৬ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, মঙ্গলবার ২০ নভেম্বর ২০১৮ , ৬:২৩ অপরাহ্ণ

rabbhaban

নারায়ণগঞ্জের দুটি আসনে হতে পারে ইভিএমে ভোট


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:২৭ পিএম, ৬ নভেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার


নারায়ণগঞ্জের দুটি আসনে হতে পারে ইভিএমে ভোট

নারায়ণগঞ্জের দুটি সংসদীয় আসনে হতে পারে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর ব্যবহার। এ বিষয়ে কোনো নির্দেশনা অদ্যাবধি না আসলেও গেজেট জারির পরে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে বলে ইসি সূত্র জানিয়েছে। বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জের দু’টি সংসদীয় আসন যেখানে ইতিমধ্যে ভোটারদের মধ্যে স্মার্ট পরিচয়পত্র বিতরণ করা হয়েছে ওই দু’টি আসনে ইভিএমের ব্যবহার হতে পারে বলে সম্ভাবনা রয়েছে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২৫ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২৭টি ওয়ার্ডের পৌনে পাঁচ লাখ ভোটারের মধ্যে জাতীয় পরিচয়পত্র বা এনআইডির উন্নত প্রযুক্তি নির্ভর স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা। পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার ৭টি ইউনিয়ন ও বন্দর উপজেলার আওতাধীন ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকাতেও স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনটি ফতুল্লা থানার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন নাসিকের ১০টি ওয়ার্ড এলাকা নিয়ে গঠিত। ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৬ লক্ষাধিক।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর) আসনটি সদর থানাধীন নাসিকের ৮টি ওয়ার্ড এবং সদর উপজেলার গোগনগর ও আলীরটেক ইউনিয়ন পরিষদ এবং বন্দরে নাসিকের ৯টি ওয়ার্ড এবং বন্দর উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকা গিয়ে গঠিত। ভোটার সংখ্যা হচ্ছে ৪ লক্ষাধিক।

জানা গেছে, অধ্যাদেশ জারির চার দিনের মাথায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) বিধিমালা চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন। এখন আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে তা গেজেট আকারে জারি করবে ইসি সচিবালয়। ৪ নভেম্বরের কমিশন ৩৮ তম মুলতবি সভায় ইভিএম বিধিমালা চূড়ান্ত করেছে বলে জানিয়েছেন ইসির যুগ্ম সচিব এস এম আসাদুজ্জামান। স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে ইভিএম চালুর ৮ বছর পর প্রথমবারের মতো সংসদ নির্বাচনে এ প্রযুক্তি ব্যবহার হবে। ২০১০ সালের জুন মাসে স্বল্প পরিসরে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে ইভিএম চালু হয়। ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনেও কয়েকটি ওয়ার্ডে ইভিএম ব্যবহার করা হয়। ২০১৫ সালের এসে ওই ইভিএম বন্ধ হয়ে যায়।পরবর্তীতে ডিজিটালাইজড সুবিধা সংবলিত নতুন ইভিএম তৈরি করে ইসি। ২০১৬ সালে রংপুর সিটি নির্বাচনে তা চালু হয়।এর দু’বছরের মাথায় সংসদে নতুন প্রযুক্তিটি চালু হচ্ছে। ‘জাতীয় সংসদ নির্বাচন ইভিএম বিধিমালা ২০১৮’এ রিটার্নিং অফিসার, প্রিসাইডিং অফিসার, ভোট গণনা, ফল একীকরণসহ নানা বিষয়ে উল্লেখ রয়েছে।

নির্বাচন কমিশন বলছে, আইনি ভিত্তি পাওয়ার পর স্বল্প পরিসরে এ প্রযুক্তি ব্যবহার হবে। কটি কেন্দ্রে তা ব্যবহার করা হবে তা কমিশনই চূড়ান্ত করবে। দ্বৈবচয়ন পদ্ধতিতে এসব কেন্দ্র বাছাই করা হবে বলে ইতিমধ্যে জানিয়েছেন সিইসি।

এ সপ্তাহের মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচনর তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে। সিইসির জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে ভোটের তারিখ ও ইভিএম নিয়ে বিস্তারিত থাকবে বলে জানিয়েছেন ইসি কর্মকর্তারা।

এদিকে নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, যেসকল এলাকায় স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হয়েছে ওইসকল নির্বাচনী এলাকাগুলো ইভিএম ব্যবহারের চিন্তাভাবনা রয়েছে নির্বাচন কমিশনের। আর সেই আলোকে নারায়ণগঞ্জের দু’টি সংসদীয় আসনেও ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট হতে পারে বলে সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ নারায়ণগঞ্জ-৪ ও নারায়ণগঞ্জ-৫ এই দু’টি সংসদীয় আসনে ইতিমধ্যে স্মার্টকার্ড বিতরণ সম্পন্ন হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার আতাউর রহমান জানান, এখনো নির্বাচন কমিশনের এ বিষয়ে কোন নির্দেশনা আসেনি। আর আদৌ ইভিএম এর ব্যবহার হবে কিনা সেটাও এখনো নিশ্চিত হয়নি। তবে তফসিল ঘোষণার পরে এ বিষয়ে জানা যাবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

ফিচার -এর সর্বশেষ