৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, শুক্রবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭ , ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ

ডিসির কাছে মর্গ্যানের ফেল করা ছাত্রীরা, সুযোগ দাবী অভিভাবকদের


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৯ পিএম, ৭ নভেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার


ডিসির কাছে মর্গ্যানের ফেল করা ছাত্রীরা, সুযোগ দাবী অভিভাবকদের

নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকায় অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী মর্গ্যান গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের দশম শ্রেনীর টেস্ট পরীক্ষায় অকৃতকার্য শিক্ষার্থীরা তাদের বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে। ৬ নভেম্বর সোমবার ফলাফল প্রকাশের পর সেদিন সন্ধ্যায় তারা বিক্ষোভ দেখায়। পরদিন ৭ নভেম্বরও স্কুল থেকে মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করেন।

ওই সময়ে শিক্ষার্থীর জন্য চোখের জলে বুক ভাসিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের পায়ে ধরার চেষ্টা করেছেন এক অভিভাবক। নানা সমস্যা তুলে ধরে অন্যান্য অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়ার জন্য আকুতি জানিয়েছেন।

এছাড়া জেলা প্রশাসকের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ে স্কুলটির অধ্যক্ষ অধ্যাপক অশোক তরুকে অবরুদ্ধ করে রাখেন বিক্ষুব্দ অভিভাবকরা। এর আগে সকালে মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অবস্থান করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে বুধবার বিকেলে অভিভাবকদের সিদ্ধান্ত জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

স্কুলটি থেকে এবার দশম শ্রেনীর টেস্ট পরীক্ষায় তিন বিভাগ থেকে ৫৩১ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। তাদের মধ্যে ১৭৮জন অকৃতকার্য হয়েছে যাদের সবাই দু’টি বা এর বেশী বিষয়ে উত্তীর্ণ হতে পারেনি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সকালে স্কুলটির দশম শ্রেনীর টেস্ট পরীক্ষায় অনুত্তীর্ন শতাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবক স্কুল প্রাঙ্গন থেকে মিছিল বের করে ফতুল্লার চাঁদমারীতে অবস্থিত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে জড়ো হয়। এসময় তারা এসএসসি পরীক্ষা অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ করতে থাকে। এসময় স্কুলটির অধ্যক্ষ অধ্যাপক অশোক তরু জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়ার সঙ্গে দেখা করে বের হলে অভিভাবকরা তাকে ঘিরে ধরেন। এতে অধ্যক্ষ তাদের এড়িয়ে গিয়ে গাড়িতে উঠতে চাইলে অভিভাবকরা তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এক পর্যায়ে পুলিশ গিয়ে অধ্যক্ষকে উদ্ধার করে গাড়িতে তুলে দিলে তিনি ওই এলাকা ত্যাগ করেন।

এরপর অভিভাবকরা জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়ার সঙ্গে দেখা করেন। এসময় একেকজন অভিভাবক একেক সমস্যা তুলে ধরে কান্নাকাটি করতে থাকে এবং তাদের সন্তানদের আরেকটি সুযোগ দেয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেন। এক পর্যায়ে কোহিনূর বেগম নামে একজন অভিভাবক জেলা প্রশাসকের পায়ে ধরার চেষ্টা করেন।

জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বলেন, আমি ম্যানেজিং কমিটির সঙ্গে কথা বলবো। বুধবার আপনাদেরকে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়া হবে।

এছাড়া অন্যান্য অভিভাবকদের দাবী, স্কুলের পছন্দমত শিক্ষকদের কাছে না পড়ায় ফেল করানো হয়েছে। শিক্ষকরা অভিভাবকদের সঙ্গেও খারাপ আচরন করেন। অভিভাবকদের মূল্যায়ন করেনা।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শিক্ষাঙ্গন -এর সর্বশেষ