৭ আশ্বিন ১৪২৫, শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৫:৫৪ অপরাহ্ণ

সিটি করপোরেশনের দেয়াল ভাঙার ঘোষণা মর্গ্যান শিক্ষার্থীদের


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫১ পিএম, ২৩ জুন ২০১৮ শনিবার


সিটি করপোরেশনের দেয়াল ভাঙার ঘোষণা মর্গ্যান শিক্ষার্থীদের

রমজানের ছুটি শেষে ২৩ জুন শনিবার ছিল প্রথম দিন। কিন্তু সেদিন স্কুলে এসেই জানা গেল স্কুলের দ্বিতল ভবন রাতের আধাঁরে ভেঙে দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। আর তাই ক্লাস বর্জন করে শরীরে কালো ব্যাচ লাগিয়ে স্কুল মাঠে বিক্ষোভ করেছে নারায়ণগঞ্জ মর্গ্যান গালস স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা। একই সঙ্গে আল্টিমেটাম দিয়েছে আগামী ২৭ জুন পর্যন্ত এ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার এবং এর মধ্যে সমস্যা সমাধান না হলে সিটি করপোরেশনের সীমানা প্রাচীর ভেঙে দেওয়ারও ঘোষণা দেওয়া হয়।

এক মাসের ছুটি শেষে শনিবার সকাল ৯টা থেকে মর্গ্যান গালস স্কুল অ্যান্ড কলেজে শ্রেণির কক্ষের কার্যক্রম শুরু হয়। বিকাল ৪টা পর্যন্ত ক্লাশ চলার কথা থাকলেও বেলা ১১টায় বৃষ্টিতে যখন পরিবেশ শান্ত তখনই ভবন ভেঙে ফেলায় ক্ষোভে মাঠে নেমে আসেন স্কুলের প্রথম শ্রেনি থেকে দ্বাদশ শ্রেনি পর্যন্ত প্রায় কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী। তাদের সঙ্গে যুক্ত হয় স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরাও।

স্কুল সূত্রে জানা যায়, গত ৯ মে রাতের অন্ধকারে মর্গ্যান গালস স্কুল অ্যান্ড কলেজের পূর্ব দিকে দুই তলা ভবনটি ভেঙে দেয় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ। ওই ভবনটির একটি রুম ছিল শিক্ষার্থীদের টিফিনের জন্য ও অন্যটি শ্রেনি কক্ষ। এর পাশাপাশি স্টোর রুম হিসেবেও বিভিন্ন আসবাবপত্র ছিল যেসব মূল্যবান। ভবনটি ভেঙে দেওয়ায় স্কুলের টিফিনের ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে গেছে।

স্কুলের দশম শ্রেনির ছাত্রী রিয়া বর্মণ, কেয়া বর্মণ, নুসরাত হাবিব ছোয়া, বোসরা জাহান সোবা জানান, টিফিনের রুম ভেঙে দেওয়ায় শিক্ষার্থীদের না খেয়ে ক্লাস করতে হবে। এমনিতেই শ্রেণি কক্ষের সংকট রয়েছে তার উপর একটি কক্ষ ভেঙে দিয়ে নতুন করে চাপ পড়বে।

নবম শ্রেনির ছাত্রী আইরিন ইসলাম বলেন, এভাবে রাতে অন্ধকারে ভবন ভেঙে দেওয়া কোন ভালো কাজ নয়। তাও আবার একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন যা আমরা মেনে নিতে পারি না। তাই অবিলম্বে সমস্যা সমাধান না করলে আগামী ২৭ জুন পর্যন্ত ধারাবাহিক বিক্ষোভ চলবে। পরবর্তীতে সিটি করপোরেশনের সীমানা প্রাচীর ভেঙে ফেলা হবে।

স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক আহসান হাবিব বলেন, ‘উদ্দেশ্যমূলক ভাবে ভবনটি ভেঙে এখন সীমানা প্রাচীর করা হয়েছে। যার ফলে স্কুলের নির্মাণাধীন ভবনের দেওয়াল দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এটা কোন শিক্ষিত মেধাবী মানুষের কাজ হতে পারে না। এ কাজের আমরা ধিক্কার জানাই।’

মর্গ্যান স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ অশোক কুমার সাহা বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল ভবন ভেঙে ফেলার। কিন্তু আমরা সেটা মেয়রকে জানিয়েছি যে আমাদের জায়গা সংকট রয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য ভবনটি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু তিনি তা শোনেননি বরং ভেঙে দিয়েছে। ভবন ভেঙে দেওয়ার পর আমরা শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা তার সঙ্গে দেখা করতে চাইলে তিনি দেখা করেননি। কয়েকজন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দেখা করলেও তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করতে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মারকলিপি দিয়েছি। এছাড়াও একটি মতবিনিময় সভা করেছি যেখানে এমপি সেলিম ওসমান উপস্থিত হয়েছিলেন। তখন তিনিই শিক্ষার্থীদের শান্ত থাকার জন্য আহবান করেন। তিনি সব ধরনের সহযোগিতা ও ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু স্কুল খোলার পর প্রথম দিন ক্লাস রুম ও টিফিন রুম ভেঙে ফেলায় শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করে মাঠে আন্দোলন শুরু করে। পরে তারা আল্টিমেটাম দিয়ে শনিবারে কর্মসূচি সমাপ্ত করে। এভাবে চলতে থাকলে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার ক্ষতি হবে আমরা এর সুষ্ঠ্য সমাধানের জন্য সকলের দৃষ্টি আর্কষণ করছি।’

সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ক্ষতিপূরন দেওয়া আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল কিনা প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, কোন কিছু বলেননি বরং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছেন মেয়র।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন স্কুলের সহকারী প্রধান শিক্ষিকা লায়লা আক্তার, কলেজ শাখার ইংরেজি প্রভাষক এম ইউ কবির চৌধুরী, পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোশারফ হোসেন জনি, শিক্ষক প্রতিনিধি ইয়াসুল মিয়া প্রমুখ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

শিক্ষাঙ্গন -এর সর্বশেষ