২৮ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ১৩ নভেম্বর ২০১৮ , ৩:০২ পূর্বাহ্ণ

UMo

পানি যুদ্ধে দুর্বিষহ জনজীবন, জনপ্রতিনিধিরা নিশ্চুপ


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৩৯ পিএম, ২ জুন ২০১৮ শনিবার


পানি যুদ্ধে দুর্বিষহ জনজীবন, জনপ্রতিনিধিরা নিশ্চুপ

পানির অপর নাম জীবন হলে তা বিশুদ্ধ পানির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। কিন্তু ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বিশুদ্ধ পানির পবিবর্তে ময়লা-দুর্গন্ধযুক্ত পানি সরবরাহ করছে তাও আবার পরিমাণের তুলনায় অপ্রতুল। তাই জীবনযাপন যে কষ্টকর হয়ে উঠেছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। তবে সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে পানির বিশুদ্ধের মান ঠিক না করে উল্টো অপ্রতুল সরবরাহ থেকে কদাচিৎ পানি সরবরাহের ফলে চরম বিপাকে পড়েছে জনগণ। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদিনের পানি চাহিদা পূরণ করতে অন্যের বাড়ির বিকল্প উৎস থেকে পানি সংগ্রহ করতে রীতিমত যুদ্ধে অবতীর্ণ হতে হচ্ছে জনগণকে। তবে এই পানি যুদ্ধ কতদিন চলবে তার কোন কূল কিনারা না পেয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগীরা। অন্যদিকে জনপ্রতিনিধিরা এ ব্যাপারে অনেকটা নিরব ভূমিকা পালন করছে।

নারায়ণগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকা ও বন্দর উপজেলার অনেকগুলো স্থানে পানি সংকটের অবর্ণনীয় দুর্ভোগের চিত্র দেখা যায়। এদিকে ওয়াসার পানির স্বাভাবিক সরবরাহ না দিয়ে উল্টো বিল আদায়ে গ্রহকদের চাপ দেয়াকে কেন্দ্র করে গ্রাহকেরা ক্ষোভে ফুঁসে উঠছে। গ্রহকরা বলছেন, ‘বিল দিতে আমাদের কোন আপত্তি নেই; কিন্তু পানি সমস্যা সমাধান না হলে বিল দেয়ার প্রশ্নই উঠেনা।

এদিকে পানি সংগ্রহের যুদ্ধে অবতীর্ণ হওয়া ছালেহনগর এলাকার বাসেদ মিয়া বলেন, ‘ওয়াসার পানি নেই। তাই সকাল থেকে অন্যের বাড়ি থেকে পানি সংগ্রহ করতে সিরিয়ালে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। রোজা রেখে পানি টেনে নেয়াটা খুবই কষ্টকর ব্যাপার। আর অন্যের বাড়ি থেকে পানি সংগ্রহ করতে হলে নানান চড়াই-উতরাই পার করে পানি আনতে হয়। তাও যদি নিত্যদিন এই পানি সংগ্রহে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে হয় তাহলে এই অবর্ণনীয় দুর্ভোগের কথা বলে বোঝানো যাবেনা।’

জানা গেছে, ‘ওয়াসার পানি সংকটের কারণে দীর্ঘদিন করে নগরবাসী মানববন্ধন সহ নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে। অন্যদিকে ওয়াসা পানি সংকট সহ নানা সমস্যা দিন দিন আরো তীব্র হচ্ছে। এর এক পর্যায়ে ওয়াসার পানি স্বল্পতা এখন প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে বললেই চলে। এতে করে পানি সরবরাহ কমে গিয়ে অনেক স্থানে একেবারেই পাচ্ছেনা। এতে করে নগরবাসী বিকল্প উৎস থেকে পানি সংগ্রহ করতে নানা বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছে। এদিকে ওয়াসার পানির বকেয়া বিল পরিশোধ করতে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ মাইকিং সহ গ্রাহকদের সাথে যোগাযোগ করে বিল আদায়ে চাপ প্রয়োগ করছে।

এতে গ্রাহকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলছে, ‘বছরের পর বছর ময়লা দুর্গন্ধযুক্ত পানি সরবরাহ করে বিল আদায়ের নামে জনগণের পকেট কেটেছে। কিন্তু এখনতো পানি সরবরাহ একেবারে বন্ধ হয়ে গেছে। তাহলে এখন আবার কিসের বিল। আগে পানি সমস্যা সমাধান করুক পরে বিল প্ররিশোধ করবো। পানি সমস্যা সমাধান না হলে বিল কেন দিব। এতোদিন অহেতুক বিল দিয়ে এসেছি। কিন্তু সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত বিল দিবনা।

গ্রাহকদের একটি সূত্র বলছে, ‘ওয়াসার পানি সংকট নিরসনে ওয়াসার কর্মকর্তারা দীর্ঘদিন আশার বানী শুনিয়ে আমাদের বোকা বানিয়ে আসছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছেনা। উল্টো সমস্যা আরো বেড়ে গিয়ে এখন পানি সরবরাহ একেবারে প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। অথচ ওয়াসার কর্মকর্তারা এখনো ফের আশার বানী শুনাচ্ছে। তাই প্রত্যেক এলাকাতে এলাকাতে পানির পাম্প স্থানের কোন বিকল্প ব্যবস্থা দেখছিন। কিন্তু এসব করতে জনপ্রতিনিধিদের এগিয়ে আসা উচিত। আর জনগণের দুঃখ-কষ্ট লাঘব করা তাদের দায়িত্ব এবং কর্তব্য। কিন্তু এখন পর্যন্ত এই দুর্ভোগ নিরসনে কেউ এগিয়ে আসছেনা। যদিও এর আগে এমপি সেলিম ওসমান ওয়াসার নির্বাহীকে কড়া নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু তা আর ফলপ্রসু হয়নি। এরপর থেকে এ ব্যাপারে আর কোন অগ্রগতি দেখা যায়নি।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ