প্রো অ্যাকটিভেও আইসিইউ থাকবে না

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০১:৩২ পিএম, ২৯ জুন ২০২০ সোমবার

প্রো অ্যাকটিভেও আইসিইউ থাকবে না

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের ঘোষণার পর এক সপ্তাহেও কোন করোনা আক্রান্ত রোগীকে ভর্তি নেয়নি প্রো অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল লিমিটেড। কর্তৃপক্ষের আশা আগামী ১ জুলাইয়ের আগেই রোগী ভর্তির কার্যক্রম শুরু হবে। কিন্তু যে আইসিইউর জন্য এতো আলোচনা সমালোচনা সেই আইসিইউ সুবিধা পাবেনা করোনা আক্রান্ত রোগীরা। করোনা আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেন সুবিধা সহ ১১ বেডের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসা দেয়া হবে। তবে এরজন্য নূন্যতম মূল্য পরিশোধ করতে হবে।

শনিবার বিকেলে এ বিষয়ে নিশ্চিত করেন প্রো অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের হেড অব অপারেশন ডা. রাশিদুল হুদা।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জে শুরু থেকে এখনও পর্যন্ত ২৩ হাজার ৯১০জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৪ হাজার ৯৭৯জন কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়। যার মধ্যে মারা গেছে ১১০জন আর সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৪৭১জন।

এমন পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালে (করোনা হাসপাতাল) গত আড়াই মাসেও আইসিইউ চালু না হওয়ায় শহর জুড়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। এ নিয়ে সভা সমাবেশ সহ বিভিন্ন কর্মসূচিও পালন করে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সহ বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষ। যদিও এখনও করোনার আক্রান্তদের জন্য আইসিইউ চালু হয়নি। তাছাড়া সাজেদা ফাউন্ডেশনে মাত্র ৪টি আইসিইউ থাকায় রোগীদের ভরসা করতে হয় ঢাকায়। আইসিইউ না থাকায় ভোগান্তিতেও পরতে হচ্ছে রোগীদের।

গত ১৯ জুন প্রো অ্যাকটিভ হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের ভর্তি না নিলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে আলটিমেটাম দেন শামীম ওসমান। ১৯ জুন বিকেলে নারায়ণগঞ্জ রাইফেল ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান বলেন, নারায়ণগঞ্জের প্রো এ্যাকটিভ ও আল বারাকা হাসপাতালে আইসিইউ বেড রয়েছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সকল হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের সেবা দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে। প্রো এ্যাকটিভ এটাকে বাণিজ্য হিসেবে নিয়েছে। যদি আগামী সপ্তাহের মধ্যে এখানে (প্রো অ্যাকটিভ ও আল বারাকা) করোনা রোগীদের সেবা দেয়া না হয় তাহলে আমি সাংবাদিকদের নিয়ে সেখানে যাবো এখন যা যা করা দরকার করবো।

এ পরিস্থিতিতে উত্তরণের জন্য গত ২২ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের এমপি একেএম শামীম ওসমান ঘোষণা দেন প্রো অ্যাকটিভ ও আল বারাকা নামে বেসরকারী দুটি প্রাইভেট হাসপাতাল করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিবে। ওই সংবাদ সম্মেলনে প্রো অ্যাকটিভ ও আল বারাকার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তারাও গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে স্বীকার করেন তারা ২২ জুন থেকেই করোনা আক্রান্ত রোগীদের ভর্তি নিবেন। কিন্তু ২৭ জুন পর্যন্ত প্রো অ্যাকটিভ হাসপাতালে কোন করোনা আক্রান্ত রোগীকে ভর্তি নেওয়া হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনার সংক্রামণ শুরু হওয়ার পর অনেক প্রাইভেট ক্লিনিক বন্ধ থাকলেও নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে প্রো অ্যাকটিভ হাসপাতাল তাদের সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা কার্যক্রম চালিয়ে যায়। বর্তমানেও হাসপাতালের কার্যক্রম অব্যাহত আছে।

প্রো অ্যাকটিভ মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের হেড অব অপারেশন ডা. রাশিদুল হুদা নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত আমাদের করোনা চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয়নি। গত বৃহস্পতিবার সিভিল সার্জন ও করোনা বিষয়ক ফোকাল পারর্সনকে চিঠি নিয়ে জানানো হয়েছে আমাদের ২জন ডাক্তার, ২ জন নার্স ও ৩ জন আয়া/ওয়ার্ডবয় আছেন তাদের ট্রেনিং দেওয়ার জন্য। তাদের রোববার ২৮ জুন সিভিল সার্জন থেকে ট্রেনিং দেয়া হবে। ট্রেনিং শেষ হলে সিভিল সার্জন যেদিন বলবে সেদিনই কার্যক্রম শুরু হবে।’

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে আইসিইউ আছে ৯টি বেড। যার মধ্যে ভেন্টিলেটর মাত্র ২টি। আর আমাদের হাসপাতালে এখনও পর্যন্ত ২৫জন নবজাতক শিশু আছে। যাদের মধ্যে ৯জন আইসিইউতে ভর্তি। তাদেরই ভেন্টিলেটর প্রয়োজন হচ্ছে। ফলে করোনা রোগীর জন্য আমরা আইসিইউ সেবা দিতে পারবো না। যদি সরকার থেকে ভেন্টিলেটর দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাছাড়া বর্তমানে অক্সিজেন সুবিধা সহ ১১ বেডের আইসোলেশন ইউনিট চালু করা হবে। ফলে আইসিইউর আগ মূহূর্ত পর্যন্ত সেবা দেওয়া যাবে।’

রাশিদুল হুদা নিউজ নারায়ণগঞ্জকে আরো বলেন, ‘আমাদের পিপিই নেই, আনুষাঙ্গিক সরঞ্জাম নেই, ডাক্তার নার্সদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা নেই। আর একটি মাত্র ভবন সেখানেই করোনা ইউনিট চালু করতে হবে। এর জন্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম প্রয়োজন। করোনা ওয়ার্ডের ৭জনের জন্য সহযোগি হিসেবে আরো ৪২জন সহযোগি প্রযোজন হবে। এসব কিছুর জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছি সহযোগিতা করার জন্য।’

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘করোনা ইউনিট চালু হলে স্বাভাবিক রোগীদের উপর একটু প্রভাব পড়বে। কেউ তেমন আসতে চাইবে না। তবে আমরা চেষ্টা করছি দুটি ইউনিট আলাদা ভাবে ব্যবস্থা করার। যাতে করে দুটি সেবা কার্যক্রম যথারীতি চালিয়ে নেওয়া যায়।’

বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা পাবে? তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আমরা প্রাইভেট হাসপাতাল। বিনামূল্যে সেবা দেওয়া সম্ভব হবে না। তবে এমনিতেই আমরা ৪ ভাগের এক ভাগ খরচে মানুষের সেবা দিয়ে থাকি। সে অনুপাতে সর্বনি¤œ একটি চার্জ ধরা হবে। তাও নির্ধারণ করবে পরিচালনা কমিটি। এ বিষয়ে পরে জানানো যাবে।’


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও