৫ মাঘ ১৪২৪, শুক্রবার ১৯ জানুয়ারি ২০১৮ , ১১:৩৪ পূর্বাহ্ণ

চাষাঢ়ায় পপুলারে হয়রানি, রোগীদের বিক্ষোভ


সিটি করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১১:৩৯ পিএম, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৫:৩৯ পিএম, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার


চাষাঢ়ায় পপুলারে হয়রানি, রোগীদের বিক্ষোভ

নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়া বালুর মাঠ এলাকাতে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চিকিৎসক ডা. রবিউল ইসলাম রানার বিরুদ্ধে অনিয়ম ও রোগী হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। হয়রানির শিকার হওয়া রোগীরা আন্দোলনে ফুঁসে উঠলে কর্তৃপক্ষ তোপের মুখে পড়ে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে পরিস্থিতি শান্ত করে।

২৬ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারের চতুর্থ তলার চিকিৎসকের চেম্বারের সামনে অপেক্ষারত রোগীরা ক্ষোভে ফুঁসে উঠে। এসময় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কর্মকর্তারা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনলে রাত ৮ টায় চিকিৎসক এসে হাজির হন।

রোগী সূত্রে জানা গেছে, চিকিৎসক ডা. মো. রবিউল ইসলাম সরকার রানা রোগীদেরকে বিকেলে ৫ টায় আসার কথা বলে। এতে করে রোগীদের অনেকে ৫টায় উপস্থিত হলেও অনেক রোগী আগেই চলে আসে। তবে সময় গড়িয়ে ৫টা থেকে রাত ৭ টা বাজলেও চিকিৎসকদের দেখা পায়নি। এতে করে অপেক্ষারত রোগীদের মধ্যে ক্ষোভ দানা বাঁধতে শুরু করে। এর কিছুক্ষণ পরে আরো আধাঘণ্টা অতিক্রম হলে ধীরে ধীরে রোগীদের ক্ষোভ আন্দোলনের রূপ নেয়। এসময় রোগী ও তাদের স্বজনেরা হয়রানির প্রতিবাদ করলে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পাবলিক রিলেশন অফিসার এসে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সবশেষে রাত ৮টায় চিকিৎসক ৪১৩ নং কক্ষের চেম্বারে এসে পৌঁছায়।

এ ব্যাপারে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পাবলিক রিলেশন অফিসার মো. সোহেল রানা বলেন, ‘চিকিৎসকেরা সরকারি হাসপাতালে চাকরি করে। তাছাড়া তারা কিন্তু আমাদের প্রতিষ্ঠানের চাকরি করেনা। সেক্ষেত্রে সেন্টারের কর্তৃপক্ষ যদি চাপ প্রয়োগ করে তাহলে অন্যত্র বসবে। তাই আমাদের কিছু করার নেই।’

রোগী হয়রানির দৃশ্য কিন্তু একদিনের নয়। প্রায় প্রতিনিয়তই তিনি নানা ভাবে রোগীদের হয়রানি করে থাকে বলে অভিযোগ করেছেন রোগীরা।

হাসেম নামের একজন রোগী জানায়, ‘গত ২৫ ডিসেম্বর বিকেলে চিকিৎসক রবিউলকে দেখালে তিনি ৩টি টেস্ট করানোর কথা বলেন। টেস্ট করিয়ে আনার পর চিকিৎসকের আশায় বসে থাকলে তিনি প্রায় ঘন্টা খানেক বসিয়ে রেখে আমাকে ওই দিনের মত চলে যেতে বলে। এরপর আজকে আসার কথা বললে আমি বিকেল থেকেই অপেক্ষা করছি, এখন রাত ৮ টা বাজে চিকিৎসক এসেছে।

এসময় আরো কয়েকজন রোগী জানান, ‘অনেক দূর থেকে এসেছি বলে দুপুরে এসে পৌঁছেছি। তাই সেই দুপুর থেকে চিকিৎসকের জন্য অপেক্ষা করতে করতে ব্যাথা শুরু হয়ে গেছে। এখন অপেক্ষা করা তো দূরের কথা বসে থাকা বেশ কষ্টকর হয়ে পড়েছে। আমরা তো চিকিৎসকের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছি তাই এসময় তারা তাদের মনগড়া কাজ করে থাকে।’

ডা. মো. রবিউল ইসলাম সরকার রানা বলেন, ‘আমি সন্ধ্যা ৬ টায় চলে এসেছি, তবে নিচে ছিলাম। এরপর কর্তৃপক্ষ আমাকে বললে আমি উপরে উঠে যাই।’

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

স্বাস্থ্য -এর সর্বশেষ