নারায়ণগঞ্জে ৯ দিনে পানিতে ডুবে ৪ জনের মৃত্যু

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৮ পিএম, ৯ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার

নারায়ণগঞ্জে ৯ দিনে পানিতে ডুবে ৪ জনের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জে বাড়ছে পানিতে ডুবে মৃত্যুর ঘটনা। সচেতনার অভাবে ও বেপরোয়া নৌ যান চলাচলের কারণে পানিতে ডুবে মরার ঘটনা ঘটছে। যথেষ্ট পরিমাণ সচেতনতা বৃদ্ধি ও নৌ যান চলাচলের ব্যাপারে কঠোর নীতিমালার কার্যকর করতে পারলে নৌ পথের দুর্ঘটনা অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব। তবে এসব নিয়ে যেন কারো মাথা ব্যাথা নেই। যেকারণে একের পর এক লাশের মিছিয়ে নতুন নতুন সংখ্যা যুক্ত হচ্ছে।

১ অক্টোবর থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া পানিতে ডুবির ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল। এ সপ্তাহে মোট ৩টি পানিতে ডুবির ঘটনায় ৩ জন মৃত্যুর বরণ করেছে।

২ অক্টোবর আড়াইহাজারে পানিতে ডুবে আফিব নামের দেড় বছরের একটি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার উপজেলার ব্রাক্ষন্দী ইউনিয়নের লস্করদী গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আফিব ওই গ্রামের সোহেল মিয়ার ছেলে।

জানা গেছে, শিশুর আফিব বিকাল ৪টায় বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজার পর বাড়ীর পাশের পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় সন্ধ্যা ৬টার দিকে স্বজনেরা উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। হাসপাতালের নিয়ে আসার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

৭ অক্টোবর নিখোঁজের তিন দিন পর স্কুল ছাত্র ইয়াছিনের (১৪) ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে নারায়ণগঞ্জ সদর থানাধীন সৈয়দপুর এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। ইয়াছিন স্থানীয় রেবতী মোহন পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেনীর ছাত্র এবং সিদ্ধিরগঞ্জস্থ আজিবপুর বাইন্নাপড়া এলাকার মোহম্মদ আলীর ছেলে।

এর আগে শনিবার দুপুরে বন্ধুদের সাথে গোসল করতে নেমে বাল্কহেডর ধাক্কায় ডুবে গিয়ে নিখোঁজ হয় স্কুল ছাত্র ইয়াছিন। পরিবারের লোকজন জানায়, শনিবার বেলা ১২টায় নদীতে বন্ধুদের সাথে সাঁতরে একটি চলমান বাল্কহেডে উঠতে গিয়ে ঐ বাল্কহেডের ধাক্কায় ডুবে যায় ইয়াছিন।

নিহত ইয়াছিনের ভাই মোঃ জীবন বলেন, শনিবার দুপুর ১২টায় আমার ভাই নিখোঁজ হলেও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরী দল পরদিন বিকাল ৪টায় ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়। তবে ২৪ ঘণ্টা পার হয়ে যাওয়ায় তারা উদ্ধার কাজ চালাবেনা জানিয়ে চলে যায়।

৪ অক্টোবর বন্দরে সোহাগ (১৫) নামে দিনমজুরের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। সোহাগ বন্দরের সালেহনগর এলাকার রিকশাচালক দিলু ওফে দুলু মিয়ার ছেলে। সে শহরের রেলস্টেশনস্থ সারঘাট এলাকার মনির হোসেনের ভাঙারী দোকানে কাজ করত।

এলাকাবাসী জানান, বন্দরের সালেহনগর এলাকার দেলুর ছেলে সোহাগ নারায়ণগঞ্জ সারঘাট এলাকার মনির হোসেনের ভাঙারী দোকানে কাজ করত। সে রেলস্টেশনের থাকত, বাড়ি আসত না। শুক্রবার ভাঙারী দোকান মালিক মনির হোসেন সোহাগের লাশ নিয়ে বন্দরের সালেহনগর এলাকায় দেলুর বাড়িতে আসে।

মনির এলাকাবাসীকে জানায়, নদীতে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা গেছে সোহাগ। ৪ অক্টোবর শুক্রবার বেলা ১২টায় খানপুর রেললাইনস্থ সরদারপাড়া এলাকার সুমন মিয়ার ছেলে সজিবের সাথে গোসল করতে শীতলক্ষা নদীতে যায়। সজীব জানায় গোসল করতে গিয়ে সোহাগ পানিতে ডুবে যায়। ২০ মিনিট পর পানি থেকে সোহাগের লাশ উদ্ধার করা হয়।

বন্দর উপজেলার চিড়ইপাড়া কলোনী এলাকায় বুধবার ৯ অক্টোবর দুপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শান্ত (৮) নামের মাদরাসা ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। নিহত মাদ্রাসা ছাত্র শান্ত চিড়াইপাড়া কলোনী এলাকার ফারুক মিয়ার একমাত্র ছেলে। সে কামতাল ডাক সমাজ কবরস্থান হাফেজিয়া মাদরাসার শিশু শ্রেণীর ছাত্র বলে জানা গেছে।

এলাকাবাসী জানান, নিহত মাদ্রাসা ছাত্র শান্তকে বাড়িতে রেখে পিতা ফারুক মিয়া ও মা সাথী বেগম দুইজন প্রতিদিনের মত বুধবার সকালে কাজে বের হয়। পিতা-মাতা বাড়িতে  না থাকায় শান্ত  একা সকলের অজান্তে বাড়ি পাশে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে ডুবে যায়। পরে অন্যান্য শিশুরা গোসল করতে নামলে শান্তকে পানির নিচে দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করে। এ সময় আশেপাশের লোকজন ছুটে এসে শান্তকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মূলত সচেতনার অভাবে পানিতে ডুবে মৃত্যুর সংখ্যা বড়ছে। এছাড়া নৌ পথে বেপরোয়া যান চলাচলের কারণেও নৌ দুর্ঘটনায় পানিতে ডুবে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। নৌ পথে দুর্ঘটনা এড়াতে নদীর উপর দিয়ে ঘন ঘন ব্রিজ সহ সংশ্লিষ্ট ব্যবস্থা করতে হবে যাতে করে নৌ পথের উপর নির্ভরশীল হতে না হয়। এর ফলে পানিতে ডুবে মৃত্যুর সংখ্যা একেবারে কমে আসবে।


বিভাগ : ফিচার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও