এক অভিযানেই দায়িত্ব শেষ,সরছে না টানবাজারের কেমিক্যাল গোডাউন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৭ পিএম, ১২ জুন ২০১৯ বুধবার

এক অভিযানেই দায়িত্ব শেষ,সরছে না টানবাজারের কেমিক্যাল গোডাউন

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের ইতিহাসে অন্যতম ভয়াবহ দুর্ঘটনা হচ্ছে চকবাজারের চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড। যে অগ্নিকান্ডে মুহূর্তেই কেড়ে নেয় ৭৮টি তাজা প্রাণ। ভয়াবহ এই ঘটনার পর নড়েচড়ে বসে সরকার। দেশ ব্যাপী জনবসতিপূূর্ণ এলাকা থেকে কেমিক্যালের গোডাউন সরানোর জন্য অভিযান পরিচালনা করতে থাকে।

এর ধারাবাহিকতায় গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকেলে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে নারায়ণগঞ্জের টানবাজার এলাকায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালতটি পরিচালনায় ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের নির্বাহী ম্যজিস্ট্রেট মো. উজ্জল হোসেন ও মো. কামরুল হাসান মারুফ। অভিযানে সব ধরনের দাহ্য পদার্থ অন্যত্র সরিয়ে ফেলার জন্য ১০দিনের সময় বেধে দেওয়া হয়। কিন্তু সেই ১০দিনের জায়গায় সাড়ে ৩মাস পেরিয়ে গেলেও এখানো আগের মতই চলছে টানবাজারে কেমিক্যাল ব্যবসা।

১২ জুন বুধবার সরেজমিনে দেখা গেছে এমন দৃশ্য। অধিকাংশ কেমিক্যাল ব্যবসায়ী ভুলে গেছেন অভিযানের কথা। অনেকে আবার ১০দিনের দেওয়া নোটিশটিও পাননি। কারণ সেই অভিযানের পর আর কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়নি। ফলে আবারো আগের মতই জনবসতিপূর্ণ এলাকায় অবাধে দাহ্য কেমিক্যাল দিয়ে গোডাউন ও দোকান সাজিয়ে রেখেছেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে ব্যবসায়ীরা জানান তাঁরা কোন কোন কেমিক্যাল তাঁরা রাখতে পারবে না এরকম কোনো নির্দেশনা তাদের দেওয়া হয়নি। যে কারণে এখনো অধিকাংশ দোকানেই কেমিক্যাল বোঝাই ড্রাম রেখে দিয়েছে। আর এসব দেখেও এক দিনের অভিযান শেষে আবারো চুপ হয়ে গেছে প্রশাসন।

টানবাজারে অগ্নিকান্ড ঘটলে এর ভয়াবহতা প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল সিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, জায়গাটি জনবসতিপূর্ণ। তাই এখানে অগ্নিকান্ড ঘটলে খুবি ভয়াবহ অবস্থা হবে। আমরা বিভিন্ন সময় সেখানে গিয়েছি। সবাই বলে যে তাদের কোনো গোডাউন নাই। আসলে তারা গোডাউন সব সময় তালা দিয়ে রাখেন। তাই বুঝার উপায় নেই কোনাটি গোডাউন। আমরা তাদেরকে নোটিশ দিয়েছি। বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছি। কি কি কেমিক্যাল তারা রাখে এর লিস্ট বাইরে টাঙিয়ে রাখতে বলেছি। যাতে অগ্নিকান্ড যদি ঘটে তাহলে সহজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারি কিভাবে আগুন নিভালে তাড়াতাড়ি হবে। কিন্তু সবাই আমাদের কথা শুনছে না।

এ প্রসঙ্গে কেমিক্যাল ব্যবসায়ীদের সংগঠন ইয়ান মার্চেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এম সোলাইমান নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, অভিযানে ১০দিনের সময় দিয়েছিলেন। এর ৯দিনের মাথায় আমাদের সাথে জেরা প্রশাসকের মিটিং হয়। সেখানে এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয়। সেই মিটিংয়ে আমরা সময় নিয়েছি বিষয়টি মিটমাট করেছি।

এ প্রসঙ্গে তৎকালিন অভিযান পরিচালনাকারী জেলা প্রশাসকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উজ্জল হোসেন নিউজ নারায়ণগঞ্জেকে বলেন, অভিযান পরিচালনার পর আমরা ১০দিনের সময় দিলে চলে আসি। এরপর তারা ডিসি মহোদয়ের সাথে মিটিং করে। তবে সেখানে কি সিদ্ধান্ত হয়েছিল তা ডিসি মহোদয় জানেন। আমাদের আর কোনো আদেশ আসেনি তাই নতুন করে অভিযান পরিচালনা করা হয়নি।

 


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও