৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৪, বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর ২০১৭ , ১:৪৪ অপরাহ্ণ

সব শ্রেণির মানুষের জন্য ফুড ফ্যান্টাসি পার্ক ও রেস্টুরেন্ট


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:১২ পিএম, ৪ অক্টোবর ২০১৭ বুধবার


সব শ্রেণির মানুষের জন্য ফুড ফ্যান্টাসি পার্ক ও রেস্টুরেন্ট

নারায়ণগঞ্জের সকল শ্রেণিপেশার মানুষের কথা বিবেচনা করেই এখানে পার্ক ও রেস্টুরেন্ট করেছেন বলে জানিয়েছেন ফুড ফ্যান্টাসি কর্তৃপক্ষ। পার্কটিকে একজন বিত্তবান মানুষ যেমন পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসতে পারবেন ঠিক তেমনি একজন অল্প আয়ের মানুষও ১শ টাকা নিয়ে এসেও এখানে তার সন্তানকে কয়েকটি রাইড চরানো সহ তাকে নিয়ে ফুচকা খেয়ে যেতে পারবেন। আবার বিত্তবানরাও এখানে এসেছে ফুড ফ্যান্টাসিতে বুফে খাওয়া দাওয়া করতে পারবেন। কারো কথা বিশেষভাবে নয়, সকলের কথা ভেবেই আমরা ফুড ফ্যান্টাসি পার্ক ও রেস্টুরেন্টটি করেছি।

গেল মাসের (সেপ্টেম্বর) ২৭ তারিখের নারায়ণগঞ্জের ডিআইটিতে টোকিও প্লাজার পঞ্চম তলায় রেস্টুরেন্টটি চালু হয়। শুরু থেকেই নারায়ণগঞ্জ ও আশেপাশের জেলার মানুষগুলোর আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয় ফুড ফ্যান্টাসি। একই সাথে কাজ চলছে পার্ক জোনের, যেখানে বাচ্চাদের জন্য রয়েছে বিভিন্ন রাইডের ব্যবস্থা। পঞ্চম তলায় ৬ হাজার স্কয়ার ফিটের রেস্টুরেন্টের সাথে রয়েছে পঞ্চম তলার ৬ হাজার স্কয়ার ফিটের পার্ক।

পার্কটির প্রবেশ মূল্য রাখা হয়েছে ২৫টাকা। একই সাথে প্রতিটি রাইডের মূল্যও সংযোজন করা হয়েছে ২৫ টাকা। তবে যারা ফুড ফ্যান্টাসিতে খাবেন তাদেরকে খাবারের উপর ভিত্তি করে পার্কের রাইডের টোকেন দেয়া হবে।

ফুড ফ্যান্টাসির পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল সালাম সিজু নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, আমি যখন ইংল্যান্ড থেকেছি তখন দেখেছি এরকম বাফেট খাবারের ব্যবস্থা। তখন থেকেই আমি চিন্তা করতাম আমাদের নারায়ণগঞ্জের সকলের জন্য এরকম আয়োজনের। আমি যখন চা বাগানে কাজ করতাম তখন থেকেই আমি ভেবেছি আমার নারায়ণগঞ্জের তরুণদের জন্য কিছু করার। আমি নারায়ণগঞ্জের হলমার্ক এনেছি তখন অনেকেই বলেছিল যে হলমার্ক এখানে চলবেনা। অনেকেই ভয়ে এখনো দামের কথা চিন্তা করে হলমার্কে প্রবেশ করেননা। তবে আমি সফল হয়েছি।

তিনি বলেন, ইংল্যান্ডে আমি দেখেছি ইনডোর পার্ক। আমাদের নারায়ণগঞ্জে এখন বাইরের পার্ক আছে যেমন চৌরঙ্গী পার্ক, নম পার্ক কিন্তু ইনডোর পার্ক নেই। আমি একটি পার্কের উদ্যোগ নিয়েছি কিন্তু আমার অর্থনৈতিক অবস্থা এরকম না যে আমি বাইরে একটি পার্ক দিতে পারবো। বাইরে একটি পার্কের জন্য কয়েক কোটি টাকার প্রয়োজন হয় কিন্তু আমার ইচ্ছা থাকলেও এত টাকা নেই তাই আমি ভাবলাম নারায়ণগঞ্জে একটি ইনডোর পার্ক দেয়ার। সে চিন্তা থেকেই এখানে পার্ক করছি।

তিনি বলেন, ড্রিম পার্ক করেছিলাম আমি। সেখানে এক সময় এমন অবস্থা হয়েছিল যে আমরা গেট বন্ধ করে লোক ঢুকাতাম। কারণ পার্কটি ফিলাপ হয়ে যেত। পরে একটি অভিজ্ঞতা থেকে আমি মুন্সিগঞ্জেও একটি পার্ক করি কিন্তু সেখানে স্থান নির্ধারনে ভুল হয়ার পরও পার্কটি দুই বছর চলে। এখন সকল অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এখানে পার্কটি করছি। পার্কে ১০টাকার কফি থেকে শুরু করে ফুচকা, চটপটিসহ বিভিন্ন খাবারের আইটেম, আইসক্রিম সকল কিছুই থাকবে। এখানে পুর্নাঙ্গ বিনোদনের ব্যবস্থা করা হবে, সাথে খাবারেরও। চাহিদা অনুযায়ী সকল খাবারের ব্যবস্থা রয়েছে এখানে।

সিজু বলেন, পার্কে রয়েছে নামাজের জন্য আলাদা প্রেয়ার জোন, রয়েছে কনফারেন্স রুম, থাকছে অত্যাধুনিক অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা, নিরাপত্তা ব্যবস্থা সহ সার্বক্ষনিক বিদ্যুতের জন্য জেনারেটরের ব্যবস্থা। মোটকথা নারায়ণগঞ্জের সকল মানুষ আধুনিকতার সকল ছোয়া এখানে পাবেন। পরিবেশ শতভাগ সুন্দর থাকার নিশ্চয়তাও দিচ্ছি আমরা।

তিনি বলেন, আমরা নারায়ণগঞ্জবাসীর কথা মাথায় রেখে এরকম একটি উদ্যোগ গ্রহণ করেছি যেন আমাদের ছেলেমেয়েরা বলতে পারে ঢাকা বা বিশ্বের অন্য দেশে যেমন এরকম রয়েছে আমাদের নারায়ণগঞ্জেও সব রয়েছে। আমরা মাত্র শুরু করেছি, আমাদের ভুল ত্রুটিকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখে আমাদেরকে সামনের দিকে আগাতে উৎসাহ দিতে নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রতি আমাদের আহবান থাকবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ