৩০০ শয্যায় ডেঙ্গু পরীক্ষায় মেডিনোভার কার্ড

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:১৮ পিএম, ১০ আগস্ট ২০১৯ শনিবার

৩০০ শয্যায় ডেঙ্গু পরীক্ষায় মেডিনোভার কার্ড

সারা দেশে যখন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে ঠিক সেই সময় কিছু মুনাফাভোগী ডাক্তার ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক ডেঙ্গু জ্বরের টেস্টের পরীক্ষার ফি কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিল। এসব মুনাফাভোগী অসৎ ব্যবসায়ীদের লাগাম টেনে ধরতে সরকারের পক্ষ থেকে ডেঙ্গু পরীক্ষার ফি সরকারীভাবে সর্বোচ্চ ৫০০টাকা নির্ধারণ করা হয় এবং সকল সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যে ডঙ্গেু পরীক্ষা নির্ধারণ করা হয়।

এর ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জের সরকারি হাসপাতালগুলোতেও ডেঙ্গু টেস্ট বিনামূল্যে ঘোষণা করা হয়। কিন্তু খানপুরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ ৩০০শয্যা হাসপাতালে ডেঙ্গু টেস্টের জন্য সাধারণ মানুষ গেলে প্রতিটি রোগীর হাতে বেসরকারি ক্লিনিক ‘মেডিনোভা’ এর কার্ড দিয়ে সেখানে গিয়ে পরীক্ষা করানোর জন্য বলা হচ্ছে।

প্রমাণসহ ডাক্তারের এমন কর্মকান্ড হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের কাছে অভিযোগ করা হলে কিছুই করার নেই বলে তিনি জানিয়ে দেন। অথচ তত্ত্বাবধায়ক নিজেই হাসপাতালের বহির্বিভাগে বড় করে ব্যানার টাঙিয়েছেন ‘আমার প্রতিষ্ঠান দুর্নীতি মুক্ত’।

১০ আগস্ট শনিবার দুপুরে রোমান নামে যুবক খানপুর হাসপাতালে যায় ডেঙ্গু টেস্ট করানোর জন্য। টিকিট কিনে খানপুর ৩০০শয্যা হাসপাতালের বহির্বিভাগের মেডিকেল অফিসার ডা. বেগম মরইয়ম জামিলার কাছে দেখাতে যান তিনি। ডা. বেগম মরইয়ম জামিলা তাকে দেখে প্রেসক্রিপশনে দুটি ওষুধ লিখে দেন এবং ডেঙ্গু আছে কি না তা পরীক্ষা করার জন্য ‘এনএস-ওয়ান’ ও ‘সিবিসি’ দুইট পরীক্ষা লিখে দেন। এসময় তিনি তাকে মেডিনোভার কার্ড দিয়ে সেখানে পরীক্ষাগুলো করানোর জন্য বলেন।

মেডিনোভায় কেন পরীক্ষা করাবো প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, আমাদের এখানে এই পরীক্ষাগুলো ভালোভাবে করানোর মেশিন নেই। মেডিনোভায় ভালোভাবে পরীক্ষা করানো হয় আপনি সেখান থেকে পরীক্ষা করে নিয়ে আসেন।

সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার কর্তৃক বেসরকারি হাসপাতালে যাওয়ার পরামর্শে তিনি অবাক হয়ে সাথে সাথে হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ও হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ককের কাছে অভিযোগ করেন। কিন্তু তাদের কাছে কিছুই করার নেই বলে জানিয়ে দেন তাঁরা।

আবাসিক চিকিৎসক ডা. মো. সামসুদ্দোহা সরকার সঞ্চয় নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ডেঙ্গু রোগের জন্য যে পরীক্ষাগুলো করতে হয় সেগুলো করার জন্য আমাদের এখানে ভালো মেশিন নেই। যে মেশিন আছে সেটি অনেক পুরানো তাই এটা ঠিকভাবে কাজ করে না। সরকারি হাসপাতালে থেকে যদিও এইভাবে সরাসরি কোনো বেসরকারি ক্লিনিকের কার্ড দিয়ে সেখানে যাওয়ার কথা বলা ঠিক না। তার পরেও এটা অন্যায় কিছু করেছে বলে আমি মনে করি না।

এ প্রসঙ্গে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবু জাহের নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, কাজটি সত্যিই ভালো করেনি। কিন্তু আমার হাতে করার কিছু নাই। আমি চাইলেই এই ডাক্তারকে বহিষ্কার করতে পারবো না। আমার হাতে কিছুই করার নাই। কিন্তু হাসপাতালের সব মেশিন ঠিক আছে সব পরীক্ষা এখানে করা হয়। আপনি এখান থেকে সব পরীক্ষা করেন।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও