অঘোষিত ‘ডন’ আলমাছ

৫ ভাদ্র ১৪২৫, সোমবার ২০ আগস্ট ২০১৮ , ৩:১৪ অপরাহ্ণ

অঘোষিত ‘ডন’ আলমাছ


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৮:০৫ পিএম, ২৭ জুন ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০২:০৫ পিএম, ২৭ জুন ২০১৮ বুধবার


অঘোষিত ‘ডন’ আলমাছ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার মুড়াপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। এরই মধ্যে ছাত্রলীগ নেতা হাসান মাহমুদ রুবেল হত্যা মামলার প্রধান আসামি হয়েছেন তিনি।

এদিকে একের পর এক প্রাণনাশের হুমকিতে এরই মধ্যে রুবেল হত্যা মামলার বাদী মোমেন মিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

এলাকাবাসী বলছে, মাদক কারবারে বাধা দেওয়াকে কেন্দ্র করে গত ২৭ মে রাতে রূপগঞ্জের নিজ বাড়িতে নির্মমভাবে খুন হন মুড়াপাড়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ শাখা ছাত্রলীগের নবনির্বাচিত সাংগঠনিক সম্পাদক মেধাবী ছাত্রনেতা রুবেল। ওই মামলার প্রধান আসামি আলমাছ।

জানা গেছে, সিনেমার ডনদের মতোই আলমাছের পোশাক আশাক ও চলন-বলন। চলাফেরা করেন চারজন অস্ত্রধারী বডিগার্ড নিয়ে। সব সময়ই তিনি সরকারি দলের সমর্থক। শিল্পপতি রাসেল ভূইয়া হত্যা মামলায় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের রায়ে তার ফাঁসির আদেশ হয়। তবে উচ্চ আদালতে আপিল করে মামলায় খালাস পেয়ে কিছু সময়ের জন্য আড়ালে চলে যান।

মুড়াপাড়া অঞ্চলে শিল্পকারখানায় চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ, অবৈধ অস্ত্র ব্যবসা, মানুষের জমি দখল, জমি দখল করে নিজের নামে মাছের খামার তৈরি, কৃষিজমির মাটি ইটভাটায় বিক্রিসহ এমন কোনো অপকর্ম নেই যা আলমাছ বাহিনীর লোকেরা করছেন না।

জানা গেছে, প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান জামাল হাজির ছেলে মুড়াপাড়া কলেজের সাবেক ভিপি খালেদ বিন জামালের হাত ধরে নব্বইয়ের দশকে আলমাছের উত্থান ঘটে। ২০০০ সালে দিনদুপুরে রাসেল পার্কের ভিতরে আলমাছ ও তার সহযোগীরা প্রকাশ্যে হত্যা করে বিএনপি নেতা ও শিল্পপতি রাসেল ভূইয়াকে। সেই মামলায় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের রায়ে তার ফাঁসির আদেশ হলে উচ্চ আদালতে আপিল করেন। পরে মামলায় খালাস পেয়ে কিছুটা আড়ালে চলে যান। গত পৌর নির্বাচনের আগে নিজের স্ত্রীকে প্রার্থী করাকে কেন্দ্র করে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান ভূইয়ার সঙ্গে এমপি গোলাম দস্তগীর গাজীর বিরোধ দেখা দেয়।

মুড়াপাড়া ইউনিয়ন সহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণ, জমি জবরদখল, ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় বিক্রিসহ নানা উপায়ে অর্থ সংগ্রহ করেছেন আলমাছের লোকজন।

স্থানীয়রা আরও জানায়, বর্তমানে আলমাছ বাহিনী মালিকানাধীন মাছুমাবাদ এলাকার ৭০ বিঘা জমির একটি দীঘি দখলের চেষ্টা করছে। এক হিন্দু লোককে দাতা বানিয়ে ভুয়া দলিল করে দীঘি দখলের চেষ্টায় রয়েছেন আলমাছ।

এ ছাড়া মুড়াপাড়ার নাসিংগল ও কর্নগোপ মৌজায় মাছিমপুর এলাকার কৃষক শাহ আলমের আড়াই বিঘা, সোনা মিয়ার আড়াই বিঘা, মোস্তফার ৪ বিঘা, খলিল মিয়ার ২ বিঘা, ছালেকের ২ বিঘা, গফুর মিয়ার সোয়া বিঘা, আসলামের ২ বিঘা, আয়নালের ৩ বিঘা, মাহমুদের সোয়া ২ বিঘা, আবু তাহেরের ১ বিঘা, মনির উদ্দির দেড় বিঘা, রিয়াজউদ্দির ১ বিঘা, ছহুল উদ্দিনের ১ বিঘা, খুরছু মিয়ার ১ বিঘা, স্বপন চৌধুরীর ১ বিঘাসহ ৭০ কৃষকের প্রায় ২৫ একর কৃষী জমি দখলের অভিযোগ আছে।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ আলমাছ বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সঠিক নয়। সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমার উত্থান ঠেকাতে একটি মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।’

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ