অভিযান চালিয়ে এসব খেজুর জব্দ করা হয়েছে। জব্দ করা খেজুরের মূল্য প্রায় ১শ কোটি টাকা ধারণা করা হচ্ছে।

র‌্যাব-১১ এর সিনিয়র এএসপি আলেপ উদ্দিন খেজুর উদ্ধারের অভিযানের পর জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দুটি কোল্ড স্টোরেজে অভিযান চালানো হয়। এসময় শাহীন কোল্ড স্টোরেজকে ৫০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। আদর্শ কোল্ড স্টোরেজ থেকে কয়েক কার্টুন আপেল ও মালটা জব্দ করা হয় যা ছিল মেয়াদোত্তীর্ণ। এগুলো মূলত আসন্ন রমজান মাসকে কেন্দ্র করে এসব মজুদ করা হয়েছিল।

অভিযান শেষে ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম জানান, আসন্ন পবিত্র রমজান মাসকে সামনে রেখে এই দুটি হিমাগারে খেজুরগুলো মজু করে রাখা হয়েছিল যা কমপক্ষে তিন থেকে চার বছর আগের আমদানিকৃত। খেজুরগুলো একেবারেই নষ্ট হয়ে যাওয়ায় হিমাগারে পঁচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। এই খেজুর একেবারেই খাওয়ার অনুপযোগী এবং স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। একই সাথে নষ্ট খেজুরগুলোতে এক ধরনের সিরাপ স্প্রে করে চকচকে করে নতুন বস্তায় ভরে রাখা হয়েছে। রাজধানীর বাামতলী, যশোর ও খুলনা সহ সারা দেশে এই খেজুরগুলো বাজারজাত করার জন্য প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছিল। ইে হিমাগারগুলোর বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি।

অভিযানের পর নারায়ণগঞ্জের অন্যান্য হিমাগারগুলোতেও এ ধরনের মজুর সম্পর্কে প্রশাসনের দৃষ্টি রাখতে সাধারণ মানুষ দাবি জানিয়েছেন। সাধারণ মানুষের মতে, প্রতিটি হিমাগারেই আর্থিক লাভের প্রত্যাশায় এ ধরনের মেয়াদোত্তীর্ণ ফল ও খেজুরসহ মাছ মাংস মজুদ করে। পরে এগুলো সিন্ডিকেট করে বাজারে ছেড়ে বিপুল পরিমানে লাভ করে। এতে করে মানুষের দেহের ব্যপক ক্ষতির আশঙ্কা থাকে। এ ধরনের খাবার গ্রহণ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভয়ঙ্কর। আসন্ন রমজানকে সামনে রেখে তাই এসব মজুদের ব্যাপারে প্রশাসনের সদয় সতর্ক দৃষ্টি প্রত্যাশা করছেন সকলেই।

মূলত এ অভিযানের পর হিমাগার থেকে মজুদ কমাতে শুরু করে ব্যবসায়ীরা। তারা মজুদগুলো ধীরে ধীরে বাজারে সরবরাহ করতে শুরু করে। তবে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে হিমাগার মালিকরাও এ ধরনের মজুদ করবেনা পাশাপাশি ব্যবসায়ীরাও মেয়াদোত্তীর্ণ মজুদের দিকে আর ঝুকবেনা বলে আশা করা হয়।

তবে হিমাগারের পাশাপাশি বাজারে সরবরাহকৃত ফল ও মাছ মাংসে নজরদাবির দাবি জানিয়েছে সাধারণ মানুষ। আসন্ন রমজানকে কেন্দ্র করে যেন ফলমূলে ফরমালিন দেয়া না হয় কিংবা এসব মজুদ করা খাবার বাজারজাত করা না হয় সেদিকে নজর রাখতেই প্রশাসনের নজরদারি দাবি করেন সকলে।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও