বাইরে দিয়ে তালা ও প্রহরী বসিয়ে কোচিং সেন্টার

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪২ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার

বাইরে দিয়ে তালা ও প্রহরী বসিয়ে কোচিং সেন্টার

উচ্চ আদালতের নিদের্শের পরও বন্ধ হচ্ছে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার কোচিং সেন্টারগুলো। প্রতিদিন সকাল ৬টা থেকে রাত অবধি চলে ওইসব সেন্টার। কখনো বাইরে থেকে তালা দিয়ে আবার কখনো প্রহরী বসিয়ে ওইসব কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। তবে নারায়ণগঞ্জের কোচিং সেন্টারের উপর তেমন কোন জোরালো অভিযানও দেখা যাচ্ছে না প্রশাসনের।

১১ ফেব্রুয়ারী সোমবার সকালে এক মামলায় আসামীকে গ্রেফতারে শহরের কলেজ রোড এলাকায় অভিযানে যায় র‌্যাব-১১।  র‌্যাবের গাড়িটি গলাকাটা পুকুরপাড়ের দিকে যায়। আর যেখানে রয়েছে একাধিক কোচিং সেন্টার। তাই র‌্যাবের গাড়ি দেখতেই কোচিং সেন্টারে তালা দিয়ে পালিয়ে যেতে শুরু করে শিক্ষক ও পরিচালকেরা। মুহূর্তে কলেজ রোড এলাকায় শিক্ষকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পরে।

ব্যাচের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাদশ শ্রেনির শিক্ষার্থী রাহুল দাস বলেন, সকাল ৯টায় হিসাব বিজ্ঞান ব্যাচ ছিল। কিন্তু র‌্যাবের গাড়ি কলেজ রোড ঢুকছে শোনে স্যার আমাদের দ্রুত চলে যেতে বলে। আর কেউ জিজ্ঞাসা করলে ব্যাচের নাম না বলতে বলেছে। কারণ কি জানতে চাইলে তিনি বলে এসএসসি পরীক্ষার সময় কোচিং বন্ধ রাখার নির্দেশ ছিল কিন্তু এখনও পড়াচ্ছি তাই।

রাহুল আরো বলেন, সকালে ব্যাচ থেকে বের হয়ে দেখি পুকুর পাড়ে একটি বাসায় যায় র‌্যাব। কিন্তু সেখানে কি করেছে সেটা জানি না। আর এর সঙ্গে সব ব্যাচ বন্ধ হয়ে যায়।

কলেজ রোড এলাকার ব্যবসায়ী হাবিবুর রহমান বলেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস যেন না হয় হাইকোর্ট এসএসসি পরীক্ষার সময় সকাল কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে পত্রিকায় দেখেছি। কিন্তু কলেজে রোডের সব ব্যাচই খোলা থাকে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত। জিজ্ঞাসা করলে বলে তারা সবাই কলেজে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র কোন স্কুলের ছাত্র নেই। যার জন্য নাকি সমস্যা হবে না।

তিনি আরো বলেন, স্থানীয় একজন মুরব্বী র‌্যাবকে জিজ্ঞাসা করেছিল তারা কেন আসছে। তখন র‌্যাব নাকি ওনাকে জানিয়েছে কোন এক মামলার আসামীকে নাকি গ্রেফতার করতে এসেছে। তবে কাউকে না পেয়ে চলে গেছে। এজন্যই আসছে নাকি অন্য কোন কাজে আসছে সেটা জানি না।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক একজন দোকানদার বলেন, কোচিং পাহারা দেওয়ার জন্য দারোয়ান রেখেছে। পুলিশ, র‌্যাব কিংবা মোবাইল কোর্ট আসলে যাতে আগে গিয়ে খবর দিতে পারে। আর কিছু কোচিং সেন্টার বাইরে থেকে তালা দিয়ে রাখে। যাতে দেখলে মনে হয় কোচিং সেন্টার বন্ধ। কিন্তু আসলে ভিতরে শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা করছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ৩ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ শহরের ৩টি কোচিং সেন্টারে অভিযান চালিয়ে জরিমানার পাশাপাশি সেগুলো সিলগালা করে দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। রোববার বিকেলে শহরের আল্লামা ইকবাল রোড (কলেজ রোড) ও মাসদাইর এলাকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল ইসলাম মারুফের নেতৃত্বে ওই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল ইসলাম মারুফ জানান, সরকারী আদেশ ও জেলা প্রশাসকের গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী ২৮ জানুয়ারী হতে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সকল ধরনের কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। কিন্তু তার পরেও কিউরিয়সিটি ও একাউন্টিং গ্যালারী ও টাঙ্গাইল কোচিং একাডেমী নামের তিনটি কোচিং সেন্টার খোলা ছিল। এই ৩টি কোচিং সেন্টার সরকারী আদেশ অমান্য করে কার্যক্রম পরিচালনা করায় তাদের প্রত্যেককে ১ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড এবং কোচিং সেন্টার সিলগালা করে দেয়া হয়।

৩ ফেব্রুয়ারি ওই অভিযানের পর নতুন করে কোন অভিযান দেখা যায়নি প্রশাসনের পক্ষ থেকে। ফলে গোপনে নারায়ণগঞ্জে বিভিন্ন এলাকায় চলছে কোচিং সেন্টার। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য নারায়ণগঞ্জ কলেজ রোড (আল্লামা ইকবাল রোড), আমলাপাড়া, উত্তর চাষাঢ়া, জামতলা, মাসদাইর।


বিভাগ : শিক্ষাঙ্গন


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও