অসময়ে শহরের সড়কে ইলিশ মাছ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:২৩ পিএম, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ রবিবার

অসময়ে শহরের সড়কে ইলিশ মাছ

অসময়ে ইলিশ মাছের সয়লাবের ফলে বাজার ছেড়ে সড়কের দেখা মিলছে। হাত বাড়ালেই নারায়ণগঞ্জ সড়কের আশেপাশে জাতীয় মাছটি কেনাবেচার চিত্র দেখা যাচ্ছে। সচরাচর শীতের এই সময়ে নদীতে ইলিশ পাওয়া না গেলেও এ বছরের চিত্র উল্টো। তবে ক্রেতাদের মাঝে ইলিশের চাহিদা কম থাকায় দাম কিছুটা কম।

৯ ফেব্রুয়ারী রোববার দুপুরে শহরের মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সামনের সড়কে ইলিশ মাছ বিক্রির চিত্র দেখা যায়।

ইলিশ মাছ বিক্রেতা আলামিন জানায়, সকাল থেকে ইলিশ মাছ বিক্রি করছি। মাত্র ৬শ টাকা কেজিতে বিক্রি করছি। সকাল থেকে এক টুকরি মাছ বিক্রি করেছি। এখন আরেক টুকরি মাছ আছে। এই বড় আকারের ইলিশ মাছ অন্য সময় দুই থেকে আড়াই হাজার টাকায় বিক্রি হতো কিন্তু এবছর মাছের আমদানি ভাল থাকায় দাম মাত্র ৬শ টাকা।

আলামিন আরো জানায়, ২৫ বছর যাবত মাছ বিক্রি করি। বাজারে ও বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে মাছ বিক্রি করে থাকি। কিন্তু এর মধ্যে কখনো এই শীতের মৌসুমে ইলিশ মাছ বাজারে দেখিনি। আর আমিও কখনো বিক্রি করিনি। কিন্তু এ বছর একেবারে ব্যতিক্রম দেখছি।

তবে ইলিশ গবেষকদের দাবি, দীর্ঘদিন সঠিকভাবে জাটকা ও মা-ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার ফলে অসময়েও ইলিশ পাচ্ছে জেলেরা। ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে ভবিষ্যতে সারা বছরই ইলিশ পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন তারা।

মাছ ব্যবসায়ী সূত্রে জানাগেছে, চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় জেলেদের জালে ইলিশ ধরা না পড়লেও দক্ষিণাঞ্চলে ইলিশ পড়ছে বেশ। সাগর মোহনায় জেলেদের জালে ধরা পড়া এসব ইলিশ সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। অসময়ে বাজারে ইলিশ আসায় খুশি ইলিশ ব্যবসায়ীরা।

জেলা মৎস্য বণিক সমিতির কর্মকর্তারা বলেন, দক্ষিণাঞ্চলের ইলিশের আমদানি বেড়েছে। তবে অসময়ের এই ইলিশ, মৌসুমে আহরণকৃত ইলিশের মতো স্বাদ নেই। সাধারণত এই সময় বড় সাইজের ইলিশ দেখা যায় না। গত প্রায় ১০ বছর আগে একবার এই সময়ে ইলিশের আমদানি হয়েছিল। ধারণা করা হচ্ছে, সাগরের মধ্যে অনেক সময় ভূকম্পন হয়। যে কারণে ইলিশ উজানের দিকে উঠে আসে। চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় বড় সাইজের ইলিশের আমদানি কম।


বিভাগ : অর্থনীতি


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও