নারায়ণগঞ্জে কোচিং সেন্টার নিয়ে কড়া এ্যাকশনে প্রশাসন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:২২ পিএম, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ সোমবার

ফাইল ফটো
ফাইল ফটো

এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে নারায়ণগঞ্জে কোচিং সেন্টারগুলোকে নিয়ে কড়া এ্যাকশন চালাচ্ছে প্রশাসন। প্রতিদিনই বিভিন্ন স্থানে চলছে অভিযান। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি কোচিং সেন্টার বন্ধ ও অর্থদন্ডও করা হয়েছে। তবে অভিভাবকদের কেউ কেউ বলছেন, প্রশ্নফাঁস রোধে কোচিং বন্ধের চাইতে স্কুল কলেজে পর্যাপ্ত পাঠদান প্রয়োজন।

১ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশের মত নারায়ণগঞ্জেও একযোগে শুরু হয়েছে এসএসসি পরীক্ষা। অতীতের বেশ কয়েকটি পরীক্ষায় আগের রাত্রে প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার ঘটনায় নিন্দার ঝড় উঠে চারদিকে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল ইসলাম মারুফ জানান, সরকারী আদেশ ও জেলা প্রশাসকের গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ২৮ জানুয়ারী হতে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সকল ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। কিন্তু তার পরেও কিছু এলাকাতে কোচিং সেন্টার চলছিল। রোববার বিকেলে শহরের আল্লামা ইকবাল রোড (কলেজ রোড) এলাকার কিউরিয়সিটি ও একাউন্টিং গ্যালারী নামের দু’টি ও মাসদাইর এলাকার টাঙ্গাইল কোচিং একাডেমী নামের একটি কোচিং খোলা ছিল। এই ৩টি কোচিং সেন্টার সরকারী আদেশ অমান্য করে কার্যক্রম পরিচালনা করায় বাংলাদেশ দন্ড বিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারা অনুযায়ী তাদের প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড প্রদান করা হয় এবং কোচিং সেন্টার সিলগালা করে দেয়া হয়।

তবে কোন কোন অভিভাবক এসব ব্যাপারে ব্যক্ত করেছেন মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ফতুল্ল¬া নিবাসী এসএসসি পরিক্ষার্থীর অভিভাবক নূরুল আলম বলেন, কোচিং সেন্টার থাকার কারণে আমাদের আর্থিক দিকটাতে সহায়তা পাওয়া যায়। বাসায় একজন প্রাইভেট শিক্ষক রাখতে কোচিং এর তুলনায় দ্বিগুণ টাকা লাগে। তাছাড়া কোচিং এ স্যারদের এক্সটা কেয়ার ও অনেক শিক্ষার্থীর সমন্বয় থাকায় ছাত্রদের পড়ায় সুবিধা হয়।

প্রায় একই কথা বলেন শহরের জামতলার বাসিন্দা তারিক মাহমুদ। তিনি বলেন, এসএসসি শিক্ষার্থীদের জন্য অন্যান্য সকল ক্লাসের কোচিং বন্ধ থাকলে ছেলেমেয়েরা পিছিয়ে যাবে। কারন ১ মাসের জন্য প্রাইভেট টিউটর রাখা সম্ভব না। তাছাড়া ফেব্রুয়ারি মাস জুড়ে স্কুলের বিভিন্ন ফাংশনে ক্লাসও হয়না ঠিকমত। আর স্কুলের শিক্ষার মান নতুন করে বলার কিছু থাকে না। সবাই অবগত স্কুলের শিক্ষকদের ব্যাপারে।

ফতুল্লা স্টেশন সংলগ্ন একটি কোচিং এর শিক্ষক রিদওয়ান বলেন, কোচিং এর আড়ালে কেউ প্রশ্নপত্র ফাঁস করে না। প্রশ্নপত্র ফাঁসের জন্য সংশ্লিষ্টদের অবহেলাই দায়ী। গুটিকয়েকজনের জন্য পুরো কোচিং বন্ধ হওয়াটা অনুচিত। তাছাড়া এসএসসির পাশাপাশি অন্যান্য ক্লাসের শিক্ষার্থীদের ক্ষতিও হচ্ছে এতে করে। সে হিসেবে কোচিং এর প্রয়োজনীয়তা উপলব্দি করা উচিৎ।


বিভাগ : শিক্ষাঙ্গন


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও