৯ টার অপেক্ষায় পরীক্ষার্থীরা, হার্ডলাইনে প্রশাসন

৩ ভাদ্র ১৪২৫, শনিবার ১৮ আগস্ট ২০১৮ , ৪:৩৭ অপরাহ্ণ

৯ টার অপেক্ষায় পরীক্ষার্থীরা, হার্ডলাইনে প্রশাসন


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩২ পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৩:৩২ পিএম, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার


ছবি প্রতিকী

ছবি প্রতিকী

এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ধারাবাহিকভাবে ফাঁস হওয়ার ঘটনায় সকাল ৯টা বাজলেই প্রশ্ন দেখার অধীর আগ্রহে ফেসবুকের বিভিন্ন পেজে ঢু মারে এসএসসি শিক্ষার্থীরা। এদিকে প্রশ্ন ফাঁসকারী অনেককে আটক করতে পুলিশ প্রশাসন কঠোর নজরদারিতে রয়েছে; যেকারণে ইতোমধ্যে বিভিন্ন স্থানে প্রশ্ন ফাঁসকারী ও সরবরাহকাীদেরকে আটক করা হচ্ছে।

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ শহর ও শহরতলীর এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রগুলোর আশেপাশে পরীক্ষার্থীদের স্মার্ট ফোনে অনলাইনে ফেসবুক পেজগুলোতে ঢু মারার দৃশ্য চোখে পড়ে। সকাল ৯টার আগ মুহূর্ত থেকে পরীক্ষার্থীরা এই পেজগুলোতে প্রশ্ন জোগাড়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পত্রগুলো সকাল ৯ টার আগে পরে ফাঁস হয় বলে শিক্ষার্থীরা এই সময়টাকে তাদের কাংখিত সময় হিসেবে বেছে নিয়েছে।

এদিকে রাতভর পড়াশোনা করলেও সকল শিক্ষার্থীদের নজর থাকে পরীক্ষার দিন সকাল ৯টায় অগ্রিম প্রশ্ন দেখে প্রস্তুতি নেয়ার দিকে। সারারাত ধরে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিলেও সেই প্রস্তুতির হার্ডলাইন হিসেবে পরীক্ষার দিন সকাল ৯ টায় দিয়ে ঠেকে। আর সকাল ৯ টায় পরীক্ষার্থীরা ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দেখে আরো নব উদ্যমে প্রস্তুতি নিতে থাকে।

এসময় বাদ পড়ে যাওয়া প্রশ্ন মিলিয়ে নিয়ে ফের প্রস্তুতি নিতে শিক্ষার্থীরা ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়ে।  তাই এখন এসএসসি পরীক্ষার ফাঁস হওয়া প্রশ্ন পত্র এক নজর দেখার জন্য পরীক্ষার পূর্বে বিভিন্ন ফেসবুক পেজ সহ বিভিন্ন মাধ্যমে চোখ রাখছে।

এসএসসি পরীক্ষার শুরুতে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষার প্রায় ৩২ মিনিট আগে প্রশ্ন ফাঁস হয়ে যায়। এরপর বাংলা ২য় পত্র পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র সকাল সোয় ৯ টায় ফাঁস হয়। ইংরেজী ১ম পত্র পরীক্ষর প্রশ্ন ৮.৪ মিনিটে এবং ইংরেজী ২য় পত্র পরীক্ষার প্রশ্ন ৮.৪০ মিনিটে ফাঁস হয়। এরপর গণিত পরীক্ষার প্রশ্ন সকাল ৮.৩৫ মিনিটে ফাঁস হয়। এভাবে ধারাবাহিকভাবে সবকটি প্রশ্ন পত্র ফাস হতে দেখা যায়।

পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকরা ভাল ফলাফলের আশায় সন্তানদের এসব প্রশ্ন দেখার সুযোগ করে দিচ্ছ্। তাছাড়া তুলনামূলক দুর্বল শিক্ষার্থীরা ফাঁস হওয়া প্রশ্নের কল্যাণে ভাল ফলাফল করে ফেলে। এই অনুতাপে অন্য পরীক্ষার্থীর অভিভাবকেরা আরো ভাল ফলাফলের জন্য ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দেয়ার জন্য নানাবিধ সহযোগিতা করে থাকে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

এ ব্যাপারে পরীক্ষার্থীরা বলছেন, ‘প্রায় প্রত্যেকটি প্রশ্ন সকাল ৯ টার কিছুক্ষণ আগে পরে ফাঁস হয়েছে। আর প্রশ্নপত্র ধারাবহিকভাবে ফাঁস হচ্ছে। তাই অনেকে এখন ফাঁস হওয়া প্রশ্ন দেখে দেখে আগে থেকে প্রস্তুতি নিচ্ছে। এতে করে দুর্বল ছাত্রীরা ভাল ফলাফল করে ফেলছে। আর মেধাবী ছাত্রীরা তাদের প্রকৃত মেধা কাজে লাগিয়ে দুর্বল শিক্ষার্থীদের তুলনায় খারাপ ফলাফল করছে। তাই অনেকটা বাধ্য হয়ে অনেকে প্রশ্ন দেখতে বাধ্য হচ্ছে। আমরা চাইনা প্রশ্ন ফাঁস হোক । কিন্তু কি করার এটা তো ধারাবাহিকভাবে ঘটে চলেছে।

এদিকে পুলিশ প্রশাসন প্রশ্ন ফাঁস রোধে কঠোর নজরদারি বাড়ালেও প্রশ্ন পত্র ফাঁস হচ্ছে। তবে এরই মধ্যে সারাদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রশ্ন ফাঁসকারী ও সরবরাহকারীদের আটক করা হলেও এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত রয়েছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শিক্ষাঙ্গন -এর সর্বশেষ