২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮ , ২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

rabbhaban

নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড

‘জীবন বাজি নিয়ে রিকশায় চড়েন ভাগ্যবান যাত্রী’


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:৫৫ পিএম, ৫ জুন ২০১৮ মঙ্গলবার


‘জীবন বাজি নিয়ে রিকশায় চড়েন ভাগ্যবান যাত্রী’

‘জীবন বাজি নিয়ে রিকশা চড়েন ভাগ্যবান সাধারণ যাত্রী। কারণ দ্বিগুন নয় তিনগুন ভাড়া সাধলেও কেউ যেতে চায় না এ রাস্তায়। বড় বড় গর্তে বাসেই উল্টে যাওয়ার উপক্রম। সেখানে রিকশা সিএনজি চলাচলের প্রশ্ন আসে না। গত পনের দিনে অগণিত নারী আর শিশু দুর্ঘটনা কবলিত হয়ে হাসপাতাল ও বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছে।’

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের আজগর পাম্পের সামনে থেকে চাঁদমারি রেললাইন পর্যন্ত রাস্তার বেহাল দশা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক এর নিজেস্ব আইডিতে কথাগুলো লিখেছেন সাংবাদিক মোস্তফা করিম। রাস্তাটি বিগত কয়েকমাস ধরে ভাঙাচোরা ও বড় বড় গর্ত।

তিনি আইডিতে আরো লিখেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাব থেকে চাঁদমারি রেললাইনের দূরত্ব কমবেশি ৫০০ ফিট। একে তো ভাঙা রাস্তা তার উপর বৃষ্টি। সাম্প্রতিক ভয়াবহ যানজটের প্রধান কারণ এখানকার এ ভাঙাচোরা রাস্তা। হাজার হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন হচ্ছে এই বাংলাদেশ। কিন্তু হাজার হাজার নারায়ণগঞ্জবাসীর সুবিধার্থে মাত্র ১ কোটি টাকা ব্যায় করে ৫০০ ফিট রাস্তায় আর সিসি ঢালাই করে মেরামত করে দেয়ার মত কোন জনপ্রতিনিধি বা শিল্পপতি নেই এই নারায়ণগঞ্জে।’

জানা গেছে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে পারস্পরিক দ্বন্দ্ব এ রাস্তা নির্মাণে প্রধান অন্তরায়। জনগণকে কষ্ট দিয়ে তারা যে রাজনৈতিক খেলায় মেতে উঠেছেন তার দ্রুত আবসান আশা করেন স্থানীয় সুধী মহল।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী অন্যতম প্রধান সড়ক এ ঢাকা নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড। সাইনবোর্ড থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের দৈর্ঘ্য আট কিলোমিটার। এর মধ্যে দুই কিলোমিটার সংস্কার হয়েছে বাকি অংশে হয়নি। বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। আর বৃষ্টি হলে সেইসব গর্তে পানি জমে থাকে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, এবিসি স্কুলের সামনে থেকে চাঁদমারী নতুন কোর্ট পর্যন্ত সড়কটি সংস্কার করা হলেও বাকি ছয় কিলোমিটার সংস্কার করা হয়নি। সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। চাষাঢ়া আজগর ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে এবিসি স্কুল পর্যন্ত এক কিলোমিটারের অবস্থা বেশি খারাপ। ভাঙা সড়কে সিএনজিচালিতঅটোরিকশা ও আটোরিকশা ও রিকশা দুর্ঘটনায় পড়ছে। ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে যাত্রীদের। সম্প্রতি সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর রাস্তার ভাঙা অংশে বালু ও খোয়া ফেলে। তবে কাজ হচ্ছে না। 

সওজের একটি সূত্র জানায় দেরি করে শুরু করায় বর্ষার আগে সংস্কার কাজ শেষ করা যায়নি। 

নারায়ণগঞ্জ ট্রাফিক পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার আব্দর রশিদ সাংবাদিকদের বলেন, সড়কটিতে অসংখ্য গর্ত। গর্তের কারণে গাড়িগুলো ধীরগতিতে চলাচল করে। সৃষ্টি হয় যানজটের।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এএফএম এহতেশামুল হক সাংবাদিকদের বলেন, যানজটের কারণে ড্রেন কাজে দেরি হচ্ছে। কয়েকদিনের মধ্যে নালা নির্মাণের কাজ শেষ হবে।

গত জানুয়ারিতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড সংস্কারে দরপত্র আহবান করলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ১৮ কোটি ১৪ লাখ টাকায় গত ৬ মার্চ চুক্তি হয় সওজের। গত আড়াই মাসে সড়কটির কিছু অংশের ওভার লে সম্পন্ন হলেও বর্তমানে তা বন্ধ আছে।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স হাইটেক ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেডের মালিক মো. জুলফিকার হোসেন মাসুদ রানা সাংবাদিকদের জানান, নালা নির্মাণের কাজ শেষ না হলে সড়ক সংস্কার সম্ভব হবে না।

তবে সওজের নারায়ণগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আলি উল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, সিটি করপোরেশনের নালা নির্মাণ কাজের জন্য যানজট বেড়েছে। তবে খুব শিগগির সংযুক্তত সড়কের সংস্কার কাজ আবার শুরু হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ