নারায়ণগঞ্জের বাজারে দক্ষিণ আমেরিকার সুইপার ফিশ

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৩৭ পিএম, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার

নারায়ণগঞ্জের বাজারে দক্ষিণ আমেরিকার সুইপার ফিশ

নারায়ণগঞ্জ শহরে বড় মাছের বাজার ৫নং ঘাট। এই বাজারে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মাছ আসে। যা ক্রেতারা আগ্রহের সঙ্গে কিনে থাকেন। শহর এবং শহরের বাইরে অনেক এলাকা থেকে ক্রেতারা এই বাজারে জড়ো হন মাছ কিনতে।

প্রতিদিন ভোর থেকে শতাধিক দোকানি মাছ নিয়ে বিক্রি করতে বসেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এই বাজার ছোট হয়ে আসে। বাজারে কিছু মাছ পাইকারী দরে বিক্রি হয়। যা শহরের বিভিন্ন স্থানের মাছের দোকানিরা ক্রেতা হয়ে কিনে নেন।

এই ৫ নং ঘাটে মাঝে মাঝে কিছু মাছ উঠে যা দেখতে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়ে। এমনি ঘটনা ঘটেছে সুইপার ফিশ নিয়ে। যা পশ্চিম আটলান্টিক মহাসাগর এবং ইন্দো প্যাসিফিক মহাসাগরে বসবাস করে থাকে। এ ছাড়া এই প্রজাতির মাছের বসবাস দেখা যায় জাপান ও অস্ট্রেলিয়ার আশপাশের এলাকায়। তবে নারায়ণগঞ্জে এর দেখা মিলে থাকে সেদিনের মত। উপস্থিত অনেকে এই মাছের বিভিন্ন নাম দিলেও উইকিপিডিয়ায় এ মাছটির নাম হলো ‘সুইপার ফিশ’।

মাছটির মাথার অংশ দেখতে অনেকটা টেপা মাছের মতো। মাছের পুরো শরীরে ডোরাকাটা দাগ ও সাদা-কালো ফোটায় পরিপূর্ণ। কালো রংয়ের শরীরে হলুদ রংয়ের ছাপ। মাছটির গায়ে ছোট ছোট কাটা রয়েছে। পিঠের ওপরে ও দুই পাশে রয়েছে আরো তিনটি বড় কাটা। এক ফুট লম্বাকৃতির মাছটির শরীরে কোনও আঁশ নেই, মুখটা বড়। মুখের মধ্যে রয়েছে ধারালো দাঁত। তবে এটি অনেকটা শৈল মাছের মতো।

হঠাৎ করে এ ধরনের অপরিচিত মাছ দেখে চমকে ওঠেন অনেক ক্রেতাই। মাছ বিক্রেতা এই মাছ বিক্রি করতে এনে খুবই বিরক্ত। তার মতে এই মাছ আগেও দেখেছি। পুকুর থেকে মাছ ধরতে গিয়ে এই দুইটি পেয়েছি। বিক্রি করতে এনেছি কেউ কিনছে না। উল্টো যে দেখে সেই ছবি তুলছে।

পাশের বিক্রেতা বলে উঠলেন, যতগুলো মানুষ এই মাছের ছবি তুলেছেন তারা যদি ১০ টাকা করে দিতেন তাহলেই মাছের দাম উঠে যেত। অথচ কেউ নিচ্ছেও না দামও বলছে না।

মৎস্য কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এটা ‘সাকার মাছ’। মূলত এটা দক্ষিণ আমেরিকার মাছ। এক সময় এই মাছ বাংলাদেশে দেখা যেতো। মাঝখানে তার বিলুপ্তি ঘটে। আবার কিছুদিন ধরে এই মাছের দেখা মিলছে।

এরা আগাছা, জলজ পোকামাকড় ও বিভিন্ন ধরণের ছোট মাছ খেয়ে থাকে। ডোরা কাটা দাগ ওয়ালা এই মাছ প্রথম দেখে অনেকেই চমকে গিয়েছেন।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে এই মাছ এ্যাকুরিয়ামের শোভা বর্ধনের জন্যই আনা হয়েছিল এই দেশে। কিন্তু এখন সেটা আর এ্যাকুরিয়ামের মধ্যে সীমাবদ্ধ নাই। প্রায়ই দেখা মিলছে জেলেদের জালে।

বন্য প্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান সিতেশ রঞ্জন দেব বলেন, সাকার মাছ বিদেশি জাতের সামুদ্রিক মাছ। এই প্রজাতির মাছগুলোকে সাধারণত অ্যাকোরিয়ামে পালন করা হয়। বিক্রেতাদের কাছ থেকে কিনে তা বাড়ির অ্যাকোরিয়ামে রাখেন অনেকে। সাধারণত শেওলা ও পোকামাকড় খেয়ে জীবন ধারণ করে সাকার মাছ। তবে এ জাতীয় মাছ পুকুরে চাষাবাদ কিংবা খাওয়ার উপযোগী নয় বলে জানান তিনি।


বিভাগ : ফিচার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও