নিত্যপণ্যের বাজারে সক্রিয় অসাধু চক্র, নেই মনিটরিং

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:৪৫ পিএম, ১ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার

ছবি প্রতিকী
ছবি প্রতিকী

নারায়ণগঞ্জে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দর নিয়ন্ত্রনে জেলা প্রশাসনের একটি টাস্কফোর্স কমিটি রয়েছে। এছাড়া রয়েছেন কনজুমারস রাইটস অ্যাসোসিয়েশন বা ক্র্যাব নামের একটি সংগঠনও। তবে প্রতিনিয়ত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দর ঊর্ধ্বগতিতে থাকলেও নেই তাদের কোন সক্রিয়তা। নারায়ণগঞ্জের পাইকারী বাজারগুলোতে নেই জেলা প্রশাসন কিংবা কনজুমারস রাইটস নামের সংগঠনের কোন মনিটরিং।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, বিভিন্নভাবে অসাধু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রতারিত হয়ে জাতীয় ভোক্তা সংরক্ষণ অধিদফতরে লিখিত অভিযোগ করছেন ভোক্তারা। সেক্ষেত্রে ২০১০-১৩ সালে (পঞ্জিকা বছর) অভিযোগ এসেছিল মাত্র ১৭৯টি। পরের ২০১৪-১৫ অর্থবছরে আসে ২৬৪টি। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৬৬২টি। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এ সংখ্যা বেড়ে ৬ হাজার ১৪০টি। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে লিখিত অভিযোগ হয় ৯ হাজার ১৯টি। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে অভিযোগের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। অর্থাৎ সব মিলিয়ে ৬ অর্থবছরে মোট লিখিত অভিযোগের সংখ্যা ২৬ হাজার হারিয়েছে। এর মধ্যে অভিযোগ নিষ্পত্তি হয়েছে প্রায় ২০ হাজার।

অনিয়মগুলো হচ্ছে- ধার্যকৃত মূল্যের অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রি করা, ভেজাল পণ্য বা ওষুধ বিক্রি করা, খাদ্যপণ্যে নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ, অবৈধ প্রক্রিয়ায় পণ্য উৎপাদন বা প্রক্রিয়াকরণ, মিথ্যা বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারিত করা, ওজনে কারচুপি, বাটখারা বা ওজন পরিমাপক যন্ত্রে কারচুপি, মেয়াদ উত্তীর্ণ কোনো পণ্য বা ওষুধ বিক্রি ইত্যাদি।

এদিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর নারায়ণগঞ্জ জেলা কার্যালয় তাদের ওয়েবসাইটে গত আগস্টে বাজার তদারকি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যাতে মাত্র ৪দিন নারায়ণগঞ্জ সদর ও সোনারগাঁয়ের ৯টি প্রতিষ্ঠানকে মোট ৫৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে সদর উপজেলার কনফেকশনারী কর্নার বেকারী অ্যান্ড পেস্টি শপকে ১০ হাজার টাকা, রীপা সুইটকে ৬ হাজার টাকা, মোহাম্মদীয়া হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টকে ১৫ হাজার টাকা, আপ্যায়ন হোটেলকে ৫ হাজার টাকা, পাগলনাথ মিস্টান্ন ভান্ডারকে ৫ হাজার টাকা, সিকদার এন্ড কোম্পানীকে ১ হাজার টাকা, সোনারগাঁয়ের নান্না বিরিয়ানীকে ৫ হাজার টাকা, নিউ হাজী বিরিয়ানীকে ৫ হাজার টাকা ও আল তাজা বিরিয়ানীকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

জানা গেছে, সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের পরও বাজারে অসাধু ব্যবসায়ীদের তৎপরতা অব্যাহত আছে। তাদের অপকৌশলের কারণে প্রতিনিয়ত ঠকছেন ভোক্তা। নারায়ণগঞ্জের নিত্যপণ্যের বাজারগুলোতে মাঝেমধ্যে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালালেও নেই পর্যাপ্ত মনিটরিং। এছাড়াও বিভিন্ন বেকারী ও রেস্তোরাতেও প্রতিনিয়ত ঠকছেন ভোক্তা। মাঝেমধ্যে ভোক্তাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করলেও বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই অপরাধীরা পার পেয়ে যায়। এছাড়া বাজার মনিটরিংয়ে ইতিপূর্বে নারায়ণগঞ্জে একটি কমিটি গঠন করা হলেও সেটির কার্যক্রমও তেমন একটা দেখা যায়না। কনজুমারস রাইটস অ্যাসোসিয়েশনসহ কয়েকটি সংগঠনের অস্তিত্ব রয়েছে কাগজে কলমে। অথচ সাম্প্রতিক সময়ে বাজারদরের ঊর্ধ্বগতিতে নাভিশ্বাস দেখা দিয়েছেন জনসাধারণের মাঝে।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও