৩ মাঘ ১৪২৪, মঙ্গলবার ১৬ জানুয়ারি ২০১৮ , ১:৫৪ অপরাহ্ণ

শহরে প্রতারণার ভয়ংকর ফাঁদ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১০:০৩ পিএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ সোমবার | আপডেট: ০৪:০৩ পিএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ সোমবার


শহরে প্রতারণার ভয়ংকর ফাঁদ

নারায়ণগঞ্জ শহরে বেড়ে গেছে নানা ধরনের প্রতারণা। বিভিন্ন কৌশলে এক শ্রেণির মানুষ নানা ধরনের লোভ দেখিয়ে প্রতারণায় হাতিয়ে নিচ্ছে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, মোবাইল সহ নানা ধরনের জিনিসপত্র। আর প্রতারকেরাও আশ্রয় নিচ্ছে নানা ধরনের ছলনার। কেউ কখনো বলেন তারা বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছেন। কেউ বা এসে খেতে পারছেন না। কেউ বা আবার ঠিকানা হারিয়ে ফেলেছেন। কেউবা আবার রিকশার মধ্যে পেয়েছেন প্রচুর স্বর্ণালংকার।

কেস স্টাডি-১
সুপ্তি বেগম তাঁর মেয়েকে নিয়ে ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ আসে। চাষাঢ়ায় বাসে নেমে মেয়েকে কোচিং সেন্টারে দিয়ে পায়ে হেঁটে খানপুরের বাসার দিকে রওনা দেন। পথিমধ্যে চাষাঢ়ায় বৈশাখী রেস্টুরেন্টের সামনে তিন যুবক গতিরোধ করে। বেশ করুণ কণ্ঠে জানান, তিনজনের বাড়ি গাইবান্ধা। তারা এক আত্মীয়কে খুঁজতে নারায়ণগঞ্জ আসে। এখন সেই আত্মীয়কে আর খুঁজে পাচ্ছেন না। কিন্তু দুপুরের খাবারের টাকাও নাই, বাড়ি ফেরার ভাড়াও নাই। এসব কথা বলে সুপ্তি বেগমের কৃপা নেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে সুপ্তি বেগমও তাদের প্রতি কৃপা দেখাতে গিয়ে অভিনয়ের সেই প্রতারকদের কথা শুনতে থাকেন। এক পর্যায়ে সুপ্তি বেগমের নাকের সামনে একটি রুমাল নিয়ে যায়। এরপর থেকেই কিছুটা ভাবলেশহীন হন সুপ্তি। তখন প্রতারক ৩ যুবক যা বলতে থাকেন তাই করতে থাকেন তিনি। এক পর্যায়ে দুই হাতে থাকা আড়াই ভরি ওজনের স্বর্ণের দুটি বালা খুলে দেন। পরে কিছ্ক্ষুণ এদিক সেদিক হাটাহাটির পর তিনি পুরোপুরি বুঝতে পারেন প্রতারণার শিকার। ততক্ষণে ওই প্রতারক চক্র চম্পট।

কেস স্টাডি-২
শহরের আমলাপাড়া এলাকাতে বসবাস করেন সুবিদ আলী। ব্যবসা করেন টানবাজারের। সম্প্রতি তিনি রিকশায় করে টানবাজার থেকে আমলাপাড়ার বাসায় ফেরার পথে ওই রিকশাওয়ালা জানান চমকপ্রদ কাহিনী। বলেন, সকালে নাকি এক নারী তার রিকশায় উঠেছিল। যাওয়ার সময়ে একটি ব্যাগ রেখে গেছেন। সেখানে কিছু স্বর্ণের জিনিস আছে। সুবিদ আলীও লোভে পড়ে ওই ব্যাগটি দেখতে চান। রিকশাওয়ালা সিটের নিচ থেকে ব্যাগ বের করে সুবিদ আলীকে দেন। ভেতরে কিছু স্বর্ণের মত অলংকার দেখে চমকে উঠেন তিনি। রিকশাওয়ালা জানান, এসব স্বর্ণ তিনি বিক্রি করতে গেলে ঝামেলা হবে, কোথায় থেকে পেয়েছে দোকানদার জানতে চাইবে। তাই তিনি এসব অল্প টাকায় কাউকে দিতে চান। লোভে পড়ে সুবিদ আলী ওই রিকশাওয়ালাকে ১০ হাজার টাকাও দেন। পরদিন তিনি কালীরবাজারে পরিচিত স্বর্ণের দোকানে নিয়ে যাওয়ার পর রীতিমত অসুস্থ হওয়ার উপক্রম সুবিদ আলীর। কারণ সবগুলো ছিল স্বর্ণ কালারের অলংকার। এগুলো আদৌ স্বর্ন না।

কেস স্টাডি-৩
শহরের দুই নং রেল গেট সৈয়দ আলী চেম্বারের সামনে থেকে সিএনজিতে করে মোক্তারপুর যাবেন সাগর ও সাবরিনা দম্পত্তি। ওই সময়ে অপেক্ষামান এ দুইজনের সামনে হাজির এক ব্যক্তি। হাতে তিন তাসের খেলা দেখাতে দেখাতে আসক্ত করে ফেলেন তাদের। পরে কৌশলে হাতিয়ে নেন ৩ হাজার টাকা ও মোবাইল।

কেস স্টাডি-৪
শহরের বিভিন্ন রেস্টুরেন্টের খাবারের মেনু সম্বলিত কিছু পেপারস নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন ৪ থেকে ৫জন যুবক যাদের সাই টাই পরিচিত। পায়ে চকচকে জুতা। গায়ে নতুন জামা। বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছে গিয়ে বলে বেড়াচ্ছে তারা ওমুক রেস্টুরেন্ট থেকে এসেছেন। ওই রেস্টুরেন্ট কিছু প্যাকেজ ছেড়েছে খাবারের। কমদামে এসব প্যাকেজ এখন বুকিং দিলে যে কোন সময়ে গিয়ে রেস্টুরেন্টে গিয়ে আহার করতে পারবে। মেনুর মধ্যেও দেওয়া নানা পদের খাবারের ছবি দামও অনেক সস্তা। আল্লামা ইকবাল রোডের মোল্লা মাহফুজ ওই মেনুতে আকৃষ্ট হয়ে ১২শ টাকায় ৩জনের প্যাকেজের অর্ডার দেন। পরে শহরের ওই রেস্টুরেন্টে গিয়ে জানতে পারেন পুরোটাই ছিল প্রতারণার ফাঁদ।

কেস স্টাডি-৫
শহরের গ্রীন্ডলেজ ব্যাংক মোড়ে ২নারী কোলে এক শিশু। বিভিন্নজনের পথ আগলে দাঁড়াচ্ছে। ‘ভাই একটু শুনেন খুব বিপদে আছি ছেলেটা না খেয়ে আছি, আমরা রংপুর থেকে এসেছি।’ এ ধরনের কথা বলে লোকজনদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। ওই নারীদের কথা শুনে কিছুটা আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন গৃহবূধ হাবিবা আক্তার। তিনি ওই শিশুকে খাবার দেওয়ার জন্য ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে ২০ টাকা বের করেন। কিন্তু ওই নারীরাও আরো কথা বাড়িয়ে দিতে থাকে। এক পর্যায়ে রাস্তার সাইডে কিছুটা নিরব স্থানে নিয়ে আলাপ জমায়। এক পর্যায়ে সামনে একটি স্প্রে করার পর হাবিবা কিছুটা অচেতনের মত হয়ে পড়ে। মাথা ঘুরাচ্ছে ভেবে পাশের একটি দোকানে বসার চেষ্টা করেন। ততক্ষণে ব্যাগ নিয়ে উদাও ওই প্রতারক।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন স্থানে এভাবেই চলছে প্রতারণা। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিতে অনেকটা কৌশলেই সারছেন প্রতারকেরা।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ