নারায়ণগঞ্জে ২ এইডস রোগীর মৃত্যু, হাসপাতালে আরো ৫ জন

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৩ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার

নারায়ণগঞ্জে ২ এইডস রোগীর মৃত্যু, হাসপাতালে আরো ৫ জন

নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার ইমতিয়াজ বলেছেন, জেলায় এইচআইভি/এইডস রোগ পরিক্ষায় ৭জনকে এই রোগের সনাক্ত করা হয়েছিল। তাদের মধ্যে ইতোমধ্যে ২জন মৃত্যুবরণ করেছেন। বাকি ৫জনকে ঢাকা একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এই ৭জন সনাক্ত করেছে বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ ড্রপ ইন সেন্টার। ২০১৮ সাল থেকে শুরু করে আজকে পর্যন্ত ১৫৯ তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) মধ্যে পরিক্ষা মাধ্যমে ৭জনকে এইচআইভি/এইডস রোগ সনাক্ত করা হয়। এর পাশাপাশি ৪২০জন টিবি স্ক্রিনিং করে ৩জনকে সনাক্ত করা হয়েছে, তাদের ইতিমধ্যে রেফা করে ঢাকায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

সচেতন হওয়ার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, এইচআইভি/এইডস রোগ কি মানুষ ইচ্ছা করে জানতেন তাহলে এই রোগ থেকে দেশ মুক্ত থাকত। এইচআইভি/এইডস রোগ প্রাথমিকভাবে ধারণা সম্ভবগুলো হলো ডায়রিয়া ও টিবি রোগে আক্রান্ত হওয়া। এইচআইভি রোগের বাকা চোখে তাকাবেন না। তাদের ভালো ব্যবহারে বাচাঁর আশা জাগিয়ে তুলতে হবে। সমাজটা ঝুঁকিতে না থাকে সে জন্য এইডস থেকে সকলকে বিরত থাকতে হবে। যদি কোন ট্রাক ড্রাইভার যদি এইডস রোগে আক্রান্ত হয়ে তার স্ত্রী থাকে সহবাস করে তাহলে তার স্ত্রী ও আসা সন্তানেরা এই রোগে আক্রান্ত হবে। স্ত্রী ছাড়া কারো সাথে যৌন সম্পর্ক থাকা উচিত না। সেই সময় নিরাপদ ব্যবস্থা নেয়া হলে তিনি এইডস থেকে মুক্ত থাকতে পারেন। আপনি যাকে নিয়ে যৌন করছেন, সেই এইডসে ভোগতে কি না তাহা বুঝা যায় না।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে অনেক জরুরী রক্ত প্রয়োজন হয়। সে কারণে রেডিমেট রক্ত ক্রয়ে এইডস সনাক্ত করা হয়েছে। এইডস কি পরিণতি কি হয় তা তুলে ধরতে হবে। হাজারো লাখে মধ্যে দুই/একজন পাওয়া যায়। হিজড়া পৃথিবীতে পাঠান আল্লাহ তায়ালা। তিনি বুঝে হিজড়া পরিবারের মধ্যে জন্মের মাধ্যমে দেন। সব আল্লাহ ইচ্ছা। তাদের অবহেলা করা ঠিক নয়।

ইমামদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রতি নামাজে বা বিশেষ নামাজগুলোতে এইডস সহ বিভিণœ বিষয়ে মুসল্লিদের জানাবেন। আপনাদের কথাগুলো মূল্যায়ান করে আগত মুসল্লিরা।

মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর দুপুর ২টায় নারায়ণগঞ্জ সিভিল সার্জন কার্যালয়েল সভাকক্ষে বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ ড্রপ ইন সেন্টারের আয়োজনে এইচআইভি/এইডস প্রতিরোধ কার্যক্রমের সভাপতি’র বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ ড্রপ ইন সেন্টারের সিনিয়র ম্যানেজার এ কে হুমায়ূন কবিরের সঞ্চালয়নায় উপস্থিত ছিলেন, সিভিল সার্জন হেলথ অফিসার, মেডিকেল অফিসার ডা. সাখাওয়াত হোসেন, এডভোকেট মেরিনা বেগম ও ডা. জব্বার চিশতি সহ বিভিণœ শ্রেণীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ ড্রপ ইন সেন্টারের সিনিয়র ম্যানেজার এ কে হুমায়ূণ কবির বলেন, ১৯৯৬ সাল থেকে দেশেব্যাপী হিজড়া এবং লিঙ্গ বৈচিত্র জনগোষ্ঠির আত্মমযাদায় বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি কার্যক্রম শুরু হয়। এখান থেকে কনডম বিতরণ করা হয়। এইডস রোগের কোন ঔষধ নেই।

এইডস কিভাবে হয়, কনডম ব্যবহার না করলে, রক্তে সংস্পর্শে ও মা থেকে শিশু সংক্রমন। বর্তমানে ইনজেকশন নেশা ও হিজড়াদের মাঝে এইডস রোগ বেশি ছড়ায়।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও