হাজী মালেক স্কুলে কো-অপ্ট সদস্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৬:৪৩ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রবিবার

হাজী মালেক স্কুলে কো-অপ্ট সদস্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

বন্দর উপজেলায় হাজী আব্দুল মালেক উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির কো-অপ্ট সদস্য পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন শিক্ষানুরাগী মোঃ মশিউর রহমান জনি। শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত নির্বাচনে শূন্য পদে অন্য কোন প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় জনিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করে ম্যানেজিং কমিটি। এর পূর্বেও ২০১৭ থেকে ১৯ সাল পর্যন্ত উক্ত পদে প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজিং কমিটিতে ছিলেন তিনি।

এদিকে নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মশিউর রহমান জনি জানান, এ জয়ে প্রথমে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে শুকরিয়া জ্ঞাপন করি। এই দিনে আমি স্মরণ করি এই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা আমার বড় চাচা প্রয়াত এম এ মালেক সাহেবকে যিনি অত্র বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা। আমার বাবা প্রয়াত রমজান আলী যিনি দীর্ঘ ২০ বছর ধরে এ প্রতিষ্ঠানটির উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। তাদের উত্তরসূরী হিসেবে পূর্বেও আমি অত্র পদে বিদ্যালয়ের উন্নয়নে কাজ করে গেছি। এরই ধারাবাহিকতা ধরে রেখে ভবিষ্যতেও বিদ্যালয়ের উন্নয়নে কাজ করে যাবো ইনশাহ অল্লাহ।

তিনি এ বিজয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান, জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক আবুল জাহের, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, সাবেক সহ-সভাপতি আরাফাত রহমান জুম্মান, বন্দর থানা আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খান মাসুদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ওয়াহিদুজ্জামান নাদিম, স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল গণি, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঈনুল হোসেন বাপ্পীসহ কমিটির সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

প্রসঙ্গত, মশিউর রহমান জনির বড় চাচা প্রয়াত এম এ মালেক এর নামেই হাজী আব্দুল মালেক উচ্চ বিদ্যালয়ের নামকরণ করা হয়। তিনি অত্র বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং একজন শিক্ষানুরাগী ব্যক্তি ছিলেন।


বিভাগ : শিক্ষাঙ্গন


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও

আরো খবর