পাখির বিরল ভালবাসায় সিক্ত সেলিম

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৫ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০১৯ সোমবার

পাখির বিরল ভালবাসায় সিক্ত সেলিম

পাখির প্রতি ভালবাসার এক বিরল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছেন নারায়ণগঞ্জ শহরের থানা পুকুরপাড় এলাকার সেলিম মিয়া। সেই পাখির রাজ্যে প্রবেশ করতেই পাখিদের প্রতি বিরল ভালবাসার দৃশ্য চোখে পড়ে। প্রবেশ দ্বারের শুরুতে সানকনু জাতের পাখিগুলো সেলিম মিয়ার গালে, কপলে, ঠোটে ছোট ছোট ঠোকর বসিয়ে ভালবাসার পরশ বুলিয়ে দিচ্ছিল। তিনিও পাখিগুলোর ভালবাসার পরশ সাদরে গ্রহণ করছিলেন। অদ্ভুত এই আদর ভালবাসার খুনশুটিগুলো বলে বেঝানো সম্ভব নয়।

সেলিম মিয়া নিজ বাড়ির ছাদের পুরোটা অংশ জুড়ে তৈরি করেছেন পক্ষীশালা। দুটো ভবনের ছাদের উপরে খাচায় ও কলোনি করে তিনি পাখি পুষেন। মলুক্কান কাকাতুয়ার, ম্যান্ডারিন ডাক, চ্যাটারিং লরি, ব্ল্যাক ক্যাপড লরি, প্রিন্সেস অব ওয়েলস, ক্যালিফোর্নিয়ান কোয়েল ইত্যাদি পাখির বাচ্চা উৎপাদনে তিনিই বাংলাদেশে প্রথম।

যতদূর চোখ যাচ্ছিল অপুলক দৃষ্টিতে শুধু পাখি আর পাখির মেলা। বাহারি রং বেরঙের বিভিন্ন জাতের দৃষ্টিনন্দন সব পাখির কলকাকলিতে মুখরিত ছিল সেলিম মিয়ার পক্ষীশালা। পাখির কিচির মিচির শব্দ এক অদ্ভুদ মিষ্টিমধুর কলরোবে পরিণত হয়েছে। এসব দেখে নিমিশের মধ্যে যে কারো মন ভাল হয়ে যাবে বললেন সেলিম মিয়া। তিনি আরো জানালেন, ডাক্টারের পরামর্শ অনুযায়ী মন ভাল করার ওষুধ হিসেবে তিনি এই পক্ষীশালা গড়ে তুলেছেন। কারণ বাইপাস সার্জারির জন্য ডাক্তার তাকে টেনশনমুক্ত থাকতে বলেছেন।

তাঁর সংগ্রহে ৫০ প্রজাতির কয়েক শ পাখি আছে। এদের মধ্যে পেখম মেলে সৌন্দর্যের অপুরূপ লীলায় মনমুগ্ধ করে তোলে বিভিন্ন জাতের ময়ূর রয়েছে। রয়েছে ব্ল্যাক উইং পিকক, ইন্ডিয়ান পিকক। এছাড়া ময়ূরের খাঁচায় থাকা হল্যা-ের সেবরাইট মুরগির সাথে সেলিম মিয়ার রয়েছে চরম বিরোধ। যেকারণে তিনি খাঁচায় প্রবেশ করতেই মুরগিটি রীতিমত লড়াই শুরু করে দেয়। সেলিম মিয়াও জানালেন, এভাবে কয়েক বছর যাবত এই মুরগিটি নিয়মিত তার সাথে লড়াই করছে। তবে এসব বিষয় তিনি বেশ উপভোগ করেন।


বিভাগ : ফিচার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও