৮ কার্তিক ১৪২৫, বুধবার ২৪ অক্টোবর ২০১৮ , ৭:৫০ পূর্বাহ্ণ

UMo

নাঈম ভূইয়ার নাবিল এগ্রো


রূপগঞ্জ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৫:১৯ পিএম, ৬ আগস্ট ২০১৮ সোমবার


নাঈম ভূইয়ার নাবিল এগ্রো

মানুষ চাইলেই কি না হয়। কিংবা কি না করা যায়। অসম্ভবকে সম্ভব করা মোটেও কঠিন কিছু নয়। তবে কঠিন কাজটিও আপনার জন্য সহজ হয়ে যাবে যখন আপনার ভেতর ইচ্ছাশক্তি কাজ করবে। যদি আপনার ভেতর অদম্য স্পৃহা থাকে, যদি আপনি নিজের ভেতর লালন করেন সততা অথবা আপনি যদি পরিশ্রমী হন তাহলে সাফল্য আপনার হাতের মুঠোয় ধরা দিতে বাধ্য। যেমনটা ধরা দিয়েছে নাঈম ভূঁইয়া’র বেলায়। এই তরুণ উদ্যোক্তা দেখিয়ে দিয়েছেন অজেয়কে কিভাবে জয় করা যা। নাঈম ভূঁইয়া নিঃসন্দেহে তরুণ উদ্যোক্তাদের একজন আদর্শ মডেল হতে পারেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানার যাত্রামুড়া এলাকার এই তরুণ গড়ে তুলেছেন বিশাল গরুর খামার। যে খামারের সাথে তুলনা চলতে পারে অস্ট্রেলিয়া কিংবা নিউজিল্যান্ডের কোনো খামারের।

২০০৮ সালে প্রায় শূন্য থেকে শুরু করা নাঈম ভূঁইয়া নিজেকে এক বড় উদাহরণ হিসেবে তৈরী করেছেন। ‘নাবিল এগ্রো’ নামের তার খামারটিতে রয়েছে হাজারো গরু। যে গরুকে দেখলেই আপনার কাছে একটু অন্যরকম মনে হবে। বেশ হৃষ্টপুষ্ট। কোনো রকম ওষুধের ব্যবহার ছাড়াই সম্পূর্ণ প্রাকৃতিকভাবে গরুগুলোকে বড় করছেন তিনি। ফলে নাঈম ভূঁইয়া’র খামারের গরুর মাংস বেশ সুস্বাদু।

কোরবানীর সময় এলে কিংবা বিভিন্ন উৎসব পার্বণে নাঈম ভূঁইয়া’র খামারের গরুর চাহিদা বেড়ে যায়। এখান থেকে গরু কিনে নিয়ে যান অনেকেই। এখানে শুধু দেশীয় গরু নয়, আমেরিকার গ্রাহামা জাতের গরু থেকে বিশ্বের নানা জাতের গরু এখানে পাওয়া যায়। নাঈম ভূঁইয়া জানালেন, ‘কঠোর পরিশ্রম আর সততা থাকলে স্বপ্নপূরণ সম্ভব। আমি সাহস নিয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। অক্লান্ত পরিশ্রম করেছি। ফলে আমার সাফল্য এসেছে। গত এক দশকের পরিশ্রমে আজ আমি বড় লাভের মুখ দেখেছি। আমাকে দেখে অনেক তরুণ আজকাল খামার করতে উদ্যোগী হচ্ছেন। অনেকেই এ বিষয়ে সংগে যোগাযোগ করছেন। আমি তাদেরকে যথাসম্ভব সাহায্য-সহযোগিতা করার চেষ্টা করে থাকি।’

‘নাবিল অগ্রো’তে শুধু গরু-ই যে বিক্রি হয় তা নয়, এখানকার গরুর দুধও খুব প্রসিদ্ধ। এখানে প্রতিদিন হাজার লিটার দুধ উৎপন্ন হচ্ছে। দেশের শীর্ষস্থানীয় দুগ্ধ কোম্পানী নাবিল এগ্রো’র দুধ কিনে নিয়ে যাচ্ছে। এ খামারের জন্য নাঈম ভূঁইয়া সরকারীভাবে পুরস্কৃতও হয়েছেন।

নাঈম ভূঁইয়া গরুর খামার ছাড়াও গড়ে তুলেছেন বিশাল ফল গাছের বাগান। কোন্ ফলের গাছ নেই এখানে! খুব যতœ করে এগুলো রোপন করেছেন নাঈম। নাবিল এগ্রো’তে আছে মাছের খামারও। বেশ কয়েকটি মাছের খামার গড়ে তুলেছেন তিনি। নাবিল এগ্রো’র খামার এবং বাগান দেখতে দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন আসেন এখানে। নাঈম ভূঁইয়া সাদরে অভ্যর্থনা জানান তাদের এবং ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে দেখান তাদের খামার।

তাঁর লক্ষ্য আরো অনেক দূর যাওয়া। দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশের দিগন্তেও নিজের স্বপ্ন ছড়িয়ে দিতে চান তিনি। এরই মধ্যে লক্ষ্য পূরনের পথে অনেক দূর এগিয়ে গেছেন। শুধু গরুর খামারেই সীমাবন্ধ থাকতে চাননা তিনি। বেকার তরুনদের স্বনির্ভর করতে আরো কিছু প্রজেক্ট খোলার স্বপ্ন রয়েছে তাঁর।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ