ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে ‘হানিফ বাংলাদেশী’

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:২৩ পিএম, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ সোমবার

ঘুষ-দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে ‘হানিফ বাংলাদেশী’

সমাজ-রাষ্ট্র সর্বত্রই যখন ঘুষ-দুর্নীতি আর নৈতিক অবক্ষয় জেকে ধরেছে। ঠিক সেই সময়ে প্রতিবাদ জানাতে ও এসবের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে অভিনব কায়দায় প্রতিবাদে নেমেছে মো. হানিফ নামে এক যুবক। ইতোমধ্যেই দেশের সবাই যাকে ‘হানিফ বাংলাদেশী’ নামে চিনে।

দেশের ৬৪ জেলা ঘুরে ঘুষখোর ও দুর্নীতিবাজদের উদ্দেশ্যে প্রতীকী লালকার্ড প্রদর্শন ও জেলা প্রশাসকদের স্মারকলিপি দিচ্ছেন। তাঁর এই অভিনব প্রতিবাদের অংশ হিসেবে ৬০তম জেলা হিসেবে নারায়ণগঞ্জে এসে প্রতিকী লালকার্ড প্রদর্শন ও নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়েছেন তিনি।

১৪ অক্টোবর মঙ্গলবার দুপুরে প্রতিবাদের বিষয় সংবলিত লেখা ব্যানার গলায় ঝুলিয়ে শহরের চাষাঢ়াস্থ শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে সাধারণ মানুষের মাঝে অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে লিফলেট বিতরণ করেন। এর আগে তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যারয়ে উপস্থিত হয়ে স্বারকলিপি জমা দেন। তবে জেলা প্রশাসক উপস্থিত না থাকায় ই-সেবার মাধ্যমে স্মারকলিপি দেন তিনি।

নোয়াখালী সদর উপজেলার মাইজদী এলাকার মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. হানিফ। তিনি স্ত্রী ও দ্ইু সন্তান নিয়ে জাহানাবাদ গ্রামে বসবাস করেন। গত ২ সেপ্টেম্বর সিলেট জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দেওয়ার মাধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু করেন তিনি। নিজের অর্থ ও বন্ধুদের সহযোগিতায় ৬০তম জেলা হিসেবে নারায়ণগঞ্জে এসেছেন। সর্বশেষ ঢাকার জেলা প্রশাসকের কাছে স্বারকলিপি দেওয়ার মধ্য দিয়ে অভিনব এই প্রতিবাদ যাত্রা শেষ করবেন।

এর আগে গত ১২ মার্চ  থেকে ১৪ এপ্রিল ভোটাধিকার ও নির্বাচনের সময় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া পর্যন্ত ১০০৪ কিলোমিটার একক পদযাত্রা করেন। গত ৬মে নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে পঁচা আপেল নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন তিনি। এছাড়া ২০১৪ সালে রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে জনবহুল এলাকায় গণশৌচাগার স্থাপনের দাবিতে প্রচারাভিযান চালান প্রতিবাদী হানিফ। একের পর এক ইতিবাচক কাজের জন্য অনেকে তাঁকে ‘হানিফ বাংলাদেশী’ নামে ডাকেন।

এ কাজে তাঁর স্ত্রীর সমর্থন কতটুকু এমন প্রশ্নে নিউজ নারায়ণগঞ্জকে হানিফ বলেন, যে দিন থেকে বুঝতে শিখেছি সেদিন থেকেই যত অন্যায় দেখতাম তার প্রতিবাদ করতাম। বিয়ের আগে থেকেই আমার স্ত্রী এ ব্যাপারে জানে। আমার এই কাজে তাঁর পূর্ণ সমর্থন আম পাই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে ‘হানিফ বাংলাদেশী’ বলেন, আমি কোনো সংগঠন চালাই না। সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত ভাবে আমি দেশের সমস্যাগুলো নিয়ে প্রতিবাদ করি। অনেকে আমাদে দেখে কটুক্তি করে। তবে অধিকাংশ মানুষ আমার কাজে সহমত প্রকাশ করে। আমি সবার থেকেই অনুপ্রাণিত হই। আমি আশা করি একদিন দেশের মানুষ একত্রিত হবে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেই দেশের পরিবর্তন আনবে।


বিভাগ : ফিচার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও