সেলিম ওসমানের ঘোষণার পরদিনই দালালে পূর্ণ ৩০০ শয্যা হাসপাতাল

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৯:০৮ পিএম, ২৩ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার

সেলিম ওসমানের ঘোষণার পরদিনই দালালে পূর্ণ ৩০০ শয্যা হাসপাতাল

নারায়ণগঞ্জের সব থেকে বড় হাসপাতাল হচ্ছে শহরের খানপুরে অবস্থিত নারায়ণগঞ্জ ৩০০শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল। এ হাসপাতালে নানা সমস্যার মধ্যে বড় একটি সমস্যা হচ্ছে বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকের দালালদের উৎপাত। বিভিন্ন সময় এসব দালালদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন সাংসদ সেলিম ওসমান। অথচ পরের দিনেই দেখা যায় হাসপাতলে প্রবেশের মূল গেইট থেকে শুরু করে ভেতরে প্রতিটি ডাক্তারের রুমে ও বাইরে দালালে কানায় কানায় পূর্ণ।

২৩ অক্টোবর বুধবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায় দালালদের নিয়মিত টহলের মধ্যে একদল হাসপাতালের প্রধান ফটকের সামনে ঘাঁপটি মেরে বসে আছে। একদল প্রধান ফটক থেকে হাসপাতালের বহির্বিভাগ পর্যন্ত জায়গায় অসহায় রোগীদের ফাঁদে ফেলতে পাঁয়তারা করছে। আরেক দল হাসপাতালের কর্মী বেশে ডাক্তারদের রুমে রুমে অবস্থান নিয়ে রোগীদের ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করছে। ডাক্তার যখন রোগীকে দেখে পরীক্ষা লিখে দিচ্ছেন তখন এসব দালালেরা রোগীর হাতে বাইরের বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যাওয়ার জন্য কার্ড ধরিয়ে দিচ্ছেন এবং সেখানে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। আর এই চিত্র সকাল ১০ থেকে ১২টা পর্যন্ত টানা ২ঘণ্টা অবস্থান করে দেখা গেছে।

এর আগে গত ২২ অক্টোবর খানপুর ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের অভ্যন্তরে ডক্টরস ওয়েল ফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ও হাসপাতালের কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদ্যোগে হাসপাতালটির ৩৩ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে দালালদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান।

এসময় তিনি বলেছিলেন, অন্যান্য জেলাগুলোতে দেখা যায় হাসপাতালের বারান্দাতেও রোগীর জায়গা হয়না। আর আমাদের এখানে অনেক সময় রোগীর সংকট দেখা যায়। এর মূল কারণ হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ শহরে এবং হাসপাতালের আশেপাশে বহু প্রাইভেট ক্লিনিক গড়ে উঠেছে। এসকল ক্লিনিকের নিয়োগকৃত দালালরা হাসপাতাল থেকে রোগীদের প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে বেশ কয়েকবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করে দালালদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছে। এমন অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। হাসপাতালে নিরাপত্তা নিশ্চিত করন অবশ্যই জরুরি এ ব্যাপারে মাসিক সভায় হাসপাতালের ভেতরে একটি আনসার ক্যাম্প স্থাপনের সিদ্ধান্ত রেজুলেশন ভুক্ত করা হয়েছে। আমি নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজলকে ব্যবসায়ীদের সহযোগীতা নিয়ে আনসার ক্যাম্প স্থাপনের বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করছি। পাশাপাশি হাসপাতালের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষনের জন্য যে ৬৩টি সিটি টিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়ে ছিল সেগুলো আগামী মাস থেকে সবগুলোই পুনরায় চালু বে বলে আমি কথা দিচ্ছি।

গত ১৮ জুলাই ৩০০শয্যায় র‌্যাবের দালাল বিরোধী অভিযানে হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে জেলা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ঘোষণা দিয়েছিলেন যে দালালদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেছিলেন, হাসপাতালের অভ্যন্তরে দালালদের দৌরাত্ম্য ও অনিয়ম ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ভ্রাম্যমান আদালতের এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে। আজকে প্রাথমিক ভাবে শাস্তি কম দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে শাস্তির মেয়াদ আরো বৃদ্ধি করতে হবে। আর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কেউ যদি কোন প্রকার অনিয়মের সাথে জড়িত থাকেন এবং অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। যে কোন কিছুর বিনিময় হাসপাতালটিকে দালাল ও অনিয়ম মুক্ত করতে হবে।

পাশাপাশি তিনি আরো বলেছিলেন, হাসপাতালের বর্হিবিভাগের যারা সেবা নিতে আসবেন এখন থেকে সরকারী নিয়ম অনুয়ারী অবশ্যই তাদের পরিচয় পত্রের ভিত্তিতে টিকিট দিতে হবে। যাতে করে কোন দালাল বেনামে টিকিট সংগ্রহ করে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের হয়রানী করতে না পারে। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় দালালরা টিকিট কেটে রোগী পরিচয়ে হাসপাতালের ভেতরে অবস্থান করে থাকে। সেজন্যই পরিচয় পত্রের ভিত্তিতে টিকিট দেওয়ার ব্যবস্থা চালু করতে হবে। এক্ষেত্রে জরুরি রোগীদের বেলায় এ নিয়মটি শিথিল থাকবে। এছাড়াও হাসপাতালের অভ্যন্তরে দুটি রেজিস্টার কক্ষ নির্মাণের জন্য নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতির খালেদ হায়দার খান কাজলকে দায়িত্ব দিয়েছেন এমপি সেলিম ওসমান।

তবে শেষ পর্যন্ত সেই অভিযানের তিন মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত কোনো পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। হাসনপাতালে দালাল বিরোধী অভিযান নিয়মিত পরিচালনার কথা থাকলেও দালালে কানায় কানায় ভর্তি হওয়ার পরেও বাস্তবে কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

একই ভাবে বাস্তবায়ন ঘটেনি সাংসদ সেলিও সমানের দালাল মুক্ত করার জন্য পরিচয়পত্র দিয়ে টিকিট বিক্রির ঘোষণা। ফলে অল্পদিনের মধ্যেই আবারো দারালে কানায় কানায় ভরে গেছে হাসপাতাল। এতে করে নিয়মিতই প্রতারিত হচ্ছে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও