শিক্ষকের এক থাপ্পড়েই মহিলা কলেজে ছাত্রী অচেতন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৪:৪৯ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রবিবার

শিক্ষকের এক থাপ্পড়েই মহিলা কলেজে ছাত্রী অচেতন

নারায়ণগঞ্জ শহরের সরকারি মহিলা কলেজে শিক্ষকের মারধরে এক ছাত্রী অচেতন হয়ে পড়েছে। পরে তাকে শহরের খানপুর ৩০০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ছাত্রীর অভিভাবকেরা। তবে সম্পূর্ন অভিযোগ অস্বীকার করেছে কলেজের শিক্ষকেরা।

২২ সেপ্টেম্বর রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেনির ক শাখায় ওই ঘটনা ঘটে। চিকিৎসার এক ঘণ্টা পর ওই ছাত্রী সুস্থ্য হয়।

প্রথম বর্ষের ছাত্রীর (১৭) বাড়ি ফতুল্লার ভূঁইগড় মাহমুদপুর এলাকায়। অভিযুক্ত শিক্ষক হলো কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক সোলায়মান খন্দকার ওরফে সায়মন।

ছাত্রীর চাচা আতাউর রহমান জানান, সকালে ইংরেজির প্রথম ক্লাস ছিল। কিন্তু সেটা জানতো না। ফলে সে ইংরেজি বই নিয়ে আসেনি। ওই সময় শিক্ষক সায়মন ক্লাস রুম থেকে বের হয়ে পিছনের দরজা দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করে। আর পিছন থেকে পিঠে একটি থাপ্পর দেয়। আচমকা থাপ্পর দেওয়ায় ক্লাস রুমে অচেতন হয়ে পড়ে সে। পরে কলেজের অন্য ছাত্রীরা তাকে খানপুর হাসপাতালে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে আমরা হাসপাতালে যাই। সেখানে এক ঘণ্টা চিকিৎসা শেষে সুস্থ হলে আবার কলেজে নিয়ে আসি। কিন্তু এ বিষয়ে উপাধ্যক্ষের রুমে গেলে তিনি কোন কথা না শুনেই বের হয়ে যান।

ক্ষোভ প্রকাশ করে আতউর রহমান বলেন, একটি ছাত্রীর শরীরে হাত দিয়ে আঘাত করার কোন আইন নেই। তাছাড়া মেয়েদের শরীরে কেন হাত দিবে। এতো বড় একটা অপরাধ করার পরও কলেজ কর্তৃপক্ষ কোন কথা শুনতে রাজি নয়। তারা পুরো বিষয়টা না শুনে চলে গেছে। এটা অভিভাবক হিসেবে দুঃখজনক। তাহলে মেয়েদের নিরাপত্তার কি থাকলো।

এদিকে ছাত্রীকে মারধরের ঘটনাটি অস্বীকার করে নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অধ্যাপক মো. দবিউর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, মারধরে কোন ঘটনা ঘটেনি। ছাত্রীটি আগে থেকেই অসুস্থ ছিলো।’

নারায়ণগঞ্জ মহিলা কলেজের সহকারি অধ্যাপক সোলায়মান খন্দকার ওরফে সায়মন ও অধ্যক্ষ বেদৌরা বিনতে হাবিবের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগ করলে তারা মোবাইল রিসিভ করেননি।


বিভাগ : শিক্ষাঙ্গন


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও

আরো খবর