মৃত্যুর পর ৫ লাখ টাকার বিল, রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ

সিটি করেসপন্ডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ১০:৩৩ পিএম, ২৫ জুলাই ২০২০ শনিবার

মৃত্যুর পর ৫ লাখ টাকার বিল, রিপোর্টে করোনা নেগেটিভ

পপুলার হাসপাতালে করোনার চিকিৎসা দিয়ে রোগী মেরে ফেলার অভিযোগ করেছেন নিহতের স্বজনেরা। শুধু তাই নয়, প্রতিবাদ করায় মরদেহ বাইরে ফেলে দেওয়া হয়।

রোগীর স্বজনেরা জানান, ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর পর তাদের হাতে উল্টো প্রায় ৫ লাখ টাকার বিল ধরিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের টানবাজার থেকে কাশি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে পপুলার হাসপাতালে ১৫ জুলাই ভর্তি হন আশি বছর বয়সী রওশন আলী সিকদার। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, রোগীর করোনা পজিটিভ এসেছে এবং অক্সিজেন লেভেলও কম। ওই দিনই তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। কিন্তু পরিবারের সদস্যদের সন্দেহ হলে তারা অন্য হাসপাতালে রোগীর করোনা পরীক্ষা করান। সেখানে রেজাল্ট নেগেটিভ আসে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানানো হলে বিষয়টি আমলে নেননি। এরই মধ্যে দুই দফা আইসিইউ ও নানা পরিক্ষা নিরিক্ষার বিল হিসেবে ধাপে ধাপে টাকা নেয় প্রায় ৫ লাখ।

নয়দিন পর ২৪ জুলাই রাতে রওশন আলীকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। আর পরিবারের কাছে ৪ লাখ ৯০ হাজার টাকার বিল ধরিয়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। স্বজনদের অভিযোগ, টাকা পাওয়ার পর মরদেহ হাসপাতালটির বাইরে ফেলে রাখা হয়। পরে পুলিশকে জানানো হলে মরদেহ নেয়া হয় হাসপাতালের মর্গে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পপুলার হাসপাতাল মেডিকেল অফিসার শহীদুল ইসলাম বলেন, তার নিউমোনিয়া হয়েছে। নিউমোনিয়ার আমরা কি ট্রিটমেন্ট দেই? অ্যান্টিবায়োটিক দেয়ার পর অক্সিজেল লেভেলও বাড়িয়েছি। সব করেছি। করোনার সব উপসর্গ থাকলেও অনেক সময়ই পরীক্ষায় ধরা পরে না। আর রওশন আলীর শরীরিক নানা জটিলতা থাকায় শেষ পর্যন্ত বাঁচানো সম্ভব হয়নি তাকে।

এদিকে এ বিষয়ে পপুলার হাসপাতালের বিরুদ্ধে ধানমন্ডি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন নিহতের স্বজনরা।


বিভাগ : স্বাস্থ্য


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও