ঝুঁকিপূর্ণ হাকিম মার্কেট, যে কোন সময়ে ধসের আশংকা

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৪ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রবিবার

ঝুঁকিপূর্ণ হাকিম মার্কেট, যে কোন সময়ে ধসের আশংকা

নারায়ণগঞ্জের দেওভোগে কাঠের দোতলা নামে নামে পরিচিত হাকিম মার্কেট ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণার পরেও প্রশাসন ও নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নিদের্শনা অমান্য করে দোকান পরিচালনা করে যাচ্ছে ব্যবসায়ীরা। এতে যে কোন সময়ের ভবনগুলো ধসে পড়ে ভয়াবহ ক্ষতিগ্রস্ত আশংকা করেছে এলাকাবাসী। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট এমপি সেলিম ওসমান, নাসিক মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেছে।

জানা যায়, ১৯৭১ সালের যুদ্ধ চলকালীন নারায়ণগঞ্জের দেওভোগে আব্দুর হাকিম কন্ট্রাক্টরের করা কাঠের দোতলায় আগুন দিয়েছিলো পাক হানাদার বাহিনী। তারপর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়া পর আগুন ক্ষতিগ্রস্ত এই কাঠের দোতলা ভেঙ্গে ৩৫ শতাংশ জমির উপরে উপরে ৮টি ভবন নির্মাণ করা হয়। এ সময় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকারী রেডিমেট জামা কাপড় ক্রয়ে জমজমাট মার্কেট হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

২০০৭ সালে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা শেষে ভবনগুলো ঝুকিপূর্ণ ঘোষণা করে নোটিশ দেয়া সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়। এর পর হাকিম মার্কেটের সামনে অংশ ভেঙ্গে বহুতল ভবন করা হয়। কিন্তু পিছনের বাকি আরো ৭টি জরাজীর্ণ ভবন ভাঙ্গেনি হাকিম মার্কেট কর্তৃপক্ষ।

প্রায় ৩৫ শতাংশ উপরে কাঠের দোতলা নির্মাণ করেন দেওভোগে আব্দুর হাকিম কন্ট্রাক্টর। তিনি ১৯৭০ সালে মারা গেলে এই দায়িত্ব নেয় তার কন্যা ও ছেলে সন্তানেরা। এরপর ১৯৭১ সালে যুদ্ধ চলাচালে আগুন দেয়া হয়। এতে কাঠের দোতলা পুরো নষ্ট হয়ে যায়। এরপর হাকিম কন্ট্রাক্টরের সন্তানরা একে একে ৮টি ভবন নির্মাণ করা হয়।

রোববার ১৫ সেপ্টেম্বরে সরেজমিনে হাকিম মার্কেটে দেখা গেছে, হাকিম মার্কেটে জরাজীর্ণ অবস্থা। ৭টি ভবনের মিলিত অংশগুলো ভেঙ্গে ফেটে গেছে। সিড়িগুলো যেন ভয়ংকর অবস্থা, কিছু স্থানে সিড়িতে সংস্কার করেছে দোকানদের সহযোগিতায়। দুই তলা ময়লা যেন ডেঙ্গু মশা লাভা! দুই তলা রাস্তা দিক গেইট দিয়ে আটকিয়ে রেখেছে। সেখানে ছাদ থেকে ইট বালু ভেঙ্গে ভেঙ্গে পড়ছে। প্রায় শতাধিক দোকান রয়েছে পুরো হাকিম মার্কেটে। বাহিরে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নোটিশ বোর্ড। বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের অধিদপ্তরের ভবনটি অগ্নি ঝুঁকিপূর্ণ নোটিশ বোর্ড সাটিয়ে দেয়া হয়েছে। এখানে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন জেলার থেকে আগত পাইকারী ব্যবসায়ীরা রেডিমেট জামা কাপড় ক্রয়ের জন্য আসেন। কিন্তু এখানে যে কোন সময় ভবন ধ্বসে আশংকায় প্রতিদিন দোকানদার ব্যবসা পরিচালনা করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দোকানদার জানান, ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ নোটিশ টানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ও ফায়ার সার্ভিস। কিন্তু মালিকপক্ষ এই ভবনটি না ভাঙ্গা কারণে আমরা ব্যবসা পরিচালনা করে যাচ্ছি। ভেঙ্গে দিলে অন্যত্র স্থানে ব্যবসা করবে সমস্যা নেই। কিন্তু মালিক পক্ষ সাথে কিছু দোকান মালিকের কথাবার্তা অমিল থাকায় ভবনটি ভাঙ্গতে পারছে না। কারণ এই মার্কেট ঘিরে রয়েছে, বহু বছরের রেডিমেট পাইকারী জামা কাপড় ব্যবসা। প্রশাসন যদি এতে ভেঙ্গে দেয় তাহলে কিছু করার নেই। ভবন মালিকের সাথে আমাদের আলোচনা হয়েছে আমরা রাজি, কিন্তু কিছু মালিকের সাথে মালিকপক্ষ মিল হলে সমস্যা দেখি না।

দুর্ঘটনা ঘটলে দায়িত্ব নিয়ে এই দোকানদার বলেন, দুর্ঘটনা ঘটতে পারে যে কোন সময়। কারণ প্রতিদিন দুই তলায় বড় বড় মেশিনের কাজ চলছে, বহু লোকজন চলাফেলা করে। দুর্ঘটনা ঘটলে মালিকপক্ষই স্বাভাবিক দোষী হবেন!

এদিকে হাকিম মার্কেটের মালিকপক্ষ থেকে নাম প্রকাশে অনুচ্ছিক একজন জানান, বহু বছরের এই ভবনগুলো ভাঙ্গার চেষ্টা চলছে। কিন্তু সকল দোকানদারদের সাথে আমাদের আলোচনা হয়েছে। কিছু ভাড়াটিয়া তাদের অযৌক্তিক প্রস্তাব তুলে ধরেছে, তা মেনে নেয়া যায় না। আমরা সকল মালিকপক্ষ প্রশাসন ও নাসিকের সহযোগিতা চাই। আমাদের মালিকপক্ষ ইচ্ছ, ৭টি ভবন একত্রে ভেঙ্গে একত্রে পুনরায় বহুতল ভবনের কাজ করা। কিন্তু কিছু অযৌক্তিক প্রস্তাবে এই সমস্যা সমাধান হচ্ছে না।

ঝুঁকিপূর্ণ হাকিম মার্কেট ভবন নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এহতেশামুল হক জানান, এই হাকিম মার্কেট ঝুঁকিপূর্ণ নিয়ে আমার নলেজ নেই, জেনে জানাবো।


বিভাগ : ফিচার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও